July 25, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Wednesday, January 3rd, 2024, 9:42 pm

গার্মেন্টস সেক্টরের পরে, রাজনৈতিক ও ডলার সংকটে ‘রডের বাজার’

ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক:

বর্তমান অর্থনৈতিক মন্দা, রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা এবং ডলার, গ্যাস ও বিদ্যুতের সংকটের কারণে দেশের রড সেক্টর সমস্যার বাঁধের মধ্যে পড়ে গেছে। অভ্যন্তরীণ ব্যক্তিরা দাবি করেছে যে বিদ্যমান চ্যালেঞ্জগুলির কারণে ২০২৩ সালে উৎপাদন এবং চাহিদা উভয়ই আগের বছরের তুলনায় প্রায় ৪০%-৫০% কমেছে। তবে কাঁচামাল আমদানির জন্য ওপেনিং লেটার অব ক্রেডিট (এলসি) জন্য ডলার পাওয়া গেলে আগামী ছয় মাসের মধ্যে বর্তমান পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে বলে আশা প্রকাশ করেছেন শিল্প সংশ্লিষ্টরা।

শাহরিয়ার স্টিল রি-রোলিং মিলসের (এসএসআরএম) ব্যবস্থাপনা পরিচালক শেখ মাসাদুল আলম (মাসুদ) বলেন, ২০২০ সাল থেকে যখন কোভিড-১৯ মহামারী দেশে আঘাত হানে তখন থেকে রড শিল্প সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। তিনি বলেন, বর্তমানে, ডলার, গ্যাস ও বিদ্যুতের সংকটের পাশাপাশি রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক মন্দা রড সেক্টরকে চাপে ফেলেছে। গত বছরটি আমাদের জন্য ভাল ছিল না কারণ একাধিক চ্যালেঞ্জ আমাদের উৎপাদনের প্রায় ৪০% ব্যাহত করেছিল।

বাংলাদেশ স্টিল ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএসএমএ) প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মাসুদ ব্যাখ্যা করেছেন যে রাজনৈতিক সমাধান না হওয়া পর্যন্ত বর্তমান পরিস্থিতির উন্নতি হবে না। ব্যবসায়িক পরিবেশ স্বাভাবিক করতে শীঘ্রই ডলার সমস্য সমাধান করা উচিত। কোভিড-১৯ মহামারীর আগে প্রতি ডলারে ৮০ টাকা ছিলো এখন ১২৫ টাকা দিলেও ব্যবসায়ীরা এলসি খোলার জন্য ডলার পাচ্ছেন না, বলেন তিনি। তথ্য বলছে, কাঁচামালের দাম বৃদ্ধি এবং অন্যান্য উৎপাদন খরচের কারণে ২০২৩ সালে রডের দাম প্রতি টন ১ লাখ টাকা ছাড়িয়ে যায়।

সংকটজনক পরিস্থিতি সত্ত্বেও নতুন বিনিয়োগ

রানী রি-রোলিং মিলস লিমিটেডের এমডি ডাঃ সুমন চৌধুরী বলেন, কোভিড-১৯ মহামারীর পর থেকে ইস্পাত খাতের প্রবৃদ্ধি ব্যাপকভাবে কমে গেছে। বর্তমান অর্থনৈতিক চাপ আমাদের খাতকে কঠিনভাবে আঘাত করেছে। ইস্পাত খাত একটি সংকটময় মুহূর্তের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। আমাদের উদ্যোক্তারা লোকসান গুনলেও তাদের ব্যবসা পরিচালনা করতে হচ্ছে, তিনি বলেন।

ডাঃ সুমন বলেন, বসুন্ধরা এবং মেঘনার মতো কোম্পানি সহ বেশ কয়েকটি বড় গ্রুপ শীঘ্রই ইস্পাত বাজারে আসছে যা এই খাতের উৎপাদন ক্ষমতাকে শক্তিশালী করবে এবং রপ্তানি বাজারে প্রবেশ করতে সহায়তা করবে। তবে, আমাদের এখন যা দরকার তা হল বাজার পরিস্থিতি এবং কীভাবে খাতটিকে রপ্তানিমুখী করা যায় তা নিয়ে গবেষণা করা।

