February 4, 2023

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Tuesday, January 17th, 2023, 8:17 pm

আবারও রাজধানীতে ‘বিউটি সার্কাস’

অনলাইন ডেস্ক :

দেশীয় সংস্কৃতি ও মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী বাংলাদেশের লড়াইয়ের গল্প নিয়ে নির্মিত চলচ্চিত্র ‘বিউটি সার্কাস’ ফের রাজধানীতে। মাহমুদ দিদার পরিচালিত চলচ্চিত্রটি মঙ্গলবার (১৭ জানুয়ারী) চলমান ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হতে যাচ্ছে। এটি বাংলাদেশ প্যানারোমা বিভাগে প্রতিযোগিতার জন্য নির্বাচিত হয়েছে। জাতীয় জাদুঘর মিলনায়তনে সন্ধ্যা ৭টায় চলচ্চিত্রটি প্রদর্শিত হবে বলে জানিয়েছেন উৎসব কর্তৃপক্ষ। দেশীয় বিলুপ্ত প্রায় সার্কাস শিল্প নিয়ে প্রথমবারের মতো নির্মিত চলচ্চিত্রটি মুক্তি পায় গত বছর ২৩ সেপ্টেম্বর। সার্কাসকন্যা ‘বিউটি’রূপে সিনেমাটির প্রধান চরিত্রে অভিনয় করছেন দুই বাংলার নন্দিত অভিনেত্রী জয়া আহসান। তারকাবহুল চলচ্চিত্রটিতে আরও অভিনয় করেছেন চিত্রনায়ক ফেরদৌস আহমেদ, তৌকীর আহমেদ, এবিএম সুমন, শতাব্দী ওয়াদুদ, গাজী রাকায়েত, হুমায়ূন সাধু, মানিসা অর্চি প্রমুখ। বড়পর্দায় মুক্তির পর সমালোচক ও দর্শকদের কাছে দারুণ প্রশংসিত হয় চলচ্চিত্রটি। লেখক, সমালোচক আহসান কবির চলচ্চিত্রটি নিয়ে লিখেছেন- “সার্কাসের আড়ালে মনেপ্রাণে মুক্তবুদ্ধির চর্চা আর অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ চাওয়ার এক সিনেমা ‘বিউটি সার্কাস’। সামাজিক দায়বদ্ধতার জায়গায় সটান দাঁড়িয়ে মৌলবাদের অন্ধকার জগৎ থেকে আলোর পথে ফিরিয়ে আনতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞা এক নারীর একাকী সংগ্রামের গল্প বিউটি সার্কাস। যারা স্বাধীনতার বিপক্ষে ছিল, ধর্মের মুখোশ পরে এখনও যে তারা বাউল গান কিংবা সার্কাসের বিপক্ষে, সেটা জানানোর গল্প বিউটি সার্কাস। স্বাধীনতার পর সার্কাস ও এর পেছনের স্মৃতিময় গল্পের প্রথম কোনো সিনেমা বিউটি সার্কাস।” অন্যদিকে, শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি চলচ্চিত্রটি দেখতে গিয়ে মন্তব্য করেছিলেন, “বিউটি সার্কাস’ রুদ্ধশ্বাসে দেখে ফেলার মতো সিনেমা। বিউটি নারী শক্তির প্রতীক, সাহসের প্রতীক এবং আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সেই চেতনারও প্রতীক। সাম্প্রদায়িকতার সবচাইতে বড় শিকার হয় নারী এবং বিউটি সার্কাসে প্রতিবাদী যে চরিত্রটি সেটিও নারী। ‘বিউটি সার্কাস’ সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে একটা উল্লেখযোগ্য প্রতিবাদ।” নির্মাতা মাহমুদ দিদার বলেন, “নানা প্রতিকূলতার ভেতর দিয়ে মুক্তি পাওয়া ‘বিউটি সার্কাস’-এ সময়ের জন্য অত্যন্ত জরুরি একটি চলচ্চিত্র। রাষ্ট্র, সমাজ, লেখক, বুদ্ধিজীবী কিংবা প্রগতিশীল মানুষের হাত ধরেই এ চলচ্চিত্রটি প্রজন্মের কাছে যথাযথভাবে পৌঁছাতে পারে। আমাদের দেশের অন্যতম বৃহৎ এই চলচ্চিত্র উৎসবে ‘বিউটি সার্কাস’ দেখতে সকলকে আমন্ত্রণ জানাই।” ২০১৭ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি নওগাঁর সাপাহার, মানিকগঞ্জে সার্কাসের বিশাল যজ্ঞে দুইশ জনের নির্মাণসঙ্গী নিয়ে প্রায় দুই হাজার গ্রামবাসীর অংশগ্রহণে সিনেমাটির চিত্রধারণের কাজ করেন মাহমুদ দিদার। এজন্য সার্কাস প্যান্ডেল নির্মাণ ও গ্রাম্যমেলার আয়োজন করতে হয়েছিল। ২০১৭ সালে নির্মাণকাজ শুরু হলেও সিনেমাটির ব্যাপ্তি ও নির্মাণের বৃহৎ আয়োজন সম্পন্ন করতে প্রায় পাঁচ বছর সময় লেগে যায়। করোনার কারণেও পিছিয়েছে বহুল প্রতীক্ষিত এই সিনেমার মুক্তি। সিনেমাটির তিনটি গান গেয়েছেন চিরকুট ব্যান্ডের ভোকাল শারমিন সুলতানা সুমী, অ্যাশেজ ব্যান্ডের ইভান ও টুনটুন বাউল।