August 9, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Friday, July 15th, 2022, 7:48 pm

চেলসি প্রসঙ্গে যা বললেন লুকাকু

অনলাইন ডেস্ক :

চেলসি থেকে অনেক ক্লাব ঘুরে নোঙর ফেলেছিলেন ইন্টার মিলানে। ঝলমলে ফুটবলের পসরা মেলে উঠে এসেছিলেন পাদপ্রদীপের আলোয়। ঠিক তখনই আবার ইন্টারকে বিদায় বলে ইংলিশ ক্লাবটিতে চলে যান রোমেলু লুকাকু। কিন্তু স্ট্যামফোর্ড ব্রিজে তার ফেরাটা রঙিন হয়নি মোটেও। দ্বিতীয় মেয়াদে ইন্টারে আসার পর পিছু ফিরে দেখা সিদ্ধান্তগুলো নিয়ে বেলজিয়ামের এই ফরোয়ার্ডের উপলব্ধি-চেলসিতে ফেরা ছিল ভুল। আসছে মৌসুমে ইন্টার মিলান খেলবে নতুন জার্সিতে। সেই জার্সির উদ্বোধনে এসে ক্যারিয়ারে পিছু ফিরে তাকালেন লুকাকু। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ছেড়ে ২০১৯-২০ মৌসুম সামনে রেখে ইন্টারে যোগ দিয়েছিলেন লুকাকু। সেরি আর দলটির হয়ে দুই মৌসুমে ৯৫ ম্যাচে করেছিলেন ৬৪টি গোল। ২০২০-২১ মৌসুমে দলটির সেরি আ জয়ে রাখেন বড় ভূমিকা। ওই ঝলমলে পারফরম্যান্সে ফের চেলসির নজরে আসেন লুকাকু। ক্লাব রেকর্ড ৯ কোটি ৭৫ লাখ পাউন্ডে তাকে স্ট্যামফোর্ড ব্রিজে ফিরিয়ে আনে ‘ব্লুজ’ নামে পরিচিত দলটি। কিন্তু চেলসির প্রত্যাশার সঙ্গে প্রাপ্তি মেলেনি। লুকাকুর প্রিমিয়ার লিগে ফেরা ছিল ভীষণ হতাশাজনক। সেরা একাদশে নিয়মিতভাবে অনুপস্থিত ছিলেন ২৯ বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ড। ২৬ ম্যাচে মাত্র ৮ গোল করতে পারেন তিনি। গত মৌসুমের মাঝপথেই আবারও ইন্টারে যাওয়ার ইচ্ছে প্রকাশ করেছিলেন লুকাকু। এতে বেশ সমালোচনাও শুনতে হয় তাকে। শেষ পর্যন্ত অবশ্য তার চাওয়া পূরণ হয়েছে। তাকে ৭০ লাখ পাউন্ডে ধারের চুক্তিতে দলে টানে ইটালিয়ান ক্লাবটি। বৃহস্পতিবার জার্সি উন্মোচন অনুষ্ঠানে লুকাকুকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, তার ক্যারিয়ারে সবচেয়ে কঠিন চ্যালেঞ্জ নিয়ে। “আমার সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হবে এই মৌসুম। (ইন্টার মিলান ছেড়ে) আমি চলে গিয়েছিলাম; এটা ভুল সিদ্ধান্ত ছিল।” “আমরা লকার রুমে এবং মাঠে যা করি, প্রত্যেকের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক কেমন, এগুলো খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমরা আসলেই ঐক্যবদ্ধ আছি কি-না, সেটা স্পষ্ট হওয়াটাও জরুরি।” আগের মতো ফের ইন্টারের জার্সিতে লুকাকু জ¦লে উঠতে পারবেন কিনা, সময়ই বলে দেবে। তবে তিনি আশাবাদী। “ক্যারিয়ারে আরও উঁচু পর্যায়ে খেলার সুযোগ ইন্টার আমাকে দিয়েছে। এই জার্সি পরতে পেরে আমি সত্যিই খুশি। আমরা আশা করি, আগের বছরগুলোর মতো অগ্রগতি ধরে রাখতে পারব। যদি আমরা অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে চাই, তাহলে আমাদের এভাবেই এগিয়ে যেতে হবে।” ভবিষ্যতে চেলসিতে নিজেকে দেখেন না, লুকাকুর এমন মন্তব্য নিয়ে প্রশ্নের মুখোমুখি হয়েছিলেন প্রিমিয়ার লিগের দলটির কোচ টমাস টুখেল। স্ট্যামফোর্ড ব্রিজে তার ফেরা নিয়ে অবশ্য সন্দিহান তিনিও। “বিষয়টা হচ্ছে, সে ধারে সেখানে গেছে। অবশ্যই তার ফেরার সুযোগ রয়েছে। আমি জানি না, এটা আসলে সম্ভব কিনা, তবে এ বিষয় নিয়ে মতামত দেওয়ার (উপযুক্ত) লোক আমি নই।” “মালিকপক্ষের সঙ্গে আমরা বসে একসঙ্গে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম, আমাদের উচিত লুকাকুকে যেতে দেওয়া। তার ইচ্ছে ছিল যাওয়া, তার সামনে সম্ভাব্য পথগুলো খোলা ছিল এবং আমরা তাকে যেতে দিয়েছি।”