July 1, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Wednesday, May 18th, 2022, 7:35 pm

চলতি মৌসুমে ফরিদপুরে সাড়ে ৫ লাখ মেট্রিক টন পেঁয়াজ উৎপাদন

চলতি মৌসুমে ফরিদপুরে ৪১ হাজার হেক্টর জমিতে পাঁচ লাখ ৫১ হাজার মেট্রিকটন পেঁয়াজ উৎপাদন করেছে জেলার চাষিরা। তবে পেঁয়াজ সংরক্ষণে ব্যবস্থা না থাকায় দ্রুত বাজারে ছেড়ে দিতে হয়। তাই পেঁয়াজ খ্যাত এই জেলায় হিমাগার নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন চাষিরা।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ফরিদপুরে মাটি পেঁয়াজ আবাদে উপযোগী, যে কারণে দেশের পেঁয়াজ উৎপাদনে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে এই জেলা। এখানে তিন ধরনের পেঁয়াজ চাষ হয়; মুড়ি কাটা, হালি ও দানা পেঁয়াজ। এছাড়া জেলার ৯ উপজেলার মধ্যে নাগরকান্দা, সালথা, বোয়ালমারী, ফরিদপুর সদর, ভাঙ্গা ও সদরপুরে বেশি পেঁয়াজের আবাদ হয়।

সরেজমিনে জেলার কানাইপুর বাজারসহ বেশ কয়েকটি পেঁয়াজের বাজার দেখা গেছে, বর্তমানে প্রান্তি পর্যায়ে চাষিরা পাইকারদের (ব্যবসায়ীদের) কাছে মণ প্রতি ১৩শ’ টাকা দরে বিক্রয় করছে। তবে চাষিদের দাবি, মণ প্রতি উৎপাদন খরচ হয়েছে ৯শ’ টাকা। এই ক্ষেত্রে মণ প্রতি যদি তারা ১৮শ’ টাকায় দর পেত তাহলে বেশি লাভ হতো।

বোয়ালমারী উপজেলার ঘোষপুর ইউনিয়নের পেঁয়াজ চাষি আশুতোষ মালো বলেন, এ মৌসুমে পেঁয়াজের আবাদে খরচ একটু বেশি হয়েছে।

কানাইপুর বাজারের পেঁয়াজ ব্যসায়ী ও চাষি শাহজাহান মিয়া জানান, শুক্র ও মঙ্গলবার এ বাজারের হাট বসে। গত ১৫ দিন হলো মণ প্রতি চাষি পর্যায়ে ১৩শ’ টাকায় বিক্রয় করছে। যা আগে হাজারের নিচে ছিল।

তিনি জানান, জেলার বাইলে বাজার, রামকান্তপুর বাজার, ঠেনঠেনিয়া বাজার, ময়েনদিয়া বাজার, ফকিরের বাজার, নালার মোড় বাজার, কাদিরদী বাজার, সাতৈর বাজারগুলোতে চাষিরা প্রচুর পেঁয়াজ নিয়ে আসে।

কানাইপুর বাজারের আরেক পেঁয়াজ ব্যবসায়ী বিলাল মাতুব্বর বলেন, চাষিদের কাছ থেকে যে দরে পেঁয়াজ ক্রয় করা হয়েছে তার থেকে সামান্য বেশি দরে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলাতে সরবরাহ করছি। তার দাবি, চাষিদের পেঁয়াজ সংরক্ষণের আধুনিক কোনো ব্যবস্থা নেই, যে কারণেই তারা দ্রুত বাজারে ছেড়ে দেয়।

ফরিদপুরের কানাইপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও আদর্শ পেঁয়াজ চাষি ফকির বেলায়েত হোসেন জানান, এই অঞ্চলের মূলত লাল তীর কিং নামে পেঁয়াজের আবাদ বেশি হয়। তবে এই পেঁয়াজ বেশি দিন সংরক্ষণ করা যায় না। তাই আমাদের দাবি ফরিদপুর অঞ্চলের পেঁয়াজ সংরক্ষণের জন্য হিমাগার নির্মাণের।

তিনি বলেন, ৫২ শতাংশের বিঘায় ভালো ফলন হলে ১২০ থেকে ৩০ মণ পেঁয়াজ উৎপাদন হয়।

ফরিদপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক ড. হয়রত আলী জানান, এই মৌসুমে জেলায় ৪১ হাজারের বেশি হেক্টর জমিতে পেঁয়াজ আবাদ হয়েছে। জেলায় সরকারি হিসাবে পাঁচ লাখ ৫১ হাজার মেট্রিক টন পেঁয়াজ উৎপাদন হয়েছে। বৈরী আবহাওয়ার কারণে গত বছরের চেয়ে ৩৮ হাজার মেট্রিক টন কম হয়েছে।

তিনি জানান, বর্তমানে বাজারের যে দর (মণ প্রতি ১২শ’ থেকে ১৩শ’ টাকা) যাচ্ছে তাতে চাষিরা মণ প্রতি ২শ’ থেকে তিনশ’ টাকা লাভ পাচ্ছেন। ফরিদপুরে পেঁয়াজের চাহিদা রয়েছে ১৭ হাজার মেট্রিক টন, এর বাইরে যে পেঁয়াজ থাকে সেটা বিভিন্ন জেলাতে সরবরাহ করা হয়।

—ইউএনবি