October 4, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Wednesday, December 29th, 2021, 7:38 pm

জানুয়ারিতে রিয়ালে যাওয়ার গুঞ্জন উড়িয়ে দিলেন এমবাপে

অনলাইন ডেস্ক :

‘না! জানুয়ারিতে? না।’ ঠিক এভাবেই সিএনএনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে জানুয়ারির শীতকালীন দলবদলের মৌসুমে রিয়াল মাদ্রিদে পাড়ি জমানোর গুঞ্জনে পানি ঢেলে দিয়েছেন কিলিয়ান এমবাপে। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো একপ্রকার ধরেই নিয়েছে কিলিয়ান এমবাপে রিয়াল মাদ্রিদে পাড়ি জমাবেন। তবে সেটা ফ্রি এজেন্ট হিসেবে ২০২২ সালের জুলাই কিংবা আগস্টে নাকি বড় লোকসান এড়াতে পিএসজি তাকে জানুয়ারিতেই যেতে দেবে? ২০২১ সালের গ্রীষ্মকালীন দলবদলের মৌসুমে কিলিয়ান এমবাপের জন্য রিয়ালের করা ২০০ মিলিয়ন ইউরোর প্রস্তাব ফিরিয়ে দেয় প্যারিস সেইন্ট জার্মেই। যদিও তারা জানতো ২০২২ সালের জানুয়ারিতেই রিয়ালের সঙ্গে অগ্রীম চুক্তিবদ্ধ হতে পারবেন এমবাপে। তবুও এমবাপের জন্য রিয়ালের করা প্রস্তাব আমলেই নেয়নি পিএসজি। এদিকে এমবাপেও বারবার পিএসজির চুক্তি নবায়নের প্রস্তাব ফিরিয়ে আসছিলেন। এখনো নিজের সিদ্ধান্ত অনড় এমবাপে। পিএসজির সঙ্গে চুক্তি নবায়ন করবেন না কিছুতেই। সময় ঘনিয়ে আসছে আর পিএসজি ও এমবাপের মধ্যে দূরত্ব বাড়ছেই। একারণেই গুঞ্জন উঠেছিল বড় মাপের লোকসান এড়াতে জানুয়ারিতেই রিয়ালের কাছে এমবাপেকে বিক্রি করে দেবে পিএসজি। কিন্তু সে ব্যাপার সরাসরি উড়িয়ে দিয়েছেন তিনি। এমবাপে বলেন, ‘না! জানুয়ারিতে? না। আমি পিএসজিতে খুশি আছি এবং আমি এই মৌসুম এখানেই শেষ করতে চাই।’ ফেব্রুয়ারিতে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের রাউন্ড অব ১৬’তে মুখোমুখি হবে পিএসজি এবং রিয়াল মাদ্রিদ। সেই ম্যাচ নিয়ে বেশ উত্তেজিত এমবাপে। এ ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘আমার সামনে এখন একটাই লক্ষ্য পিএসজির হয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতা। আমার মনে হয় এটা পিএসজির সমর্থকদের অধিকার। আমি এই মৌসুমে সবকিছু জিততে চাই।’ ‘আমি এখন দায়িত্ব নিতে চাই। মৌসুমের এই সময়টা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা শেষ দুই বছর ফাইনাল ও সেমিফাইনাল খেলেছি এবার আমরা চ্যাম্পিয়নস লিগ জিততে চাই।’ সিএনএন প্রতিনিধি এমবাপের রিয়ালে নাম লেখানোর ব্যাপারে প্রশ্ন করতে ভুল করেননি। তবে তার জবাবটা এড়িয়ে গেলেন এমবাপে। বলেন, ‘এই ব্যাপারে কথা বলার সময় এখন না। আমার মাথায় এখন কেবল একটাই ব্যাপার ঘুরছে সেটা ফেব্রুয়ারি এবং মার্চে রিয়াল মাদ্রিদকে হারানোর।’