September 25, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Sunday, December 19th, 2021, 9:27 pm

আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার কর্মযজ্ঞ শুরু

ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক:

রাজধানীর পূর্বাচলে অবস্থিত বাংলাদেশ-চায়না ফ্রেন্ডশিপ এক্সিবিশন সেন্টারে ২০২২ সালের আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা অনুষ্ঠিত হবে। ফলে সেখানে শুরু হয়েছে বিশাল এক কর্মযজ্ঞতা। এ মেলা আয়োজনের পূর্ণ প্রস্তুতি নিয়েছে সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগ ও মন্ত্রণালয়। আয়োজনের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোকে (ইপিবি)। এদিকে, মেলায় অংশগ্রহণে ইচ্ছুক সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো মেলার জন্য নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। ১৯৯৫ সাল থেকে গত ২৫টি ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে অবস্থিত বাণিজ্য মেলা মাঠে হয়ে আসছিল। যার ফলে ওই এলাকায় মেলা চলাকালীন সময়ে যানজট অনেক বেশি বেড়ে যায়। এবার এই যানজট কমাতে প্রথমবারের মতো ঢাকা শহরের অদূরে অনুষ্ঠিত হচ্ছে মেলা। পূর্বাচল উপশহরের ৪ নম্বর সেক্টরে ২০১৭ সালে ২০ একর জায়গায় একটি এক্সিবিশন সেন্টার তৈরির ঘোষণা করে সরকার। চীন ও বাংলাদেশের যৌথ অর্থায়নে বাণিজ্য মেলা ও প্রদর্শনীর এই স্থায়ী অবকাঠামো নির্মাণ করা হয় যা ‘বাংলাদেশ-চীন এক্সিবিশন সেন্টার’ নামে পরিচিত। পূর্বাচলের নতুন এই ভেন্যুটিতে রয়েছে ৩৩ হাজার বর্গমিটারের প্রদর্শনী স্পেস। এছাড়া, ফ্লোর স্পেস হলো ২৪ হাজার ৩৭০ বর্গমিটার আর এক্সিবিশন স্পেস হলো ১৫ হাজার ৪১৮ বর্গমিটার। জানা গেছে, এবারের বাণিজ্য মেলায় স্টল গুলো একটু ফাঁকা ফাঁকা করে তৈরি করা হবে। কারণ একদিকে করোনাভাইরাস, আর অন্য দিকে ওমিক্রন। স্বাস্থ্যবিধি মেনেই মেলায় প্রবেশ করবে দর্শনার্থীদের। এদিকে এ এক্সিবিশন সেন্টারে প্রবেশের পথগুলোর এখনও বেহাল দশা। কুড়িল বিশ্বরোড থেকে পূর্বাচলে আসা সড়কে চলছে সরকারের উন্নয়নমূলক কাজ। অন্যদিকে গাজীপুর থেকে আসা সড়কের বিভিন্ন জায়গায় ভাঙ্গা রয়েছে। স্থানীয়দের মতে এইসব সড়কগুলো মেরামত না করতে পারলে বাণিজ্য মেলায় আসা দর্শনার্থীদের কষ্টের সীমা থাকবেনা। রাজধানীর পূর্বাচলে অবস্থিত বাংলাদেশ-চায়না ফ্রেন্ডশিপ এক্সিবিশন সেন্টারটি আকর্ষণীয় ভাবে তৈরি করা হয়েছে, যা দর্শকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করবে। জানুয়ারি মাসে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা হবে। তাই এখনই অনেক দর্শনার্থীরা প্রতিদিন ভিড় করছেন সেখানে দাঁড়িয়ে ছবি তোলার জন্য। সেন্টারটি সামনেই রয়েছে আকর্ষণীয় পানির ফোয়ারা। সামনে বিশাল খোলা মাঠ, চারদিকে আলো-বাতাসে ভরপুর। সেন্টারটি দেখলে যে কারো দৃষ্টি আকর্ষণ হবে। এই এক্সিবিশন সেন্টারটি এমন জায়গায় স্থাপন করা হয়েছে, যেখানে ঢাকা, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী থেকে সহজেই আসা যায়। পূর্বাচলে বাণিজ্য মেলা হলে রাজধানীর যানজট কমবে, এমন প্রত্যাশা করে মেলার মাঠের স্থান পরিবর্তন করা হয়েছে।