January 23, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Tuesday, December 28th, 2021, 8:40 pm

কুমিল্লায় আ. লীগ নেতার ফোনালাপ ফাঁস, তোলপাড়

রোশন আলী মাস্টার

অনলাইন ডেস্ক :

কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রোশন আলী মাস্টার এবং বিএনপি দলীয় দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান রুহুল আমীনের এক মিনিট ৪০ সেকেন্ড কথোপকথনের একটি ফোনালাপ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। এতে বলতে শোনা যায় ‘যারা নৌকা করে সব রাজাকারের বাচ্চা। কী করবেন রাজনীতি করে। যে দেশে টাকা দিলে নমিনেশন পাওয়া যায়, যে দেশে টাকা দিলে মন্ত্রিত্ব পাওয়া যায়, যে দেশে টাকা দিলে সব আকাম চলে।’ এতে কুমিল্লা উত্তর জেলাসহ দেবিদ্বার উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। তাদের কথোপকথনে রোশন আলী মাস্টার বলেন, ‘যারা নৌকা করে সব রাজাকারের বাচ্চা। কী করবেন রাজনীতি করে। যে দেশে টাকা দিলে নমিনেশন পাওয়া যায়, যে দেশে টাকা দিলে মন্ত্রিত্ব পাওয়া যায়, যে দেশে টাকা দিলে সব আকাম চলে। আপনারা বিরোধী দল (বিএনপি) শক্ত না, মামলা-হামলার ভয়ে আপনারা মাঠে নামেন না, একচেটিয়া কি একটা দেশ চলে? বিরোধী দল সব সময় স্ট্রং থাকতে হয়, আপনারা (বিএনপি) যদি সুযোগ দেন তাহলে তো অপকর্ম হবেই, যা ইচ্ছে তা-ই হবে, দেশের এই অধঃপতনের জন্য দায়ী হলো আপনাদের বিরোধী দল।’ তিনি আরও বলেন, ‘আপনারা দেবিদ্বারে কই? কোনো বিএনপি নেতা মাঠে বের হতে পেরেছে? মাঠে নেমে মিছিল মিটিং করেন আমি আপনাদেরকে সুযোগ করে দেই অসুবিধা কি, আমি মঞ্জু ভাইকে (বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল আহসান মুন্সি) বলেছি দেশে যান আন্দোলন করেন তাহলে বুঝবো আপনারা রাজনীতি করেন। আপনারা তো সময় হলে একটু-ই করেন, এগুলো করলে হবে না, রাজনীতি করতে হলে নেতৃত্ব দিতে হবে, নেতৃত্ব দিতে হলে আন্দোলন সংগ্রাম করতে হবে।’ অডিও ফাঁসের বিষয়ে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রোশন আলী মাস্টার বলেন, সম্প্রতি আমার সঙ্গে দেবিদ্বারের সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা রুহুল আমিন সাহেবের ফোনালাপ হয়। ফোনে তিনি অভিযোগ করেন যে, তাদের আওয়ামী লীগ কোনো স্পেস দেয় না। আমি এর উত্তরে বলেছি, আপনারা আন্দোলন করেন না, এলাকায় না এসে শুধু অভিযোগ করেন। এটি শুধু আমার বক্তব্য না, আমার দলের জেনারেল সেক্রেটারি ওবায়দুল কাদের সাহেব ও অসংখ্যবার বিরোধী দলের এরূপ ভিত্তিহীন অভিযোগের জবাবে এ কথাই বলেছিলেন যা নির্ভেজাল সত্য। সুযোগ সন্ধানী কিছু লোক আওয়ামী লীগে যোগ দিয়ে বিভিন্ন ধরনের দুর্নীতি করে বেড়াচ্ছে, তাদের আমি রাজাকার বলেছি, এখনো বলবো। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলের মধ্যে ঢুকে পড়া এসব দুর্নীতিবাজদের ব্যাপারে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করছেন। আমরা ত্যাগী নেতাকর্মীদের নমিনেশন দিতে চাই এবং ঢুকে পড়া এসব দুর্নীতিবাজ ও রাজাকারদের দলের নাম ব্যবহার করে দুর্নীতি করার সুযোগ দিবো না। অথচ, একটি স্বার্থান্বেষী মহল আমার কথাকে খ-িত আকারে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়ে আমাকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করছেÑ যোগ করেন এ আওয়ামী লীগ নেতা। এ প্রসঙ্গে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রুহুল আমীন বলেন, রোশন আলী মাস্টারের ভাইরাল হওয়া অডিও শুনে আমি নিজেই হতবাক, ওনার মতো একজন দায়িত্বশীল নেতার মুখে এমন আপত্তিকর কথা শুনে আমি খুব কষ্ট পেয়েছি। এর চেয়ে আর বেশি কিছু মন্তব্য করতে চাই না।