December 3, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Thursday, October 20th, 2022, 8:30 pm

কারাবন্দিদের কাজের সুযোগ দিল মালয়েশিয়া

অনলাইন ডেস্ক :

মালয়েশিয়ায় বিভিন্ন অপরাধে আটক বিদেশি কারাবন্দিদের কাজের সুযোগ সৃষ্টি করতে ‘থ্রিপি’ নামে একটি প্রোগ্রামের ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সরকার। যোগ্য বিদেশি কারাবন্দিদের কাজের জন্য পিআরপি অর্থাৎ রেসিডেন্ট রিইন্টিগ্রেশন সেন্টার স্থাপন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে কারাগার এবং ইমিগ্রেশন ডিটেনশন ডিপোগুলোতে অতিরিক্ত ভিড় কমানোর পাশাপাশি বিদেশি বন্দিদের তাদের মূল দেশে প্রত্যাবাসনের প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত হবে। স্থানীয় সময় গত বুধবার নেগারি সেম্বিলান রাজ্যের সেরেম্বান জেলার নিলাইয়ের মানতিনে বিদেশি বন্দিদের প্লেসমেন্ট, এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড ইনকাম (থিপি) প্রোগ্রামের ওপর একটি কর্মশালার উদ্বোধনী ভাষণে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সেক্রেটারি জেনারেল দাতুক সেরি ওয়ান আহমাদ দাহলান আবদুল আজিজ এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, দেশটির কারাগারে প্রায় ১২ হাজার বিদেশি বন্দি রয়েছে। আমরা বিভিন্ন কারাগার পরিদর্শন করার পর কারাবান্দিদের ইমিগ্রেশন ডিটেনশন ডিপোগুলোতে অতিরিক্ত ভিড় কমানোর জন্য এ উদ্যোগটি নিয়েছি। এরইমধ্যে কারাবন্দিদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে৷ আমরা চাই, এখান থেকে কারাবন্দিরা যখন ছাড়া পাবেন, তারা যেন স্বাভাবিক জীবনে তাদের দেশে ফিরে যেতে পারেন এবং নিজেদের আয়ের একটা অংশ সঙ্গে করে দেশে নিয়ে যেতে পারেন। এ ছাড়া এই আয়ের মাধ্যমে ইমিগ্রেশন ডিটেনশন ডিপোতে প্লেসমেন্ট প্রোগ্রামে না গিয়ে তারা তাদের উপার্জিত আয়ের অর্থ দিয়ে দ্রুত তাদের নিজ দেশে ফিরে যেতে পারবে। যেসব কারাবন্দি তাদের সাজার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও অর্থের অভাবে দেশে যেতে পারছে না তাদের জন্য এটি অনেক সহায়ক হবে বলেও জানান তিনি। এসব বিদেশি কারাবন্দিদের উপার্জিত অর্থ ব্যবহারের মাধ্যমে স্ব-স্ব দূতাবাস তাদের নাগরিকদের দেশে ফেরত পাঠাতে কার্যকর ভূমিকা পালন করতে পারে। এদিকে বন্দি ও পিআরপি বাসিন্দাদের চাকরির সুযোগ করে দিয়ে বেসরকারি কোম্পানিগুলোর সম্পৃক্ততা দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নেও অবদান রাখতে পারে বলে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সেক্রেটারি উল্লেখ করেন। বন্দিদের প্লেসমেন্ট, এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড ইনকাম (থ্রিপি) প্রোগ্রামের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, কারা কমিশনার জেনারেল দাতুক নর্ডিন মোহাম্মদ এবং ইমিগ্রেশনের মহাপরিচালক দাতুক সেরি খায়রুল যাইমি দাউদসহ দেশটির বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।