June 13, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Monday, October 2nd, 2023, 1:50 pm

অর্থনীতিকে করোনা পূর্ববর্তী অবস্থায় ফেরাতে চায় সরকার

চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের শেষ নাগাদ প্রবৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে দেশের অর্থনীতিকে কোভিড পূর্ববর্তী গতিতে ফিরিয়ে আনার আশা করছে সরকার।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের একটি নথিতে সরকারি বিবরণ অনুযায়ী ২০২০-২০২২ অর্থবছর পর্যন্ত অর্থনীতির বৃদ্ধির গতি থামিয়ে দিয়েছে মহামারি। এই পরিস্থিতি থেকে বিশ্ব পুনরুদ্ধার করার আগেই ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরু হয়। ফলে বৈশ্বিক রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক পরিস্থিতি অব্যাহত অস্থিরতার কারণে পূর্ববর্তী অবস্থায় ফিরে যেতে আবারও বাধাগ্রস্ত হয়।

একটি নোটে আইএমএফ প্রবৃদ্ধির অনুমান সংশোধন করেছে এবং বিশ্বব্যাপী পূর্বে যা প্রত্যাশিত ছিল তার চেয়ে বেশি পরিমিত বৃদ্ধির পরামর্শ দিয়েছে।

নথিতে বলা হয়েছে, ‘বাংলাদেশ তার অর্থনীতিতে প্রভাব ফেলতে প্রস্তুত। তবে, প্রকৃত তথ্য দেখায় যে কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাবের বৃদ্ধির সময়েও বাংলাদেশ চিত্তাকর্ষকভাবে কাজ করেছে এবং ২০২৩-২৪ অর্থবছরের শেষ নাগাদ কোভিড পূর্ব প্রবৃদ্ধির গতিপথে ফিরে আসবে বলে আশা করা হচ্ছে।’

সবকিছু পরিকল্পনা অনুযায়ী চললে এবং ‘অনুমান’ অনুযায়ী চলতে থাকলে ২০২৫-২৬ অর্থবছরে ৮ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জিত হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এতে বলা হয়েছে, অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় পরিকল্পিত প্রবৃদ্ধি থেকে প্রকৃত বিচ্যুতি সামান্য রয়ে গেছে। পুঁজি সঞ্চয় করা উন্নয়নের চাবিকাঠি এবং তাই সরকার সরকারি বিনিয়োগের পাশাপাশি বেসরকারি বিনিয়োগকে উৎসাহিত করার লক্ষ্য রাখতে হবে।

২০২১-২২ অর্থবছরে মোট বিনিয়োগ জিডিপির ৩২ দশমিক শূন্য শতাংশে দাঁড়িয়েছে, যেখানে ব্যক্তিগত এবং সরকারি খাতের অবদান যথাক্রমে ২৪ দশমিক পাঁচ এবং ৭ দশমিক ৫ শতাংশ।

তবে এতে উল্লেখ করা হয়েছে যে দীর্ঘ ও মধ্যমেয়াদী প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে হলে বিনিয়োগের মাত্রা আরও বাড়াতে হবে।

নথিতে উল্লেখ করা হয়েছে যে সরকারি বিনিয়োগের বাস্তবায়নের হার বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে। যদি উন্নয়ন প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নের গতি বাড়ানো যায় তবে বিনিয়োগের কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জন করা যেতে পারে।

এতে আরও বলা হয়েছে, ‘সরকার প্রকল্পের নকশা এবং বাস্তবায়ন উভয় স্তরেই কিছু কাঠামোগত পরিবর্তন আনতে পদক্ষেপ নিয়েছে বলে জানানো হয়েছে।’

সরকারি নথিতে বলা হয়েছে, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ বিশ্বব্যাপী জ্বালানি সরবরাহকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলেছে। রাশিয়া জ্বালানির একটি প্রধান বৈশ্বিক সরবরাহকারী। তাই যুদ্ধ শুরু হওয়ার পরই পণ্যের দাম দ্রুত বেড়ে যায়।

প্রায় সব দেশের মতো বাংলাদেশও এর ভুক্তভোগী হয়। ২০২২ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে, পয়েন্ট-টু-পয়েন্ট মূল্যস্ফীতি বেড়ে ৮ দশমিক ৭ শতাংশে দাঁড়ায় এবং তারপরে ২০২৩ সালের মার্চে আরও এটি ৯ দশমিক ৩ শতাংশে উন্নীত হয়।

যাইহোক, বিশ্বব্যাপী পণ্যের দাম ইতোমধ্যেই কমছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো নীতিগত হার বাড়িয়েছে এবং এর কারণে আশা করা হচ্ছে যে আগামী মাসগুলোতে মূল্যস্ফীতি কমে আসবে।

আইএমএফ এও অনুমান করেছে যে সরকারের গৃহীত ব্যবস্থা মধ্যমেয়াদে মুদ্রাস্ফীতি কমাতে সাহায্য করবে। অর্থ বিভাগ (এফডি) অনুমান করেছে যে ২০২২-২৩ অর্থবছরে গড় মূল্যস্ফীতি হবে সাড়ে ৭ শতাংশ এবং ২০২৩-২৪ অর্থবছরে তা ৬ দশমিক শূন্য শতাংশে নেমে আসবে৷

মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে এবং দরিদ্রদের আয় রক্ষার জন্য সরকার প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের অভ্যন্তরীণ সরবরাহ বাড়ানোর উপর জোর দিয়েছে। একই সঙ্গে ধীরে ধীরে মুদ্রানীতি কঠোর করছে।

নথিটি বলে যে খাদ্য মূল্যস্ফীতি দরিদ্রদের সবচেয়ে বেশি ক্ষতি করে। এ বিষয়টি মাথায় রেখে সরকার ভর্তুকি ও প্রণোদনাসহ বিভিন্ন পদক্ষেপের মাধ্যমে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধিকে উৎসাহিত করেছে।

এতে বলা হয়েছে, কৃষি খাতে উৎপাদনে সহায়তা করার জন্য ঋণ বিতরণও বাড়ানো হয়েছে।

২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারির শেষ নাগাদ কৃষি ঋণ এবং অ-কৃষি পল্লী ঋণ বিতরণের পরিমাণ ছিল ২১০ দশমিক ৬৬ বিলিয়ন, যা বছরে ১৩ দশমিক ৬৬ শতাংশের বেশি।

নথিতে বলা হয়েছে, সরকারের সহায়ক নীতির কারণে ২০২২-২৩ অর্থবছরের জুলাই-ডিসেম্বর মাসে শিল্প উৎপাদনের সাধারণ সূচক (মাঝারি এবং বড় আকারের উৎপাদন) ৮ দশমিক ৪৭ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে, যা শিল্প উৎপাদনে সামান্য সম্প্রসারণকে প্রতিফলিত করে।

—-ইউএনবি