আমাদের তৈরি রড বিভিন্ন দেশে রপ্তানির সুযোগ রয়েছে,” তিনি বলেন, এ লক্ষ্যে সরকারের কাছে পর্যাপ্ত সহায়তা কামনা করছি। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের ইস্পাত খাতের বর্তমানে বছরে ১৩ মিলিয়ন টন উৎপাদন ক্ষমতা রয়েছে কিন্তু তারা ৬-৭ মিলিয়ন টন চাহিদার বিপরীতে মাত্র ৫.৮ মিলিয়ন টন বিক্রি করতে পারে। ২০২৬ সালের মধ্যে ধারণক্ষমতা ১৮-২০ মিলিয়ন টন হতে পারে।

সুমন বলেন, দেশে শতাধিক কোম্পানি ইস্পাত উৎপাদনে নিয়োজিত রয়েছে। এর মধ্যে ৪২ জন বাংলাদেশ স্টিল ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএসএমএ) সদস্য। অন্যান্য ৪০টি মিলগুলি প্রচলিত (ম্যানুয়াল) ইস্পাত কারখানা। খাতটি প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ১০ লাখের বেশি কর্মসংস্থান সৃষ্টি করেছে। তিনি বলেন, সরকার যদি তৈরি পোশাক শিল্পের মতো প্রণোদনা দেয় তবে ইস্পাত খাতটি ২০২৬ সাল থেকে বছরে ১০-১৫ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রপ্তানি করতে পারে। রানী রি-রোলিং মিলসের এমডি বলেন, সরকার সাধারণত মোট উৎপাদনের প্রায় ৫৬% খরচ করে, তবে নির্বাচনের কারণে দেশের বেশিরভাগ উন্নয়ন কাজ স্থগিত রাখা হয়েছে।

সিজন সত্ত্বেও বিক্রি কমেছে

রাষ্ট্র-চালিত ট্রেডিং করপোরেশন অফ বাংলাদেশ (টিসিবি) অনুসারে, ৬০-গ্রেডের এমএস রডের দাম আগের বছরের তুলনায় ২০২৩ সালে ৯.১৭% বৃদ্ধি পেয়েছে আর ৪০-গ্রেডের রড ৬.৩৩% বৃদ্ধি পেয়েছে। টিসিবি তথ্যে দেখা গেছে যে, ৬০-গ্রেডের এমএস রড ঢাকার বিভিন্ন বাজারে প্রতি টন ৯১,৫০০ থেকে ৯৯,০০০ টাকায় খুচরা বিক্রি হচ্ছে এবং ৪০-গ্রেড ৮৬,০০০ থেকে ৯০,০০০ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে।

গত নভেম্বরে টনপ্রতি দাম দাঁড়ায় ১ লাখ ৫০০ টাকা। পুরান ঢাকার মেসার্স মুন্সি ট্রেডিং-এর ব্যবস্থাপক ফয়জুর রহমান বলেন, রডের বিক্রি মূলত নভেম্বর-মার্চ সময়কালে বেশী হয়। কিন্তু এখন অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক কারণে আমাদের বিক্রি ব্যাপকভাবে কমে গেছে। নির্বাচনকে সামনে রেখে বড় বড় আবাসন প্রকল্পগুলো এখন থমকে আছে।

সুতরাং, আমাদের বিক্রয় প্রায় ৪০% হ্রাস পেয়েছে। সূত্র বলছে, নির্বাচনের কারণে নতুন অ্যাপার্টমেন্ট বিক্রি না হওয়ায় এবং নতুন কোনো নির্মাণ প্রকল্প না থাকায় আবাসন খাত এখন সমস্যায় পড়েছে। বর্তমানে, গ্রাহকরা রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সমস্যার কারণে নতুন প্রকল্পে বিনিয়োগ করতে চান না।