November 26, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Wednesday, November 9th, 2022, 8:16 pm

কাল সেমিফাইনালে মুখোমুখি হচ্ছে ভারত-ইংল্যান্ডের

অনলাইন ডেস্ক :অনলাইন ডেস্ক :

তৃতীয়বারের মত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলার লক্ষ্য নিয়ে আগামীকাল বৃহস্পতিবার এবারের আসরের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে মুখোমুখি হচ্ছে ভারত ও ইংল্যান্ড। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ইতিহাসে দু’বার করে ফাইনাল খেলার অভিজ্ঞতা আছে এই দু’দলেরই। অ্যাডিলেড ওভালে বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টায় শুরু হবে টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় সেমিফাইনালটি। দক্ষিণ আফ্রিকায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম আসরেই চিরপ্রতিন্দ্বন্দি পাকিস্তানকে হারিয়ে শিরোপা জিতেছিল টিম ইন্ডিয়া। ২০১৪ সালে বাংলাদেশের মাটিতে হওয়া বিশ্বকাপে দ্বিতীয়বারের মত ফাইনালে জায়গা করে নেয়া ভারত। মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে হওয়া ফাইনালে শ্রীলংকার কাছে হেরে যায় তারা। ভারতের মত দু’বার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলেছে ইংল্যান্ডও। ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে ২০১০ আসরের ফাইনালে উঠেছিলো ইংলিশরা। প্রথমবারের মত ফাইনালে উঠেই শিরোপা জিতে নেয় ইংল্যান্ড। ২০১৬ সালে ভারতের মাটিতে অনুষ্ঠিত আসরের ফাইনালে উঠলেও ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে হার মানতে হয় ইংল্যান্ডকে। তৃতীয়বারের মত ফাইনালে খেলার সুযোগ কাজে লাগাতে মরিয়া উভয় দলই। ভারতের অধিনায়ক রোহিত শর্মা বলেন, ‘গত দুই আসরের ফাইনালে খেলা হয়নি আমাদের। এবার এই সুযোগ হাতছাড়া করতে চাই না। ফাইনাল থেকে মাত্র একটি জয় দূরে আমরা। সেমিফাইনালে প্রতিপক্ষ হিসেবে ইংল্যান্ড অনেক শক্তিশালী দল। তারা খুবই ভালো ক্রিকেট খেলছে। সুপার টুয়েলভে বেশক’টি ম্যাচে ভালো খেলেই সেমিতে উঠেছে ইংল্যান্ড। জয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে হলে নিজেদের সেরা ক্রিকেটটাই খেলতে হবে আমাদের। দলের সবাই সেমিফাইনালের তাৎপর্য বুঝে। ফাইনালে খেলার জন্য সকলে নিজেদেরকে উজার করে দিতে চায়।’ অন্য দিকে এবার ফাইনালে উঠে গত আসরের দুঃখ ভুলতে চায় ইংল্যান্ড। গেল আসরে সেমিফাইনালে নিউজিল্যান্ডের কাছে হারতে হয়েছিলো ইংলিশদের। এবার সেমির বাঁধা টপকে ফাইনালে খেলতে মরিয়া ইংল্যান্ড। ইংল্যান্ডের অধিনায়ক জশ বাটলার বলেন, ‘গত আসরে আমরা দারুন ক্রিকেট খেলেছি। সেমিতে আমরাই ফেভারিট ছিলাম। নিউজিল্যান্ডের কাছে হেরে হতাশ হতে হয়েছিল। । এবারও ফাইনালে খেলার সুযোগ আমাদের সামনে। ভারতকে হারিয়ে ফাইনালের টিকিট পাওয়াটা কঠিনই হবে। তারপরও যেকোন চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত আমরা। আক্রমনাত্মক ক্রিকেট খেলে জয় নিয়েই মাঠ ছাড়তে চাই আমরা।’ তবে সেমিফাইনালের আগে ইনজুরি দুঃশ্চিন্তা ভারত ও ইংল্যান্ডের কপালে। ইনজুরিতে পড়েছেন ভারতের অধিনায়ক রোহিত। মঙ্গলবার থ্রো ডাউন অনুশীলনে পুল মারতে গিয়ে কব্জিতে আঘাত পান রোহিত। কব্জিতে বলের আঘাত পাবার পর অনুশীলন ছেড়ে বেরিয়ে যান রোহিত। ডান হাতে বরফ বেঁধে দেওয়া হয় রোহিতের। রোহিতের মত বুধবার অনুশীলনে ইনজুরিতে পড়েন কোহলি। নেটের অনুশীলনে হার্ষাল প্যাটেলের বলে আচমকা লাফিয়ে ওঠা এক ডেলিভারি কোহলির কুঁচকিতে এসে লাগে। সাথে-সাথেই মাঠ ছাড়েন তিনি। বেশ কিছুক্ষণ ড্র্রেসিং রুমে কাটানোর পর আবারও অনুশীলনে ফিরেন কোহলি। কোহলিকে নিয়ে চিন্তা কেটে গেলেও, রোহিতকে নিয়ে ভাবতে হচ্ছে ভারতকে। অন্য দিকে ডেলিড মালান ও মার্ক উডের ইনজুরি চিন্তায় রেখেছে ইংল্যান্ডকেও। ম্যাচে আগ পর্যন্ত মালান ও উডের খেলার ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্বান্ত নেবে ইংলিশরা। এ ব্যাপারে বাটলার বলেন, ‘আমরা দেখবো, তাদের অবস্থার কতটা উন্নতি হয়। আমরা তাদের সহায়তা করার চেষ্টা করবো ও সময় দিবো। মালান ও উডের ব্যাপারে শেষ পর্যন্ত অপেক্ষা করবো।’ ভারতের ব্যাটিং লাইন-আপের বড় শক্তি কোহলি ও সূর্যকুমার যাদব। ৫ ইনিংসে ৩টি হাফ-সেঞ্চুরিতে ২৪৬ রান নিয়ে এ পর্যন্ত এবারের বিশ^কাপে সর্বোচ্চ সংগ্রাহক কোহলি। ৫ ইনিংসে ২টি অর্ধশতকে ২২৫ রান নিয়ে তৃতীয় অবস্থানে আছেন সূর্য। ওপেনার হিসেবে টুর্নামেন্টে এখনও নিজেকে মেলে ধরতে পারেনি রোহিত। ১টি হাফ-সেঞ্চুরিতে ৫ ইনিংসে ৮৯ রান আছে তার। ওপেনিংএ রোহিতের সঙ্গী লোকেশ রাহুলের রান ৫ ইনিংসে ২টি হাফ-সেঞ্চিেুত ১২৩ রান। রাহুলের ব্যাটিং মন ভরাতে পারেনি ক্রিকেটপ্রেমিদের। মিডল-অর্ডারে হার্ডিক পান্ডিয়া ও উইকেটরক্ষক দিনেশ কার্তিকের জন্য চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে। গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে কার্তিককে বিশ্রাম দিয়ে পান্থকে প্রথমবারের মত একাদশে রেখেছিলো ভারত। ইংল্যান্ডের স্পিনারদের কথা মাথায় রেখে আজকের ম্যাচে পান্থকে খেলানোর পরিকল্পনা ভারতের। বোলিংয়ে পেস বিভাগে দারুন ছন্দে আছেন ভারতের পেসাররা। বাঁ-হাতি অর্শদ্বীপ এ পর্যন্ত ৫ ইনিংসে ১০টি উইকেট নিয়েছেন। পান্ডিয়ার ৮টি ও মোহাম্মদ সামির ৬টি উইকেট আছে। ৫ উইকেট নিলেও, প্রতিপক্ষকে চাপে রাখতে পারদর্শীতা দেখিয়েছেন আরেক পেসার ভুবেনশ^র কুমার। স্পিনকে রবীচন্দ্রন অশি^নের আছে ৬ উইকেট। ইংল্যান্ডের ব্যাটিং লাইন-আপে শুরুতেই ভরসা দিচ্ছেন দুই ওপেনার বাটলার ও অ্যালেক্স হেলস। ইংল্যান্ডের পক্ষে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ রানও তাদের। ৪ ইনিংসে ১টি হাফ-সেঞ্চুরিতে ১২৫ রান করেছেন হেলস। ১টি হাফ-সেঞ্চুরিতে ৪ ইনিংসে বাটলারের রান ১১৯। এ ছাড়া ইংল্যান্ডের আর কোন ব্যাটারের সবমিলিয়ে ৮০রানও নেই। সর্বশেষ ম্যাচে শ্রীলংকার বিপক্ষে জয়ে বড় অবদান রাখেন বেন স্টোকস। ৩৬ বলে অপরাজিত ৪২ রান করে সেমির টিকিট কাটেন স্টোকস। এছাড়া মিডল-অর্ডারে হ্যারি ব্রক-লিয়াম লিভিংস্টোন-মঈন আলি এখনও নিজেদের সেরাটা দিতে পারেননি। অষ্টম বিশ^কাপে এ পর্যন্ত বোলিংয়ে ইংল্যান্ডের পক্ষে সেরা পারফরমার স্যাম কারান। ৪ ইনিংসে ১০ উইকেট নিয়েছেন তিনি। পার্থে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ১০ রানে ৫ উইকেট নিয়েছিলেন কারান। বল হাতে ৫ উইকেট নিয়েছেন স্টোকসও। দলের জন্য এখনও অবদান রাখতে পারেননি দুই স্পিনার আদিল রশিদ ও মঈন। ৪ ইনিংসে রশিদ মাত্র ১টি ও মঈন এখনও উইকেটশূন্য। টি-টোয়েন্টিতে এখন পর্যন্ত ২২টি ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে ভারত ও ইংল্যান্ড। যার মধ্যে ভারত জিতেছে ১২টি, ইংল্যান্ড ১০টি। টি-টোয়েন্টি বিশ^কাপে ৩বারের দেখায় ২বার জিতেছে ভারত।
ভারত দল : রোহিত শর্মা (অধিনায়ক), লোকেশ রাহুল (সহ-অধিনায়ক), বিরাট কোহলি, সুর্যকুমার যাদব, দীপক হুদা, ঋশভ পান্থ (উইকেটরক্ষক), দিনেশ কার্তিক (উইকেটরক্ষক), হার্দিক পান্ডিয়া, রবিচন্দ্রন অশ্বিন, মোহাম্মদ সামি, যুজবেন্দ্রা চাহাল, অক্ষর প্যাটেল, ভুবেনশ্বর কুমার, হার্শাল প্যাটেল ও আর্শদিপ সিং। ইংল্যান্ড দল : জস বাটলার (অধিনায়ক), মঈন আলী, হ্যারি ব্রুক, স্যাম কারান, ক্রিস জর্ডান, লিয়াম লিভিংস্টোন, ডেভিড মালান, আদিল রশিদ, ফিল সল্ট, বেন স্টোকস, টাইমাল মিলস, ডেভিড উইলি, ক্রিস ওকস ও মার্ক উড।