December 10, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Saturday, September 24th, 2022, 1:20 pm

জীবন ও জীবিকার স্বার্থে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ বন্ধ করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ছবি: পি আই ডি

বিশ্বব্যাপী মানুষের জীবন ও জীবিকার স্বার্থে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ অবিলম্বে বন্ধ এবং নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘আমরা রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের অবসান চাই। নিষেধাজ্ঞা ও পাল্টা-নিষেধাজ্ঞার মাধ্যমে একটি দেশকে শাস্তি দিতে গিয়ে নারী ও শিশুসহ গোটা মানবজাতিকেই শাস্তি দেয়া হচ্ছে।’

স্থানীয় সময় শুক্রবার জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের (ইউএনজিএ) ৭৭তম অধিবেশনে তার বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এ আহ্বান জানান।

বিগত বছরের মতো এবারও তিনি বাংলায় বক্তব্য দিয়েছেন। এ বছরের সাধারণ বিতর্কের থিম হল ‘এ ওয়াটারশেড মোমেন্ট: ট্রান্সফর্মেটিভ সলুশনস টু ইন্টারলকিং চ্যালেঞ্জেস’।

তিনি বলেন, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব একটি দেশের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই। বরং সমস্ত দেশের জনগণের জীবন ও জীবিকাকে আরও ঝুঁকির মধ্যে ফেলেছে এবং তাদের মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে। মানুষ খাদ্য,বাসস্থান,স্বাস্থ্যসেবা ও শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

তিনি বলেন, বিশেষ করে শিশুরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং তাদের ভবিষ্যৎ অন্ধকারে ডুবে যাচ্ছে।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘বিশ্ব সম্প্রদায়ের বিবেকবান অংশের কাছে আমার আবেদন, অস্ত্র প্রতিযোগিতা, যুদ্ধ, নিষেধাজ্ঞা বন্ধ করুন। শিশুদের খাদ্য, শিক্ষা,স্বাস্থ্যসেবা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন। শান্তি প্রতিষ্ঠা করুন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা একই গ্রহে বাস করি এবং আমরা আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য এটিকে আরও ভালো অবস্থায় রেখে যাওয়ার জন্য দায়বদ্ধ।’

তিনি বলেন, ‘সংলাপ হচ্ছে সংকট ও বিরোধ নিরসনের সর্বোত্তম উপায়।’

এ প্রসঙ্গে তিনি ‘গ্লোবাল ক্রাইসিস রেসপন্স গ্রুপ’- গঠনের জন্য জাতিসংঘ মহাসচিবকে ধন্যবাদ জানান।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এই গ্রুপের একজন চ্যাম্পিয়ন হিসেবে, আমি বর্তমান পরিস্থিতির গুরুত্ব ও সঙ্কটের গভীরতার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ একটি বৈশ্বিক সমাধান নিরূপণ করতে অন্যান্য বিশ্ব নেতাদের সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছি।’

তিনি উল্লেখ করেন, ‘এটি (যুদ্ধ) আমাদের মতো অর্থনীতিকে প্রচণ্ড চাপের মধ্যে ফেলেছে। মূল্যস্ফীতি বেড়েছে। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য আমরা (বাংলাদেশ) বিভিন্ন উদ্যোগ নিচ্ছি।’

রোহিঙ্গা সংকট আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা ও এর বাইরেও প্রভাব ফেলতে পারে

মিয়ানমার থেকে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, গত মাসে বাংলাদেশ ২০১৭ সালে রোহিঙ্গাদের তাদের নিজ দেশ থেকে বাংলাদেশে অভিবাসনের পাঁচ বছর পূর্ণ হয়েছে।

তিনি অভিযোগ করেন, ‘নিরাপদ ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবাসনের জন্য প্রয়োজনীয় পরিবেশ তৈরিতে মিয়ানমারকে সহায়তা করার জন্য ত্রিপক্ষীয় বিন্যাসে অংশীদারদের সঙ্গে আলোচনা এবং জাতিসংঘ ও অন্যান্য অংশীদারদের সঙ্গে আমাদের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক থাকা সত্ত্বেও একটি রোহিঙ্গাকেও তাদের নিজ দেশ মিয়ানমারে প্রত্যাবাসন করা হয়নি।’

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, দেশে চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতা ও সশস্ত্র সংঘাত রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের সম্ভাবনাকে আরও কঠিন করে তুলেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এ ব্যাপারে জাতিসংঘ কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে আশা করছি।’

বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের দীর্ঘদিন উপস্থিতির বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, এটি বাংলাদেশের অর্থনীতি, পরিবেশ, নিরাপত্তা ও সামাজিক-রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার ওপর মারাত্মক প্রভাব ফেলেছে।

প্রধানমন্ত্রী জানান, ‘প্রত্যাবাসন নিয়ে অনিশ্চয়তা ব্যাপক হতাশার জন্ম দিয়েছে। মানব ও মাদক পাচারসহ আন্তঃসীমান্ত সংগঠিত অপরাধ বাড়ছে।’

