November 29, 2021

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Wednesday, September 22nd, 2021, 7:41 pm

জয়া-নওয়াজুদ্দিনের ওয়েব সিরিজ নিয়ে অভিযোগ

অনলাইন ডেস্ক :

নকশাল বাড়ি। ষাটের দশকের এই সশস্ত্র আন্দোলন অবিভক্ত ভারতীয় বাঙালির কাছে এক অন্যরকম আবেগের ঘটনা। কদিন আগে সেটিই পর্দায় তুলে ধরার ঘোষণা দিয়েছেন পরিচালক সায়ন্তন মুখোপাধ্যায়। যেখানে কেন্দ্রীয় চরিত্রে দেখা যাবে বলিউডের নওয়াজুদ্দিন সিদ্দিকি ও বাংলাদেশের জয়া আহসানকে। নকশাল নেতা চারু মজুমদার ও তার স্ত্রী লীলা মজুমদারের ভূমিকায় অভিনয় করছেন তারা। তবে ওয়েব সিরিজে ইতিহাস বিকৃতি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ এনেছেন চারু মজুমদার-পুত্র অভিজিৎ। কারণ এর অন্যতম প্রধান দুই চরিত্র একদিকে চারু মজুমদার, অন্যদিকে পুলিশ কর্তা রুনু গুহ নিয়োগী। বস্তুত, বিতর্কিত রুনু গুহ নিয়োগীর লেখা ‘সাদা আমি কালো আমি’ অবলম্বনেই তৈরি হচ্ছে এই ওয়েব সিরিজ। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আজকালকে অভিজিৎ বলেন, ‘‘সাদা আমি কালো আমি’ একটি বিকৃত বই। এখানে রুনু গুহ নিয়োগী কীভাবে বীরত্বের সঙ্গে চারু বাবুকে গ্রেফতার করেছিলেন এবং জেলের মধ্যে তার সমস্ত ওষুধ বন্ধ করে কার্যত ঠান্ডা মাথায় তাকে খুন করেন- সে কথা লিখেছিলেন। শুধু বাংলাতেই ১০০-র বেশি বই আছে। সেগুলো ছেড়ে একজন বাঙালি পরিচালক অথচ নকশাল বাড়ি নিয়ে একটি অত্যন্ত অখাদ্য, সাহিত্যগুণ বর্জিত মিথ্যা লেখাকে ভিত্তি করে ওয়েব সিরিজ বানাচ্ছেন। আমার সঙ্গে ওই পরিচালক কোনও যোগাযোগও করেননি। তিনি আরও বলেন, ‘রুনু গুহ নিয়োগীর বইয়ে আমার মায়ের কোনও প্রসঙ্গ নেই। এখানে একজন নামজাদা অভিনেত্রীকে (জয়া) আমার মায়ের চরিত্রে পুরোটাই কল্পনা করা হয়েছে।’ বিতর্কিত পুলিশ কর্তার এই বই প্রকাশের পরেও বেশ বিতর্ক হয়েছিল। পরে সমাজকর্মীদের উদ্যোগে এই বইয়ের পাল্টা ‘সাদা রুনু, কালো রুনু’ নামের একটি বই প্রকাশ করা হয়। বিষয়টি নিয়ে রাজনৈতিক আলোচনাও শুরু হয়েছে। চারু মজুমদারের দল সিপিআইএমএলের পক্ষ থেকে বাসুদেব বসু কথা বলেছেন। তিনি বলেন, ‘রুনু গুহ নিয়োগী এক নারকীয় অত্যাচারের প্রতিভূ ছিলেন। সিনেমা বানানোর গণতান্ত্রিক অধিকার সবার আছে। কিন্তু রুনুর লেখার ওপর সিনেমা বানানো বর্তমান পরিস্থিতিতে এক বিকৃত তথ্যের উপহার। উনি লালবাজার লকআপে যে কায়দায় সমস্ত ওষুধ বন্ধ করে ঠান্ডা মাথায় চারু মজুমদারকে হত্যা করেছে, তা বিরল।’ সম্প্রতি পরিচালক সায়ন্তন মুখোপাধ্যায় সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, আগামী বছরের পূজার আগেই এর কাজ শেষ হবে। পরিচালক জানান, বিতর্কিত পুলিশ অফিসারের চোখ দিয়েই দেখানো হবে গোটা সিরিজ। রুনু গুহ নিয়োগীর চরিত্রে দেখা যাবে রণিত রায়কে। এছাড়াও প্রাথমিক কথা হয়েছে সব্যসাচী চক্রবর্তীর সঙ্গে। তিনি থাকবেন তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী প্রয়াত সিদ্ধার্থ শঙ্কর রায়ের ভূমিকায়। শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়কে ভাবা হয়েছে চারু মজুমদারের অন্যতম সঙ্গী কানু সান্যালের চরিত্রে। এ ছাড়া জ্যোতি বসুর চরিত্রের জন্য প্রাথমিকভাবে ভাবা হয়েছে পরেশ রাওয়াল ও বোমান ইরানির কথা। প্রাথমিক পরিকল্পনা অনুযায়ী তিনটি পর্বে দেখানো হবে এই সিরিজ। বাংলা, হিন্দি, ইংরেজি তিনটি ভাষায় তৈরি হবে এটি।