September 22, 2021

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Sunday, May 30th, 2021, 1:37 pm

খালেদা জিয়ার জ্বর হয়তো আর আসবে না: চিকিৎসক

নিজস্ব প্রতিবেদক:

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার অসুস্থতার বিষয়ে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, খালেদা জিয়া জ্বরে আক্রান্ত হয়েছিলেন। এখন জ্বর নিয়ন্ত্রণে এসেছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন হয়তো জ্বর আর আসবে না।

তিনি বলেন, আমাদের দুঃখ হয় যে নেত্রী গণতন্ত্রের সংগ্রাম করেছেন আজীবন, তার চিকিৎসার জন্য কোনো সুযোগ দেয়া হয় না। বারবার করে বলা হয়েছে তার অ্যাডভান্স চিকিৎসার দরকার, সে ব্যবস্থা করার জন্য। কিন্তু সরকার প্রতিহিংসামূলক রাজনীতির কারণে তাকে সেই সুযোগ থেকে বঞ্চিত করছে।

রোববার সকালে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ৪০তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে তার মাজার জিয়ারত শেষে এসব কথা বলেন তিনি। এসময় দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে স্থায়ী কমিটির সদস্যরা রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে জিয়াউর রহমানের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন। এছাড়াও তার রুহের মাগফেরাত কামনা করে জিয়ারত ও দোয়া-মোনাজাত করা হয়।

পরে মির্জা ফখরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, জিয়াউর রহমান একজন ক্ষণজন্মা নেতা। জাতীর প্রয়োজনে সামনে এসে দাঁড়িয়েছেন, নেতৃত্ব দিয়েছেন। স্বাধীনতা যুদ্ধে নিজে রণাঙ্গণে থেকে যুদ্ধ করেছেন। যুদ্ধের মধ্য দিয়ে তারা দেশ স্বাধীন করেছেন। আবার ১৯৭৫ সালে একদলীয় শাসনব্যবস্থা থেকে তিনি জাতিকে মুক্ত করেছেন। বহুদলীয় গণতন্ত্র উপহার দিয়েছেন।

তিনি বলেন, জিয়াউর রহমান বিভক্ত জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করেছেন। নতুন বিপ্লব শুরু করেছিলেন সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার লক্ষে, গণতান্ত্রিক বাংলাদেশের জন্য। মাত্র সাড়ে তিন বছরে তিনি বাংলাদেশকে সমৃদ্ধ করেছেন। উন্নয়নের ভিত্তি স্থাপন করেছেন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, দুর্ভাগ্য আমাদের এই জাতি যুদ্ধ করেছিলো একটি উদার গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের জন্য। আওয়ামী লীগ সচেতনভাবে উদার গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থা ধ্বংস করে দিয়ে আবারো একদলীয় শাসন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার কাজ শুরু করেছে। তারাই পরিকল্পিতভাবে আজকে সাম্প্রদায়িকতা ও উগ্রবাদের জন্ম দিচ্ছে। আওয়ামী লীগ এই দেশের স্বার্থের জন্য শুভ কাজ করেনি। তারা শুধু ধ্বংসই করেছে।

তিনি বলেন, একটি ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে গোটা জাতি লড়াই করছে। শুধু বিএনপি নয় সবাই ভুক্তভোগী। আমাদের গণতন্ত্র, মুক্ত সমাজব্যবস্থা ও মুক্ত সাংবাদিকতাকে হরণ করেছে আওয়ামী লীগ। একটি নির্যাতনমূলক শাসনব্যবস্থা চাপিয়ে দেয়া হয়েছে। এখান থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে।