June 27, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Thursday, June 16th, 2022, 9:35 pm

কৃষিপণ্য রপ্তানিতে মাইলফলক ছাড়িয়েছে

ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক:

দেশে কৃষিপণ্য রপ্তানি প্রত্যাশাকেও ছাড়িয়ে গেছে। গত ১০ মাসে এই খাত থেকে আয় হয়েছে ৯ হাজার কোটি টাকা। এর আগে ২০২০-২১ এক বিলিয়ন বা ১০০ কোটি ডলার রপ্তানি আয়ের মাইলফলক ছুঁয়েছিল কৃষিপণ্য। সে সময় বাংলাদেশ থেকে ১০২ কোটি ৮১ লাখ ডলারের কৃষিপণ্য রপ্তানি হয়। এবার দশ মাসেই সেই মাইলফলক ছাড়িয়ে গেছে। অর্থবছরের প্রথম দশ মাসে (জুলাই ২০২১ থেকে এপ্রিল ২০২২) কৃষিপণ্য রপ্তানি থেকে আয় হয়েছে ১০৪ কোটি ১৪ লাখ ডলার। টাকার হিসাবে যা দাঁড়ায় ৯ হাজার কোটির বেশি। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্য বলছে, এ রপ্তানি আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে ২৬ দশমিক ২৯ শতাংশ বেশি। গত অর্থবছরের একই সময়ে এসব পণ্য রপ্তানি থেকে আয় হয়েছিল ৮২ কোটি ৪৫ লাখ ডলার। আর এ দশ মাসের রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৯১ কোটি ৭০ লাখ ডলার। ইপিবি বলছে, চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে কৃষিপণ্য থেকে রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে ১১০ কোটি ৯২ লাখ ডলার। এ ধারা অব্যাহত থাকলে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে আবারো নতুন রেকর্ড গড়বে কৃষিপণ্য রপ্তানি। ইপিবির তথ্য বলছে, প্রতি বছরের মতো এবারও কৃষিপণ্যের মধ্যে প্রক্রিয়াজাত খাদ্যপণ্যের রপ্তানি আয়ের হিস্যাই বেশি। এ বছর দশ মাসে ২১ কোটি ৫৯ লাখ ডলারের খাবার গেছে বিদেশে। যদিও গত বছর একই সময়ে এসব পণ্যে রপ্তানি ছিল ২৪ কোটি ৪৩ লাখ ডলারের। তবে চলতি বছরের রপ্তানি গত বছরের থেকে কম হলেও অন্যান্য বছরের তুলনায় বেশি। গত বছর করোনার কারণে শুকনা খাবারের চাহিদা তুঙ্গে ছিল। একই সময়ে রপ্তানি বেড়েছে সবজি, তামাক, ফুল, ফলসহ অন্যান্য পণ্যের। দশ মাসে সবজি রপ্তানি হয়েছে ৮ কোটি ৮২ লাখ ডলারের। এ ছাড়া ৯ কোটি ৩৭ লাখ ডলারের তামাক, ৩ কোটি ২৭ লাখ ডলারের মসলা রপ্তানি হয়েছে। ইপিবির তথ্য অনুযায়ী, ১০ বছর আগেও কৃষিপণ্যের রপ্তানি আয় ছিল মাত্র ৪০ কোটি ডলার। পাঁচ বছর ধরে খাতটির রপ্তানি আয় দ্রুত বাড়ছে। অবশ্য করোনার কারণে ২০১৯-২০ অর্থবছরে এ খাতের রপ্তানি ৫ শতাংশ কমেছিল। ২০২০-২১ অর্থবছরে খাতটি ঘুরে দাঁড়ায়, রপ্তানি আয় ১৯ শতাংশ বাড়ে। যদিও পুরো বছরটিই করোনা মহামারির মধ্যেই কেটেছে। এ বছর প্রকোপ কমায় সেটা আরও গতি পেয়েছে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। রপ্তানিকারকরা বলছেন, কৃষি প্রক্রিয়াজাত খাদ্যের মধ্যে বেশি রপ্তানি হয় রুটি, বিস্কুট ও চানাচুর জাতীয় শুকনা খাবার, ভোজ্যতেল ও সমজাতীয় পণ্য, ফলের রস, বিভিন্ন ধরনের মসলা, পানীয় এবং জ্যাম-জেলির মতো বিভিন্ন সুগার কনফেকশনারি। এর বাইরে চা, শাকসবজি এবং ফলমূলও রপ্তানি হচ্ছে। অপ্রচলিত পণ্য হিসেবে পান-শুপারিসহ অন্যান্য পণ্যও যাচ্ছে। প্রক্রিয়াজাত কৃষিপণ্য রপ্তানিকারকদের সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাগ্রো প্রসেসরস অ্যাসোসিয়েশন (বাপা) জানায়, কৃষি ও প্রক্রিয়াজাত খাদ্যপণ্য উৎপাদনের সঙ্গে যুক্ত রয়েছে পাঁচ শতাধিক প্রতিষ্ঠান। তার মধ্যে বড় ও মাঝারি প্রতিষ্ঠান আছে ২০টি। আর রপ্তানি করছে ১০০টির বেশি প্রতিষ্ঠান। এদিকে কৃষি ও প্রক্রিয়াজাত খাদ্যপণ্য রপ্তানিতে বর্তমানে ২০ শতাংশ নগদ সহায়তা দিচ্ছে সরকার। প্রক্রিয়াজাত খাদ্যের পাশাপাশি দেশ থেকে শাকসবজি, আলু ও ফলমূল রপ্তানির সম্ভাবনাও অনেক। রপ্তানির বাধাগুলো দূর করতে গত বছর সরকার নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। শাকসবজি, আলু, ফলমূল ও প্রক্রিয়াজাত কৃষিপণ্য রপ্তানি বৃদ্ধির লক্ষ্যে রোডম্যাপ প্রস্তুত করা হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের গঠিত কমিটি শাকসবজি, ফলমূল রপ্তানির জন্য একটি ও আলু রপ্তানির জন্য একটিসহ মোট দুটি রোডম্যাপ প্রণয়ন করেছে। যা বাস্তবায়ন করে সরকার ২০২২-২৩ অর্থবছরে কৃষিপণ্য রপ্তানি আয় দুই বিলিয়ন ডলারে নিতে চায়। এদিকে কৃষি পণ্যের পাশাপাশি সামগ্রিক রপ্তানি খাতেও ভালো অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের দুই মাস বাকি থাকতেই পণ্য রপ্তানি আয় লক্ষ্যমাত্রার কাছাকাছি পৌঁছে গেছে। জুলাই-এপ্রিলÑএই ১০ মাসে রপ্তানি হয়েছে ৪ হাজার ৩৩৪ কোটি মার্কিন ডলারের পণ্য। দেশীয় মুদ্রায় যা পৌনে ৪ লাখ কোটি টাকার সমান। দেশের ইতিহাসে এই পরিমাণ পণ্য রপ্তানি আগে কখনো হয়নি। সেই হিসাবে এখন পর্যন্ত এটিই সর্বোচ্চ। এখনো চলতি অর্থবছরের দুই মাস বাকি। ফলে চলতি অর্থবছর শেষে দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ পণ্য রপ্তানি হবে। শেষ পর্যন্ত কত হয়, সেটি এখন দেখার বিষয়। রপ্তানিকারকেরা আশা করছেন, সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে পণ্য রপ্তানি পাঁচ হাজার কোটি ডলারের মাইলফলকে পৌঁছে যাবে বছর শেষে। এর আগে এক বছরে সর্বোচ্চ রপ্তানি হয়েছিল ২০১৮-১৯ অর্থবছরে, ৪ হাজার ৫৩ কোটি ডলার। করোনার কারণে পরের দুই বছরে রপ্তানি কমে যায়। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) প্রকাশিত পণ্য রপ্তানি আয়ের সর্বশেষ হালনাগাদ পরিসংখ্যান থেকে জানা যায়, গত এপ্রিলে ৪৭৪ কোটি ডলারের পণ্য রপ্তানি হয়েছে। দেশীয় মুদ্রায় যা ৪০ হাজার ৯৭৭ কোটি টাকার সমান। এপ্রিলে ৩৩৭ কোটি ডলারের রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা ছিল। তার বিপরীতে রপ্তানি হয়েছে ৪৭৪ কোটি ডলারের পণ্য। তার মানে, লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে রপ্তানি আয় ৪০ দশমিক ৬৬ শতাংশ বেশি। আবার গত এপ্রিলে যে পরিমাণ রপ্তানি হয়েছে, তা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৫১ শতাংশ বেশি। তবে সার্বিকভাবে গত ১০ মাসে পণ্য রপ্তানিতে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৩৫ শতাংশ। জুন শেষে এই প্রবৃদ্ধি যদি কাছাকাছিও থাকে, তাহলে সেটিও হবে রেকর্ড। কারণ, ১০ বছরের মধ্যে গত অর্থবছর সর্বোচ্চ ১৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছিল।