June 19, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Thursday, March 21st, 2024, 8:51 pm

এনবিআরকে আইএমএফের সুপারিশ : রেমিটেন্সের উপর কর সুবিধা প্রত্যাহারের বিরুদ্ধে বিশেষজ্ঞরা

ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক:

রেমিট্যান্সের উপর ট্যাক্স সুবিধা বাদ দেওয়ার জন্য আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) প্রস্তাব বিশেষজ্ঞরা অসম্মতি জানাচ্ছেন। বর্তমানে অর্জিত রেমিট্যান্সের ওপর ১৫ শতাংশ ট্যাক্স ডিডাক্টেড অ্যাট সোর্স (টিডিএস) কাটা হয়। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের কাঙ্খিত বৃদ্ধি এখনও বাস্তবায়িত হয়নি, সীমিত ডলার সরবরাহের কারণে আমদানি বাণিজ্য অব্যাহত রয়েছে। এই পটভূমিতে, রেমিটেন্সের উপর ট্যাক্স সুবিধা প্রত্যাহারের পরামর্শ প্রশ্নবিদ্ধ বলে মনে হচ্ছে, যা মুদ্রা বাজারে সম্ভাব্য ঝুঁকি বাড়াবে এবং আর্থিক খাতকে আরও জটিল করে তুলবে, তারা মনে করেন। আইএমএফ সম্প্রতি জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সাথে এক বৈঠকে রেমিট্যান্সের উপর ট্যাক্স সুবিধা প্রত্যাহার এবং স্টক মার্কেট লেনদেনের উপর বিধিনিষেধ কঠোর করা সহ একাধিক কর সংস্কারের পরামর্শ দিয়েছে।

আইএমএফের প্রস্তাবে ট্যাক্স ব্যয় যৌক্তিক করার জন্য ব্যক্তিগত আয়কর স্ল্যাব পুনর্গঠন, মূলধন লাভের উপর ট্যাক্স সুবিধা বাতিল, শূন্য-কুপন বন্ড এবং বন্ডগুলিতে বিনিয়োগের ছাড় অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। উপরন্তু, করমুক্ত আয়ের সীমা ৩.৫ লাখ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫ লাখ টাকা করার সুপারিশ করেছে। বিশ্লেষকরা সতর্ক করেছেন যে অর্থনৈতিক চাপের মধ্যে এই ধরনের সংস্কার বাস্তবায়ন গুরুত্বপূর্ণ চ্যালেঞ্জ হতে পারে। তারা উল্লেখ করেছেন যে রেমিট্যান্স আয় প্রায়শই অনানুষ্ঠানিক চ্যানেলের মাধ্যমে পরিচালিত হয় এবং বিধিনিষেধ আরোপ এই প্রবণতাকে আরও বাড়িয়ে তুলতে পারে। তদুপরি, বেসরকারি খাতে করদাতাদের জন্য কর ছাড় এবং সরকারি কর্মচারীদের জন্য বিভিন্ন ভাতা বাতিল করার জন্য আইএমএফ-এর সুপারিশ প্রস্তাবিত সংস্কারে জটিলতা বাড়াবে।

বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিসের সাবেক প্রধান অর্থনীতিবিদ ডক্টর জাহিদ হোসেন বলেন, “আইএমএফের শর্তগুলো ধাপে ধাপে পূরণ করতে হবে। রেমিটেন্সের ওপর কর আরোপ বা কর সুবিধা তুলে নেওয়ার সম্ভাবনার কথা জানিয়েছে সংস্থাটি। যদিও আইএমএফের পরামর্শ নীতিগত দিক থেকে সঠিক হতে পারে, তবে আসন্ন বাজেটে রেমিট্যান্সকে করের আওতায় আনা সম্ভব হবে না। বাস্তবতা উপেক্ষা করে এটা করা যাবে না। তবে, কর আরোপের আগে, সরকার আসন্ন বাজেটে রেমিটেন্সের উপর ২.৫% ভর্তুকি মওকুফ করার কথা বিবেচনা করতে পারে, যদিও ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিটেন্স বাড়ানোর জন্য এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল, এটি কার্যকর হয়নি। তিনি বলেন, প্রবাসীরা ব্যাংকের চেয়ে অনানুষ্ঠানিক মাধ্যমে বেশি রেমিট্যান্স পাঠাচ্ছেন।

রেমিটেন্সের ওপর কর আরোপ করা হলে অনানুষ্ঠানিক খাতের মাধ্যমে রেমিটেন্স পাঠানোর প্রবণতা আরও বাড়বে। এই কারণগুলি বিবেচনা করা প্রয়োজন। এদিকে ব্যাংকগুলোতে রেমিটেন্সের জন্য ডলারের হার উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। এই পরিপ্রেক্ষিতে, এই ভর্তুকি ধরে রাখার প্রয়োজন হতে পারে না। তবে দীর্ঘ মেয়াদে কর নীতি প্রণয়ন করতে হবে বলেও জানান তিনি। রেমিট্যান্স কমবে কি না জানতে চাইলে ডক্টর জাহিদ হোসেন তিনি বলেন, “তা কমবে না। কারণ ভর্তুকি দিয়েও কাঙ্খিত রেমিট্যান্স ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে আসেনি।

ব্যাংক ও খোলা বাজারের ডলারের ব্যবধান কমাতে হবে। তাহলে আনুষ্ঠানিক মাধ্যমে রেমিটেন্স বাড়বে। তিনি আরও বলেন, “সব আয়কে করের আওতায় আনার নীতি সঠিক। যাদের আয় কম তারা কম কর দেবে, আর যাদের আয় বেশি তারা বেশি কর দেবে। এটি একটি প্রগতিশীল কর ব্যবস্থার নীতি। অতএব, সরকারি চাকরি, রেমিট্যান্স এবং শেয়ার বাজার থেকে আয় সবই করের আওতার মধ্যে পড়বে। মোট আয়ের উপর ট্যাক্সের ধরন নির্ভর করবে। আসন্ন বাজেটে কর সংস্কারের সুপারিশ করেছে আইএমএফ। করমুক্ত আয় ৫ লাখ টাকা করা যৌক্তিক কারণ মূল্যস্ফীতি এখনও বাড়ছে, তিনি উপসংহারে বলেছিলেন। সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) বিশিষ্ট ফেলো ডক্টর মুস্তাফিজুর রহমান বলেন, এই মুহূর্তে আমাদের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বিবেচনা করে রেমিটেন্সের ওপর ট্যাক্স সুবিধা তুলে নেওয়া ঠিক হবে না। রেমিটেন্স আরও স্থিতিশীল হলে এই সংস্কার শুরু করা যেতে পারে।

এখন রিজার্ভ বাড়ানো এবং আর্থিক ও বিনিময় হারের স্থিতিশীলতার ওপর জোর দেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। আইএমএফ দীর্ঘদিন ধরে অন্যান্য সংস্কার নিয়ে আলোচনা করছে এবং সেগুলি এখনও মুলতুবি রয়েছে। আমরা বারবার কর সংস্কারের কথা বলেছি। মুদ্রাস্ফীতি এবং জনগণের পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে করমুক্ত আয় বাড়ানো যেতে পারে। ইকোয়িং রহমান, পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের গবেষণা পরিচালক ডক্টর মোহাম্মদ আবদুর রাজ্জাক বলেন, রেমিট্যান্সের ওপর কর আরোপ করা হলে রিজার্ভের ওপর চাপ পড়বে। কর আদায়ের অনেক ক্ষেত্র রয়েছে। অনেক করযোগ্য লোকের কাছে টিআইএন সার্টিফিকেট আছে কিন্তু ট্যাক্স দেন না। দেশের ৬৪টি জেলায় প্রবৃদ্ধি কেন্দ্রের মাধ্যমে কর আদায় সহজতর করা যেতে পারে। তিনি উত্তরাধিকার কর আরোপ করার পরামর্শ দিয়েছেন। বর্তমানে, উত্তরাধিকারের মাধ্যমে প্রাপ্ত সম্পত্তির উপর কোন কর আরোপ করা হয় না। তিনি মনে করেন করমুক্ত আয় বাড়াতে হবে।

গত বছরের শুরুতে, আইএমএফ বাংলাদেশের জন্য ৪.৭ বিলিয়ন ডলার ঋণ অনুমোদন করে, যা ব্যয়ের যৌক্তিকতা এবং রাজস্ব শৃঙ্খলা বাড়ানো সহ প্রায় ৩০টি শর্ত পূরণ সাপেক্ষে। এ লক্ষ্যে এনবিআর কর ব্যয় কমানোর উদ্যোগ নিয়েছে, যার অংশ হিসেবে গত বছর কিছু ভ্যাট ও কর সুবিধা কমানো হয়েছে। তবে সরকার দীর্ঘদিন ধরে রেমিটেন্সের ওপর কর আরোপ থেকে বিরত রয়েছে। বাংলাদেশ ২০২২ সালের জুলাই মাসে আইএমএফের কাছে ঋণ চেয়েছিল। ছয় মাস ধরে পরিস্থিতি মূল্যায়ন করার পরে, সংস্থাটি ৪.৭ বিলিয়ন ডলার ঋণ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ২০২৬ সাল পর্যন্ত সাড়ে সাত বছরে সাতটি কিস্তিতে এই অর্থ ছাড়া হবে। বাংলাদেশ ২০২৩ সালের ২ ফেব্রুয়ারি ঋণের প্রথম কিস্তি হিসাবে ৪৭৬.৩ মিলিয়ন পেয়েছিল। গত বছর ১৩ ডিসেম্বর, ৬৮১ মিলিয়নের দ্বিতীয় কিস্তি পেয়েছিল।