October 5, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Friday, October 29th, 2021, 7:04 pm

টিমের পক্ষ থেকে বিশেষ উপহার পেলেন বাঁধন

অনলাইন ডেস্ক :

না, বোম্বে হাইকোর্ট থেকে শাহরুখপুত্র আরিয়ানের জামিনের সঙ্গে দিল্লী থেকে ঢাকায় পৌঁছানো ‘রেহানা’র কোনও সম্পৃক্ততা নেই। তবে আকাক্সক্ষার বিচারে খানিক মিল রয়েছে বটে। গত ১৮দিন ঢাকার রেহানা তথা আজমেরী হক বাঁধন দূর দিল্লিতে আটকে ছিলেন বিশাল ভরদ্বাজের ‘খুফিয়া’ ইউনিটে। যার মধ্যদিয়ে ঢালিউড বাঁধনের রাজকীয় বলিউডযাত্রা। সেটির প্রথম পর্বের কাজ শেষ করেই বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নেমেছেন ঢাকায়। দিনটি ছিল বাঁধনের জন্য বিশেষ। কারণ, দিনটি ছিলো তার জন্মদিন। আর তাকে ঘিরে বিশেষ প্রস্তুতি ছিলো রেহানার স্রষ্টা নির্মাতা আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ সাদের। তাই দিল্লি থেকে বাঁধনের এই ফেরাটা বড় বেশি আকাক্সক্ষার ছিলো ‘আরএমএন’ টিমের জন্য। অবশেষ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টার পরে দিল্লির একটি ফ্লাইটে সরাসরি ঢাকায় নামলেন হন্তদন্ত বাঁধন। বিমানবন্দর থেকে সরাসরি গেলেন সাদদের অফিসে। সেখানে কাটা হলো কেক, ফোটানো হলো বাজি। আর বাঁধন পেলেন টিমের পক্ষ থেকে বিশেষ উপহার। নাম যার ‘মুক্তি’। সেটি হলো এমন- আন্তর্জাতিক বাজারে আলোচিত ‘রেহানা মরিয়ম নূর’ দেশের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাচ্ছে ১২ নভেম্বর। কান থেকে ফিরে যে ছবিটি এবার অস্কারে প্রতিনিধিত্ব করবে লোল-সবুজের। বাঁধনবলেন, ‘এটা আমার জীবনের সেরা জন্মদিন। রেহানার হাত ধরে এই একটা বছরে আমি অনেক কিছু পেয়েছি, অনেক শিখেছি, অনেক কিছু দেখেছি। যার মধ্যদিয়ে আমি সমৃদ্ধ হয়েছি। নতুন জীবনও বলতে পারেন। তাই দিল্লির অন্যরকম ১৮টি দিন পেরিয়ে দেশে নেমেই ওদের এই আয়োজন-উচ্ছ্বাস আর উপহারে আমি আবেগাক্রান্ত। আমি শব্দহীন ছিলাম অনেকক্ষণ। চোখ ভিজে যায় যখন ভাবি, ওরা আমাকে এতোটা ভালোবাসে। আমাকে ডেকে জন্মদিনের কেক কেটে ছবিটি মুক্তির তারিখ ঘোষণা করলো, এরচেয়ে বড় সারপ্রাইজ তো আমার জন্য হতে পারে না। আমি সত্যিই সম্মানিত হলাম।’ বাঁধন জানান, বিশাল ভরদ্বাজের ইউনিট থেকে তার ছুটি পাওয়ার কথা ছিলো ২৭ অক্টোবর। ঐদিনই তার ঢাকায় ফেরার কথা ছিলো। কিন্তু শুটিংয়ের খানিক বাকি থাকায় গতকালও ক্যামেরার সামনে ব্যস্ত ছিলেন এই অভিনেত্রী। যেখানে তিনি গত ১৮ দিন ধরে পর্দা ভাগ করছেন বলিউড বিখ্যাত টাবুর সঙ্গে। যদিও বলিউড মিশন নিয়ে এখনই মুখ খুলতে নারাজ বাঁধন। বলছেন, ‘এখন আমি আবার রেহানায় ডুবে যাচ্ছি। কারণ, ছবিটি মুক্তি পাচ্ছে। আমার দেশের মানুষ হলে গিয়ে এটি দেখতে পারবে। ১২ নভেম্বর আমার জন্য সবচেয়ে আনন্দের দিন হবে। সেই দিনটিকে সামনে রেখে আমি প্রচারণা চালাতে চাই। আহ্বান করতে চাই সবাইকে হলে এসে ছবিটি দেখার জন্য।’ এর আগে বলিউডের নামজাদা নির্মাতা বিশাল ভরদ্বাজের ডাকে গত ২৬ সেপ্টেম্বর লুক টেস্টের জন্য ঢাকা থেকে মুম্বাই যান বাঁধন। ফিরে এসে ফের ১০ অক্টোবর শুটিংয়ের জন্য দিল্লি উড়াল দেন। ১১ অক্টোবর থেকে শুরু করেন শুটিং। তারও আগে কান উৎসবের অফিশিয়াল সিলেকশনে প্রথম বাংলাদেশি ছবি হিসেবে যুক্ত হয় সাদ-বাঁধনের ‘রেহানা মরিয়ম নূর’। সে আসর থেকে কোনও পুরস্কার না জুটলেও বিশ্ব চলচ্চিত্র বাজারে দারুণ প্রশংসা কুড়ায় ছবিটি। তারই সূত্র ধরে বিশ্বের নানা উৎসব হয়ে এবার যাচ্ছে অস্কারে। ফাঁকে ১২ নভেম্বর থেকে ছবিটি মুগ্ধ করার সুযোগ পেলো দেশীয় দর্শকদের। ছবির গল্প আবর্তিত হয়েছে বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজের শিক্ষক রেহানা মরিয়ম নূরকে কেন্দ্র করে। সেখানে রেহানা একজন মা, মেয়ে, বোন ও শিক্ষক। ঝঞ্ঝাবিক্ষুব্ধ তার জীবন। এক সন্ধ্যায় কলেজ থেকে বের হয়ে তিনি এমন একটি ঘটনা প্রত্যক্ষ করেন, যা তাকে প্রতিবাদী করে তোলে। এক ছাত্রীর পক্ষ হয়ে সহকর্মী এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে বাধ্য হন রেহানা। একই সময়ে তার ৬ বছরের মেয়ের বিরুদ্ধে স্কুল থেকে রূঢ় আচরণের অভিযোগ করা হয়। এমন অবস্থায় রেহানা তথাকথিত নিয়মের বাইরে থেকে সেই ছাত্রী ও তার সন্তানের জন্য ন্যায়বিচার খুঁজতে থাকেন। ছবির চিত্রনাট্য লিখেছেন সাদ নিজেই। এতে রেহানা মরিয়ম নূর চরিত্রে অভিনয় করেছেন আজমেরী হক বাঁধন। ছবিতে আরও অভিনয় করেছেন আফিয়া জাহিন জাইমা, কাজী সামি হাসান, আফিয়া তাবাসসুম বর্ণ, ইয়াছির আল হক, সাবেরী আলম। পোটোকল ও মেট্রো ভিডিও’র ব্যানারে ছবিটি প্রযোজনা করেছেন সিঙ্গাপুরের জেরেমি চুয়া। নির্বাহী প্রযোজক এহসানুল হক। সিনেমাটোগ্রাফি করেছেন তুহিন তুমিজুল। সহ-প্রযোজনা করেছে সেন্সমেকারস প্রোডাকশন।