January 27, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Thursday, November 18th, 2021, 1:22 pm

গাবতলীতে মুক্তিপন না পেয়ে ৪ বছরের শিশুকে হত্যা

গ্রেফতারকৃত

জেলা প্রতিনিধি:

বগুড়ার গাবতলীতে মুক্তিপন না পেয়ে ৪ বছরের শিশুকে হত্যা করা হয়েছে। পুলিশ ১২ ঘন্টাপর তার মুখ, হাত, পা বাঁধা বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় জড়িত দু’জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে ১৭ নভেম্বর গাবতলী উপজেলা নেপালতলী ইউনিয়নের লাঠিমার ঘোন উত্তরপাড়া গ্রামে। গ্রেফতারকৃতরা একই গ্রামের পাশের বাড়ির প্রবাসী উজ্জলের ছেলে রিয়াদ (১৪) ও সাজুর ছেলে শুভ (১৪)। জানাগেছে, উল্লিখিত গ্রামের রাজমিস্ত্রী শাহিন প্রামানিকের ৪ বছর বয়সের মেয়ে সানজিদা খাতুন বাড়ির উঠানে সকাল ১০ টায় খেলতে গিয়ে নিখোঁজ হয়। অনেক খোঁজা খুঁজি করে না পেয়ে গাবতলী ও সারিয়াকান্দি উপজেলার ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয়া হয়। তারা এসে বাড়ির আশপাশের জলা, ডোবা, পুকুরে হারিয়ে যাওয়া শিশু সানজিদার সন্ধান চালায়। কোথাও তাকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। দুপুরে একটি মোবাইল ফোন থেকে পাশের বাড়ির জনৈক এক গৃহবধুকে জানানো হয়, হারিয়ে যাওয়া সানজিদাকে জীবিত পেতে হলে ৩লাখ টাকা দিতে হবে। অন্যথায় তাকে হত্যা করা হবে। ওই গৃহবধু সানজিদার পিতা-মাতাকে মুক্তিপনের বিষয়টি জানায়। মুক্তিপন দাবীকারীদের ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের পর ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে সানজিদাকে ফেরত দেয়ার কথা পাকাপোক্ত হয়। রাত সাড়ে ৭ টায় লাঠিমারঘোন রাস্তার একটি কালভাটের কাছে টাকা রাখতে বলে মুক্তিপন কারীরা। বিষয়টি পুলিশ বা প্রশাসনকে জনানো হলে সানজিদাকে হত্যা করা হবে। এরমধ্য ঘটনাটি থানা পুলিশকে জানানো হলে, গাবতলী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ জিয়া লতিফুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল চৌকস পুলিশ ঘটনারস্থানে ওঁতপাতে। অপহরনকারীদের জানানো হয় তাদের কথামত কালভাটের কাছে ৫০ হাজার টাকা রাখা হয়েছে। রাত ৭ টায় দূর থেকে পুলিশ ও গ্রামবাসি লক্ষ করেন, উক্তস্থানে আলোতে একজন কিছু খুঁজছে। তাকে জাপটে ধরে দেখা গেল পাশের বাড়ির রিয়াদ। তাকে ছেরে দিয়ে সবাই চলে এলেন। কিছুক্ষনপর আবারো দেখাগেল ওই কালভাটের কাছে আলোতে একজন কিছু খুঁছেন, আবারো পুলিশসহ লোকজন এসে ওই ব্যাক্তিকে আটক করলো। দেখা গেল পুর্বে যাকে আটক করা হয়েছিল সেই রিয়াদ। সবাই জানলো মুক্তিপনকারী রিয়াদ। তাকে চর থাপ্পর মারতেই সে জানায় শিশু সানজিদাকে হত্যা করা হয়েছে। তার সাথে সাজুর ছেলে শুভ রয়েছে। ঘটনার দিনগত রাত ১১ টায় লাশ শুভদের বাড়িতে ঘরের মধ্য রক্ষিত ষ্টীলের বাক্্েরর মধ্য বস্তায় রাখা আছে। রিয়াদের কথামত ও দেখিয়ে দেয়া স্থানে পুলিশ এলাকাবাসীকে নিয়ে অভিযান চালিয়ে হাত, পা, মুখ বাধা প্লাষ্টিকের বস্তায় ভরানো ৪ বছরের শিশু সানজিদার লাশ উদ্ধার করে। পালিয়ে থাকা শুভকে রাতেই তার নানার বাড়ি একই ইউনিয়নের কদমতলী এলাকা হতে গ্রেফতার করে পুলিশ। এব্যপারে গাবতলী মডেল থানার অফিসান ইনচার্জ (ওসি) মোঃ জিয়া লতিফুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মুক্তিপনের দাবিতে শিশু সানজিদাকে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় শুভ ও রিয়াদকে গ্রেফতার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা হত্যার দায় স্বীকার করেছে। আরো কেউ জড়িত আছে কি না পুলিশ তদন্ত অব্যাহত রেখেছে। থানায় নিহত শিশু সানজিদার পিতা শাহিন বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দিয়েছে।