December 1, 2021

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Monday, October 18th, 2021, 9:55 pm

ছিনতাইয়ে বাধা পেয়ে খুন, গ্রেপ্তার ৩

নিজস্ব প্রতিবেদক:

রাজধানীর অদূরে আশুলিয়ার শিমুলতলাস্থ দি ভাই ভাই ফার্নিচারে মাসিক এগারো হাজার টাকা বেতনে কাজ করতেন রমজান মিয়া (১৯)। কাজ শেষে ওই এলাকার মোল্লা বাজারস্থ ভাড়া বাসায় ফেরার পথে পলমল গার্মেন্টসের সামনে পৌঁছুলে তার কাছে থাকা মোবাইল ও নগদ টাকা ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে ছিনতাইকারীরা। রমজান মিয়া তার কষ্টার্জিত টাকায় কেনা মোবাইল ও টাকা না দিয়ে তাদের গতিরোধ করার চেষ্টা করলে ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে ছিনতাইকারীরা ধারালো ছুরি দিয়ে রমজানের বুকে, পেটে ও সরু রড দিয়ে গলায় আঘাত করে। পরে তার মৃত্যু নিশ্চিত করে তাকে সেখানে ফেলে পালিয়ে যান ছিনতাইকারীরা। এ খুনের ঘটনার সঙ্গে জড়িত তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। গ্রেপ্তাররা হলেন- আমিনুল (২৮), সাগর মোল্লা (২৮) ও মো. ইউনুছ (৩৫)। সিআইডির এলআইসির একাধিক চৌকস টিম দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে গত রোববার রাতে তাদের গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারদের কাছ থেকে নিহত রমজানের ব্যবহৃত লুণ্ঠিত মোবাইল ও হত্যাকা-ে ব্যবহৃত ধারালো ছুরি জব্দ করা হয়। সোমবার (১৮ অক্টোবর) দুপুরে সিআইডি কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য তুলে ধরেন সিআইডির এলআইসি শাখার বিশেষ পুলিশ সুপার মুক্তা ধর। তিনি বলেন, নিহত রমজান মিয়া চার ভাই ও এক বোনের মধ্যে দ্বিতীয়। আর্থিক অনটনের সংসারে জীবিকার সন্ধানে প্রায় ছয় বছর আগে শিশুকালেই ঘর ছাড়তে বাধ্য হন রমজান। এরপর খালার পরিবারের সঙ্গে ভাড়া বাসায় থেকে আশুলিয়ার শিমুলতলাস্থ রানা মিয়ার ফার্নিচারের দোকানে ছয় হাজার টাকা বেতনে প্রায় তিন বছর কাজ করেন। পরবর্তীতে একই এলাকার দি ভাই ভাই ফার্নিচার দোকানে মাসিক ১১ হাজার টাকা বেতনে প্রায় তিন বছর ধরে কাজ করে আসছিলেন। সিআইডির এ কর্মকর্তা বলেন, ঘটনাটি বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপকভাবে প্রচারিত হলে তা সিআইডির নজরে আসে। সিআইডি ঘটনাটির ছায়া তদন্ত শুরু করে। ঘটনার বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ ও গভীরভাবে বিশ্লেষণের মাধ্যমে এর সঙ্গে জড়িতদের অবস্থান শনাক্ত করা হয়। এরপর আমিনুলকে নরসিংদীর জামগড়া এলাকা, সাগর মোল্লাকে রাজধানীর মুগদা ও ইউনুছকে আশুলিয়ার জিরানী এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। মুক্তা ধর বলেন, গত ১ সেপ্টেম্বর রাতে ঢাকার আশুলিয়া থানাধীন জামগড়াস্থ পলমল গার্মেন্টস ফ্যাক্টরির সামনে রমজান মিয়ার পথরোধ করে গ্রেপ্তার তিন ছিনতাইকারী। রমজান তার কষ্টার্জিত টাকায় কেনা মোবাইল ও টাকা না দিয়ে তাদের গতিরোধ করার চেষ্টা করলে ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে ছিনতাইকারীরা ধারালো ছুরি দিয়ে রমজানের বুকে, পেটে ও সরু রড দিয়ে গলায় আঘাত করে মৃত্যু নিশ্চিত করে ফেলে পালিয়ে যায়। এরপর রাত আনুমানিক ১২টা থেকে সাড়ে ১২টার মধ্যে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এর মাধ্যমে থানা পুলিশ খবর পেয়ে তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় নিকটস্থ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় নিহত রমজানের খালা মোসাম্মৎ কুলসুম বেগম অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে আশুলিয়া থানার মামলা করেন। মামলার পর সিআইডি ঘটনাটির ছায়া তদন্ত শুরু করে আসামিদের গ্রেপ্তার করে। বিশেষ পুলিশ সুপার আরও বলেন, গ্রেপ্তাররা মূলত সক্রিয় ছিনতাইকারী দলের হোতা ও সহযোগী। তারা ওই এলাকাসহ আশপাশের এলাকায় গভীর রাত থেকে ভোর পর্যন্ত রাস্তায় চলাচলকারী পথচারীদের টার্গেট করে তাদের গতিরোধ করে ছিনতাই করতো। কেউ তাদের ছিনতাই কাজে বাধা দিলে ধারালো ছুরি, লোহার রড দিয়ে আঘাত করে পালিয়ে যেতো।