December 4, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Monday, November 21st, 2022, 4:25 pm

আ. লীগ সরকারের আমলে বাংলাদেশের অনেক পরিবর্তন হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ছবি: পি আই ডি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন যে তার দল আওয়ামী লীগ টানা তিন মেয়াদে ক্ষমতায় থাকাটা, বাংলাদেশকে অনেক পরিবর্তন এবং সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে যেতে সাহায্য করেছে।

তিনি বলেন, ‘উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে আমাদের আরও এগিয়ে যেতে হবে এবং উন্নত দেশ হতে হবে। আমি সেই পরিকল্পনা প্রণয়ন করেছি। আমরা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য ভিশন ২০৪১ এবং ডেল্টা প্ল্যান ২১০০ প্রণয়ন করেছি।’

সোমবার প্রধানমন্ত্রী ঢাকা সেনানিবাসে এএফডি-২০২২ উপলক্ষে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর বীরত্ব পুরস্কার বিজয়ী মুক্তিযোদ্ধা এবং তাদের উত্তরাধিকারীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেয়ার সময় এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ একটি বিজয়ী জাতি হিসেবে বিশ্বে সমাদৃত। বাংলাদেশিরা এখন মাথা উঁচু করে সারা বিশ্বে ঘুরে বেড়ায়।

শেখ হাসিনা বরেন, ‘আমরা এটি অর্জন করেছি, তবে আমাদের আগামী দিনে আরও এগিয়ে যেতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার গৃহহীনদের জন্য ঘর নির্মাণ করছে এবং তাদের জীবন পরিবর্তনের সুযোগ দিচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘আমরা অক্লান্ত চেষ্টা করছি। এখন অন্তত আমরা বলতে পারি যে বিশ্বের মানুষ বাংলাদেশিদের অবহেলা করতে পারে না।’

শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ দল ও সরকার হিসেবে মুক্তিযোদ্ধাদের অবদান কখনোই ভুলবে না। আর সে কারণেই আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বাংলাদেশ গড়ার পরিকল্পনা নিয়েছি।

তিনি বলেন, দেশকে তার শক্ত ভিত্তি তৈরি করে আরও এগিয়ে যেতে হবে যাতে এটি উন্নয়নশীল দেশ থেকে একটি উন্নত দেশ হিসেবে উন্নীত হয়। ‘আমরা সেই লক্ষ্যে কাজ করছি।’

তিনি বলেন, কোভিড-১৯ মহামারি, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের নিষেধাজ্ঞা বাংলাদেশকে গভীর সংকটে ফেলেছে।

তিনি উল্লেখ করেন, বাংলাদেশকে বিদেশ থেকে ভোজ্যতেল, জ্বালানি তেল, গম, ভুট্টা ও মসুর ডালের মতো পণ্য কিনতে হয় বলে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বেড়েছে।

তিনি বলেন, ‘পরিবহন ব্যয়ও বেড়েছে। তাই আমরা সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছি। কিন্তু আমরা অলস বসে নেই। জনগণের দুর্ভোগ লাঘব করতে এবং অর্থনৈতিক মন্দা এড়াতে আমি ইতোমধ্যে সবাইকে চাষাবাদের সঙ্গে এক ইঞ্চি জমি ছেড়ে না দেয়ার আহ্বান জানিয়েছি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সারা বিশ্বে যে যুদ্ধজনিত সমস্যা হয়েছে তা থেকে উত্তরণের জন্য সরকার যথাযথ পদক্ষেপ নিচ্ছে।

মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের জন্য গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা সংক্ষেপে বর্ণনা করে তিনি বলেন, তাদের প্রতি কেউ কখনো অবজ্ঞা ও অবহেলার চোখে দেখবে না।

তিনি বলেন যে সরকার অবহেলার শিকার এফএফদের খুঁজে বের করেছে এবং এখন তারা যাতে এই ধরনের এফএফ ভাতা পায় তা নিশ্চিত করার জন্য সর্বাত্মক ব্যবস্থা গ্রহণ করছে।

তিনি আরও বলেন, তার সরকার এফএফ-এর জন্য ভাতা বৃদ্ধি করেছে এবং এটি প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে অব্যাহত থাকবে।

তিনি আরও বলেন, আমার পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেশ স্বাধীন করার আহ্বানে সাড়া দিয়ে যারা অস্ত্র তুলেছিলেন তাদের জন্য কাজ করা আমাদের কর্তব্য।

তিনি উল্লেখ করেছিলেন যে এফএফগুলির মধ্যে বিভিন্ন মতাদর্শ থাকতে পারে, তবে আওয়ামী সরকার তাদের অবদানকে খাটো করেনি।

তিনি বলেন, আমরা মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি রক্ষায় কাজ করছি।

তিনি বলেন, তরুণ প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিসৌধের মাধ্যমে বিজয়ের ইতিহাস জানতে পারলে জাতির জন্য আরও কঠোর পরিশ্রম করতে অনুপ্রাণিত হবে।

তিনি বলেন, এ লক্ষ্যে সরকার প্রতিটি উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স প্রতিষ্ঠা করছে এবং ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যান যেখানে বঙ্গবন্ধু তার ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ দিয়েছিলেন, স্বাধীনতা ও পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী আত্মসমর্পণের পর দেশ পরিচালনার নির্দেশনা দিয়েছিলেন তা সংরক্ষণের ব্যবস্থাও নিয়েছে।

—-ইউএনবি