June 16, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Friday, May 3rd, 2024, 2:42 pm

খরায় পুড়ছে আম, ফলন বিপর্যয়ের শঙ্কায় চাঁপাইনবাবগঞ্জের চাষীরা

আমের রাজধানী হিসেবে পরিচিত চাঁপাইনবাবগঞ্জে এবার প্রচণ্ড দাবদাহে আম চাষে বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। তীব্র তাপপ্রবাহে বোঁটা শুকিয়ে গাছ থেকে ঝরে পড়ছে আম। পরিস্থিতি সামাল দিতে চাষীরা আমগাছে সেচ ও বালাইনাশক স্প্রে দিলেও তেমন কাজে আসছে না। এ অবস্থা অব্যাহত থাকলে এবার জেলায় আমের মারাত্মক ফলন বিপর্যয়ের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

আম উৎপাদনে এ বছর এমনিতেই অফ ইয়ার, অর্থাৎ কম ফলনের বছর। তার উপর বিরূপ আবহাওয়া যেন পিছু ছাড়ছে না আম চাষীদের। মৌসুমের শুরুতেই অতিরিক্ত শীতের কারণে আমের মুকুল এসেছে দেরিতে; মুকুল ফোটার সময় হয়েছে বৃষ্টি। তাতে অনেক মুকুল নষ্ট হয়ে আম এসেছে কম। এ নিয়ে এমনিতেই মুখে হাঁসি ছিল না চাষী ও বাগান মালিকদের। আর এখন তীব্র দাবদাহে ঝরে পড়ছে আম। ফলে আমের ফলন নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন তারা। যাদের সেচ দেয়ার সুবিধা আছে তারা বাড়তি টাকা খরচ করে বাগানে সেচ দিয়ে ও স্প্রে করে আমের ঝরে পড়া রোধের চেষ্টা করছেন।

জেলার বেশ কয়েকটি এলাকার আম বাগান ঘুরে দেখা গেছে, গাছের নিচে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে ঝরে পড়া ছোট ছোট আম। অন্যান্য বছর এ সময়ে আমের আকার অনেকটা বড় হয়ে যায়, কিন্তু বৃষ্টির অভাবে এবার আমগুলো তেমন বড় হয়নি। কোনো কোনো বাগানে ডিজেলচালিত সেচযন্ত্র বসিয়ে গাছের গোড়ায় পানি দেওয়া হচ্ছে। আবার অনেক বাগানে সে সুযোগ নেই। বৈরী আবহাওয়ার কারণে আম ঝরে পাড়া অব্যাহত থাকায় চাষীদের দুশ্চিন্তার শেষ নেই।

জেলা শহরের আমচাষী আব্দুল অহিদ বলেন, ‘এবার আমের মুকুল এমনিতেই কম হওয়ায় গুটিও খুব কম ছিল, কিন্তু পরবর্তীতে বৃষ্টির দরকার থাকলেও এখন পর্যন্ত বৃষ্টির দেখা নেই, চলছে খরা। বৃষ্টির অভাবে বোটা শুকিয়ে প্রতিদিন ঝরে পড়ছে আম। গাছের গোড়ায় পানি দিয়ে সেচ দিচ্ছি, স্প্রে করছি, কিন্তু তারপরও আমের ঝরে পড়া বন্ধ হচ্ছে না।’

এছাড়া বৃষ্টি না হওয়ায় আমের আকারও বড় হচ্ছে না বলে জানান তিনি।

আজাইপুর এলাকার আম চাষী আবদুর রাকিব বলেন, ‘আম নিয়ে মন ভালো নেই। প্রচণ্ড খরায় আম ঝরে পড়ছে। গাছে সেচ দিচ্ছি, ছত্রাকনাশক স্প্রে করছি, কিন্তু কাজ হচ্ছে না। প্রচণ্ড দাবদাহে আম ঝরছে তো ঝরছেই। এ পর্যন্ত তিনবার স্প্রে করলাম, উপাদন খরচ বাড়তেই আছে। তার উপর যদি আমের ফলনে মার খাই তাহলে বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়ব।’

শিবগঞ্জ এলাকার আমচাষী আহসান হাবিব বলেন, ‘এবার শীতের কারণে মুকুল দেরিতে এসেছে। তারপর গত ২০ মার্চ যে বৃষ্টি হয়েছিল, তাতে মুকুলের ক্ষতি হয়েছিল। এখন যে তাপদাহ চলছে এর ফলে গাছে যে আম আছে সেগুলোও ঝরে পড়ছে। ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নেমে যাওয়ায় অনেকে গাছে সেচ দিতে পারছে না। আবার কেউ সেচ দিচ্ছে তো খরচ বেড়ে যাচ্ছে। এ অবস্থায় আমরা শঙ্কায় আছি যে আমের উৎপাদন কমে যাবে এবং আমরা আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়ে যাব।’

একই এলাকার আরেক আমচাষী শামীম বলেন, ‘সামগ্রিক দিক বিবেচনা করলে আমাদের জেলায় এবার আমের অবস্থা খুবই খারাপ। কারণ আমরা যে লক্ষ্য নিয়ে বাগানের পরিচর্যা করেছি বা করে যাচ্ছি, সেই কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে এবার আমরা পৌঁছাতেই পারব না। কারণ আমার কাছে মনে হচ্ছে, এবার আমের উৎপাদনে বিপর্যয় ঘটবে।’

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ড. পলাশ সরকার বলেন, ‘আমাদের চাঁপাইনবাবগঞ্জে এবার আমের মুকুল কম হয়েছে। দেখা গেছে, ফেব্রুয়ারি মাসে ও মার্চ মাসে সকালের দিকে ঘন কুয়াশা পড়েছে; সেটা ক্ষতি করেছে। আবার বৃষ্টি হয়েছে, হালকা ঝড়ও হয়েছে; এতে যে আম গাছগুলোতে মুকুল ফুল পর্যায়ে ছিল বৃষ্টিতে সে ফুল নষ্ট হয়ে গেছে। তারপর এখন তীব্র তাপদাহ চলছে। এতে আম ঝরে পড়ছে। সামনে শিলাবৃষ্টি, কালবৈশাখী ঝড়ের আশঙ্কাও থাকছে। ফলে আমরা যে কাঙ্ক্ষিত ফলন চাচ্ছি সেটা হয়তো নাও হতে পারে।’

কৃষি বিভাগের হিসেবে চলতি মৌসুমে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় ৩৭ হাজার ৬০৪ হেক্টর জমিতে আমের চাষ হয়েছে। আর এ থেকে এবার জেলায় আম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৪ লাখ ৫০ হাজার মেট্রিকটন। গত মৌসুমে জেলায় আম উৎপাদন হয়েছিল ৪ লাখ ৪৩ হাজার ৬২৫ মেট্রিকটন।

—–ইউএনবি