June 13, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Tuesday, June 11th, 2024, 3:44 pm

কুলাউড়ায় সড়কে ঝুঁকিপূর্ণ গাছ, ঘটছে দুর্ঘটনা, প্রতিবাদে মানববন্ধন

জেলা প্রতিনিধি, মৌলভীবাজার:

কুলাউড়া উপজেলায় সড়ক ও জনপথ বিভাগের বিভিন্ন সড়কের দুই পাশে রয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির হাজার হাজার গাছ। আবার এই সড়কে গাছের পাশে রয়েছে ১১ কেভি বিদ্যুতের লাইন। তারমধ্যে অনেক গাছ পরিপক্ক ও গাছের ডালপালা শুকিয়ে গেছে। এ অবস্থায় ওই সড়কের ওপর গাছগুলো বিপদজনকভাবে ঝুঁকে রয়েছে। সম্প্রতি ঝড়ে গাছ ভেঙ্গে পরে আব্দুল মতিন নামের এক ব্যবসায়ীর মৃত্যুর ঘটনায় জনমনে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে।

১০ জুন সোমবার বিকেল পাঁচটায় ব্রাহ্মণবাজার পূবালী ব্যাংকের সামনে সচেতন নাগরিক সমাজের ব্যানারে কুলাউড়া-মৌলভীবাজার সড়ক ও ব্রাহ্মণবাজার-ভাটেরা সড়কের দুই পাশে মরা ও ঝুঁকিপূর্ণ গাছ অপসারণ ও ডালপালা ছাটাইয়ের দাবীতে বিশাল মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে ক্রীড়া সংগঠক মাসুদ হোসেনের সভাপতিত্বে ও মোজাম্মেল হক অপুর সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন নজরুল ইসলাম কদর, সাংবাদিক জসিম চৌধুরী, মোহাম্মদ জালাল উদ্দিন, নাহিদ হোসেন, ইন্দ্রজিৎ ভট্টাচার্য, ইশতিয়াক হোসেন তানভীর, মিজাজুর রহমান পারভেজ, ফয়জুল ইসলাম ছোটই, আব্দুল মুক্তাদির মনা, আবুল কাশেম উসমানী, রাসেল আহমদ, মাসুদ হোসেন প্রমুখ। মানববন্ধনে ইউনিয়নের বিভিন্ন শ্রেণীপেশার প্রায় দুই শতাধিক লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, গত ২ জুন সন্ধ্যায় উপজেলার ব্রাহ্মণবাজার ইউনিয়নের মিশন নামক এলাকায় ঝড়ে গাছ চাপা পড়ে আব্দুল মতিন (৩২) নামে এক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। নিহত মতিন ওই ইউনিয়নের মির্জাপুর গ্রামের বাসিন্দা এবং ওই বাজারের ব্যবসায়ী ছিলেন। রোববার সন্ধ্যার দিকে বাড়ি থেকে মোটরসাইকেল যোগে নিজের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে যাওয়ার সময় আকস্মিকভাবে ঝড় তুফান শুরু হলে মিশন এলাকায় তিনি পৌঁছামাত্র একটি গাছ তার মাথার উপর ভেঙে পড়ে। পরে দ্রুত স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে মুসলিম এইড হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মতিনকে মৃত ঘোষণা করেন। এই মৃত্যুর ঘটনার পর ব্রাহ্মণবাজার ইউপিসহ উপজেলার সর্বস্তরের জনগণের মধ্যে মৃত্যু আতঙ্ক ছড়িয়ে পরে। ভবিষ্যতে গাছ ভেঙে যেকোনো সময় আরো বড় ধরনের দূর্ঘটনার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। ঝড়-তুফান এমনকি হালকা বাতাসে অনেক ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে যানবাহনসহ সাধারণ মানুষদের। ঝড়-তুফানের কারণে সড়কগুলো দিন দিন ‘মহাবিপজ্জনক’ হয়ে উঠে যাত্রীদের কাছে রূপ নিচ্ছে চরম আতঙ্কে।