তিনি বলেন, ‘সমস্যাটি অব্যাহত থাকলে এটি সমগ্র অঞ্চল ও এর বাইরেও নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতাকে প্রভাবিত করতে পারে।’

অন্তর্ভুক্তিমূলক জলবায়ু কর্মকাণ্ড প্রচার করুন

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব সম্পর্কে তিনি বলেন, এটি মানবজাতির জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি।

তিনি বলেন, ‘অতীতে আমরা প্রতিশ্রুতি দেয়া এবং ভঙ্গ করার একটি দুষ্ট চক্র দেখেছি। আমাদের এখন এই পথ পরিবর্তন করতে হবে।’

বাংলাদেশের বিষয়ে তিনি উল্লেখ করেছেন যে সরকার প্যারিস চুক্তি বাস্তবায়ন এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ জলবায়ু পরিবর্তনের বিপজ্জনক প্রভাব মোকাবিলায় অনেক রূপান্তরমূলক পদক্ষেপের নেতৃত্ব দিয়েছে।

তিনি বলেন, “ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরামের সভাপতি থাকাকালে আমরা ‘মুজিব ক্লাইমেট প্রস্পারিটি প্লান’ গ্রহণ করি, যার লক্ষ্য হল বাংলাদেশকে ‘ঝুঁকির পথ থেকে জলবায়ু সহনশীলতা ও জলবায়ু সমৃদ্ধির টেকসই পথের’ দিকে নিয়ে যাওয়া।”

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জলবায়ু পরিবর্তন এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগ সম্পর্কিত আমাদের জাতীয় পরিকল্পনা এবং নীতিগুলি লিঙ্গ প্রতিক্রিয়াশীল এবং অভিযোজন এবং প্রশমনে মহিলাদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা বিবেচনা করে।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ তাদের নিজস্ব সমৃদ্ধি পরিকল্পনা বিকাশের জন্য অন্যান্য দুর্বল দেশগুলোকে সহায়তা করতে প্রস্তুত। আমি বিশ্ব নেতৃবৃন্দকে অন্তর্ভুক্তিমূলক জলবায়ু কর্মকাণ্ডকে উৎসাহিত করার আহ্বান জানাই।’

সন্ত্রাস ও চরমপন্থার বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি

প্রধানমন্ত্রী সন্ত্রাস ও সহিংস চরমপন্থার প্রতি বাংলাদেশের ‘জিরো টলারেন্স’ অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করেছেন। তিনি বলেন, ‘আমরা আমাদের ভূখণ্ড কোনো পক্ষকে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বা অন্যদের ক্ষতি করার জন্য ব্যবহার করার অনুমতি দিই না।’

সাইবার-অপরাধ এবং সাইবার-সহিংসতা মোকাবিলায় একটি আন্তর্জাতিকভাবে বাধ্যতামূলক যন্ত্রের সমাপ্তির জন্য জাতিসংঘের সদস্য দেশগুলোকে একসঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি।

বাংলাদেশ মানবাধিকার রক্ষায় পূর্ণ অঙ্গীকারবদ্ধ

একটি দায়িত্বশীল সদস্য রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশ তার নিজস্ব জনগণের মানবাধিকার রক্ষা ও প্রচারে সম্পূর্ণভাবে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘জনগণের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও সামাজিক অধিকার নিশ্চিত করার জন্য আমরা একটি সামগ্রিক ও অন্তর্ভুক্তিমূলক পদ্ধতি গ্রহণ করেছি।’

তিনি বলেন, বাংলাদেশ দারিদ্র্য বিমোচন, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব প্রশমন, সংঘাত ও অর্থ, জ্বালানি ও জ্বালানি সংকট প্রতিরোধে রূপান্তরমূলক সমাধান খুঁজতে আগ্রহী যা বিশ্ব এখন মোকাবিলা করছে।

ফিলিস্তিনকে সমর্থন অব্যাহত রাখবে ঢাকা

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ অধিকৃত ফিলিস্তিনি জনগণের প্রতি সমর্থন অব্যাহত রাখবে।

তিনি ১৯৬৭ সালের পূর্ববর্তী সীমান্তের ভিত্তিতে দ্বিরাষ্ট্র সমাধান এবং পূর্ব জেরুজালেমকে রাজধানী করে একটি ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার প্রতি বাংলাদেশের দ্ব্যর্থহীন সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করেন।

কোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশের সাফল্য সংক্ষেপে বর্ণনা করে তিনি বলেন, আগস্ট ২০২২ পর্যন্ত বাংলাদেশের যোগ্য জনসংখ্যার শতভাগ টিকা দেয়া হয়েছে।

এছাড়া প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি, শিক্ষা, খাদ্য নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যসহ বিভিন্ন খাতে এর সাফল্য এবং লিঙ্গ বৈষম্য তুলে ধরেন।

—ইউএনবি