June 24, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Friday, May 3rd, 2024, 7:28 pm

কার্যকরী-গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পে বাংলাদেশের সঙ্গে কাজে আগ্রহী এডিবি: ভাইস প্রেসিডেন্ট ভার্গব দাশগুপ্ত

জলবায়ু ইস্যুতে বাংলাদেশ ও অন্যান্য অংশীদারদের সঙ্গে একত্রে কাজ করতে এবং কার্যকরী ও গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পগুলোতে অর্থায়ন বাড়িয়ে দিতে আগ্রহী এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)।

শুক্রবার (৩ মে) ইউএনবির সঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলেন এডিবির ভাইস প্রেসিডেন্ট (মার্কেট সলিউশন) ভার্গব দাশগুপ্ত।

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা অন্যান্য বেসরকারি খাতের বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে খুব প্রভাব বিস্তারকারী, খুব কার্যকরী এবং খুব গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পে অর্থায়ন করতে চাই।’

গত বছরের ৪ ডিসেম্বর দায়িত্ব নেওয়া দাশগুপ্ত বলেন, তাদের মতে জ্বালানির উৎসের বৈচিত্র্য আনতে বাংলাদেশের অনেক আগ্রহ রয়েছে।

তিনি বলেন, ‘কীভাবে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে অংশীদারিত্ব এবং একসঙ্গে কাজ করতে পারি তা নিয়ে আমরা কাজ করছি।’

এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে ব্যবসার ক্ষমতায়ন ও বিনিয়োগ উন্মুক্ত করা যায় এবং উন্নয়ন অগ্রাধিকারের অগ্রগতিতে সহায়তা করা যায় এমনভাবেই এডিবির বেসরকারি খাতের কার্যক্রমগুলো সাজানো হয়েছে।

গ্রাহকদের উদ্ভাবনমূলক সমাধান দেওয়ার মাধ্যমে জলবায়ু পরিবর্তন, খাদ্য নিরাপত্তা এবং লিঙ্গ সমতার মতো জটিল উন্নয়ন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে সহযোগিতা করছে এডিবি।

দাশগুপ্ত এডিবির প্রাইভেট সেক্টর অপারেশনস ডিপার্টমেন্ট ও অফিস অব মার্কেটস ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপের কার্যক্রম পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছেন। এডিবি এশিয়ার উন্নয়নশীল দেশগুলোর সরকারগুলোর জন্য অন্যতম ‘সম্মানিত ও বিশ্বস্ত’ অংশীদার।

তিনি বলেন, ‘আমরা সব সময়ের মতো ভালো কাজগুলো অব্যাহত রাখার চেষ্টা করছি।’

এডিবি ভাইস প্রেসিডেন্ট বলেন, তারা বেসরকারি খাতে নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করছেন, তবে তাদের এই ভূমিকা আনুপাতিক হারে বাড়াতে হবে বলে।

এডিবি ২০২১ সালে তাদের জলবায়ু অর্থায়ন প্রকল্পে বিনিয়োগ ২০১৯ থেকে ২০৩০ সালের মধ্যে ১০০ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করার ঘোষণা দিয়েছিল। যার মধ্যে ক্রমবর্ধমান অভিযোজন ও স্থিতিস্থাপকতার জন্য ৩৪ বিলিয়ন ডলার এবং ক্রমবর্ধমান প্রশমনে ৬৬ বিলিয়ন ডলার বরাদ্দ দিয়েছিল।

এডিবি ২০৩০ সালের মধ্যে বেসরকারি খাতে জলবায়ু অর্থায়নে ১২ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করতে চায়। পাশাপাশি বাণিজ্যিকভাবে টেকসই ও জলবায়ুবান্ধব ব্যবসা বিকাশে সহায়তা করতে অতিরিক্ত ১৮ থেকে ৩০ বিলিয়ন ডলার জমা করতে চায়।

২০২২ সালে এডিবি নিজস্ব সম্পদ থেকে ৬ দশমিক ৭ বিলিয়ন ডলার জলবায়ু অর্থায়নে দিয়েছে, যার মধ্যে ২ দশমিক ৭ বিলিয়ন ডলার অভিযোজন ও স্থিতিস্থাপকতা এবং ৪ বিলিয়ন ডলার প্রশমন বিষয়ে।

এডিবির এই কর্মকর্তা বলেন, তাদের পরিসংখ্যানে দেখা গেছে নেট জিরো লক্ষ্য অর্জনে এশিয়ার ১ দশমিক ৭ ট্রিলিয়ন ডলার প্রয়োজন।

বেসরকারি খাতের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পৃক্ততার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাংলাদেশের পাবনায় ১০০ মেগাওয়াট গ্রিড-সংযুক্ত সোলার ফটোভোলটাইক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ ও পরিচালনার জন্য এডিবি গত মাসে ডায়নামিক সান এনার্জি প্রাইভেট লিমিটেডের সঙ্গে ১২ কোটি ১৫ লাখ ৫০ হাজার ডলারের একটি অর্থায়ন প্রকল্প সই করেছে।

বৈশ্বিক অর্থায়নকারীদের সহায়তায় এটি দেশের প্রথম বেসরকারি খাতের ইউটিলিটি-স্কেল সোলার ফ্যাসিলিটি।

এডিবি একমাত্র সমন্বয়কারী ও ব্যবস্থাপক হিসেবে এই ঋণ প্রকল্প সাজানো, কাঠামো তৈরি ও নিয়ন্ত্রণ করছে।

এই অর্থায়ন প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে- এডিবি থেকে ৪ কোটি ৬৭ লাখ ৫০ হাজার ডলার ঋণ, এডিবির রেকর্ড ঋণদাতা হিসেবে এডিবির সঙ্গে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সহায়তাকারী আমস্টারডামভিত্তিক ইমার্জিং মার্কেট প্রাইভেট ক্রেডিট ফান্ড আইএলএক্স ফান্ড আই থেকে ২ কোটি ৮০ লাখ ৫০ হাজার ডলারের একটি সিন্ডিকেটেড বি-ঋণ এবং জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সির (জাইকা) ৪ কোটি ৬৭ লাখ ৫০ হাজার ডলারের সিন্ডিকেটেড সমান্তরাল ঋণ।

এডিবির প্রাইভেট সেক্টর অপারেশনস ডিপার্টমেন্টের মহাপরিচালক সুজান গ্যাবৌরি বলেন, ‘এশিয়ার জলবায়ু ব্যাংক হিসেবে এডিবি বাংলাদেশে নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে সহায়তা করার সুযোগ সাদরে গ্রহণ করছে, যেখানে এ ধরনের প্রকল্পের জন্য দীর্ঘমেয়াদি অর্থায়ন পাওয়া একটি চ্যালেঞ্জ।’

তিনি আরও বলেন, ‘ক্লিন এনার্জি সুবিধাগুলোর জন্য অর্থায়ন জোগাড় করতে এবং যেখানে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন সেখানে বিনিয়োগ বাড়াতে উৎসাহিত করতে এই অংশীদারিত্ব আমাদের ভূমিকাকে তুলে ধরবে।’

সৌর বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি বার্ষিক ঘণ্টায় ১৯৩.৫ গিগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করবে এবং বার্ষিক ৯৩ হাজার ৬৫৪ টন কার্বন ডাই অক্সাইড নির্গমন এড়াবে।

—-ইউএনবি