গত কয়েকদিনের ঝড়-তুফানে কুলাউড়া-মৌলভীবাজার, ব্রাহ্মণবাজার-ভাটেরা-ফেঞ্চুগঞ্জ সড়কসহ বিভিন্ন সড়কে প্রায় অর্ধ শতাধিক শতাধিক গাছ ভেঙ্গে পড়েছে। এতে দীর্ঘসময় যান চলাচল বন্ধ থাকে। এসময় অনেক গাছ বিদ্যুৎ লাইনের উপর ভেঙ্গে পড়লে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকে। পরে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন গিয়ে গাছগুলো সড়ক থেকে অপসারণ করলে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। অনাকাঙ্খিত দুর্ঘটনার কবল থেকে রক্ষার্থে সড়কটিকে নিরাপদ করে তোলার জন্য সড়ক ও জনপথ বিভাগ, উপজেলা প্রশাসন ও বনবিভাগের কাছে জোর দাবি জানিয়েছেন যাত্রী সাধারণ।

সরেজমিনে দেখা গেছে, মৌলভীবাজার-কুলাউড়া সড়কসহ বিভিন্ন সড়কে বনবিভাগের বাস্তবায়নাধীন হাজার হাজার বনায়নের গাছ রয়েছে। আর এই সড়কে গাছের পাশে রয়েছে পিডিবির ১১ কেভি বিদ্যুতের লাইন। সড়কে শত শত গাছ ও ডালপালা প্রায় দুই বছরের বেশি সময় ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। কুলাউড়া-মৌলভীবাজার সড়ক দিয়ে প্রতিদিন ছোট-বড় কয়েক হাজার যানবাহন চলাচল করে। উপজেলা, জেলা ও বিভাগীয় শহরের অফিস-আদালত, ব্যবসা-বাণিজ্য, শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান, হাসপাতালে যাতায়াত করে থাকেন। এছাড়া ঢাকা থেকে দূরপাল্লার বাস কুলাউড়া, জুড়ী, বড়লেখা, বিয়ানীবাজারে প্রতিনিয়ত চলাচল করে। অন্যদিকে এসকল উপজেলা থেকে মৌলভীবাজার ও সিলেটে প্রতিদিন বাস, মিনিবাসসহ অন্যান্য গাড়ি চলাচল করে। শুকিয়ে যাওয়া গাছ এবং পরিপক্ক ঝুঁকিপূর্ণ গাছ অপসারণ না করায় মানুষ আতঙ্কের মধ্যে দিন দিন আতঙ্ক বাড়ছেই। সর্বশেষ গত ২ জুন ঝুঁকিপূর্ণ গাছ ভেঙ্গে পরে আব্দুল মতিনের মৃত্যু হয়। ফলে দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে ভবিষ্যতে আরো বড় ধরণের দুর্ঘটনার আশংকা করছেন পরিবহন চালক ও স্থানীয় বাসিন্দারা।

ব্রাহ্মণবাজার ইউনিয়নের বাসিন্দা জসিম চৌধুরী ও আবুল কাশেম উসমানী বলেন, কুলাউড়া-মৌলভীবাজার ও ব্রাহ্মণবাজার-ভাটেরা সড়ক দিয়ে চলাচল করতে এখন অনেক ভয় লাগে। রাস্তার পাশে থাক ঝুঁকিপূর্ণ গাছ আমাদের জন্য আতঙ্কের। গাছ ও ডালপালার কারণে কখন যে নতুন করে দুর্ঘটনা ঘটে বলা যায় না। এই ঝুঁকিপূর্ণ গাছের কারণে আমাদের বাজারে তরুণ ব্যবসায়ী মতিনকে হারিয়েছি। আর যাতে কোন মৃত্যুর ঘটনা না ঘটে সেজন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ করছি যাতে খুব অচিরেই ঝুঁকিপূর্ণ গাছ যেন কাটা হয়।