June 23, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Saturday, March 30th, 2024, 2:05 pm

ডব্লিউটিওর প্রতিশ্রুতির সঙ্গে বাংলাদেশের শুল্ক কাঠামো সমন্বয়ের উদ্যোগ এনবিআরের

বৈশ্বিক বাণিজ্য নীতি অনুযায়ী একটি পদক্ষেপে বাংলাদেশের শুল্ক কাঠামোর একটি বিস্তৃত পর্যালোচনা গ্রহণ করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। এতে ৬০ টি শুল্ক সীমা চিহ্নিত করা হয়েছে, যেখানে বর্তমান আমদানি-রপ্তানি শুল্ক এবং সংশ্লিষ্ট মাশুল বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার (ডব্লিউটিও) চুক্তিতে প্রতিষ্ঠিত নির্ধারিত হারকে ছাড়িয়ে গেছে।

প্রাথমিক পদক্ষেপের অংশ হিসেবে- ছয়টি পণ্যের ওপর শুল্ক কমানো হয়েছে, যা আন্তর্জাতিক মানের সঙ্গে বাণিজ্য প্রক্রিয়াকে সামঞ্জস্যপূর্ণ করতে বাংলাদেশের প্রতিশ্রুতির ইঙ্গিত দেয়।

একটি সরকারি নথিতে বিশদ এই উদ্যোগটি ২০২৬ সালের মধ্যে ডব্লিউটিও-সম্মত নির্ধারিত শুল্কের মধ্যে আনতে ধীরে ধীরে এই হারগুলো সামঞ্জস্য করার পরিকল্পনা নির্ধারণ করে। নির্ধারিত ট্যারিফগুলো ডাব্লুটিওতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ সর্বাধিক সুবিধাপ্রাপ্ত দেশ (এমএফএন) শুল্ক হারের প্রতিনিধিত্ব করে,এটি এমন একটি সর্বোচ্চ সীমা যা প্রয়োগ করা শুল্ক অতিক্রম করতে পারে না। এই নিয়ন্ত্রক কাঠামো নিশ্চিত করে যে বাণিজ্য নীতিগুলো অনুমানযোগ্য এবং স্থিতিশীল থাকে, যা ব্যবসায়ী এবং বিনিয়োগকারীদের সুরক্ষা দেয়।

দেশগুরো সাধারণত ডাব্লুটিওতে যোগদানের সময় বা পরবর্তী বাণিজ্য আলোচনার মাধ্যমে বেধে দেওয়া শুল্ক নিয়ে আলোচনা করে, নীতির নমনীয়তা বজায় রাখতে এই হারগুলো তাদের প্রয়োগ করা শুল্কের চেয়ে বেশি নির্ধারণ করে। তবে, যথাযথ সমন্বয় ছাড়াই এই নির্ধারিত হারগুলো অতিক্রম করা আন্তর্জাতিক বিরোধ এবং ক্ষতিপূরণের দাবির দিকে নিয়ে যেতে পারে, যা মেনে চলার গুরুত্বের উপর জোর দেয়।

বাংলাদেশের পুনর্বিন্যাস প্রচেষ্টা ডব্লিউটিও সদস্যদের মধ্যে একটি বিস্তৃত প্রবণতা প্রতিফলিত করে, যেখানে উন্নত, উন্নয়নশীল এবং রূপান্তরিত অর্থনীতিগুলো নির্ধারিত শুল্ক হারের সঙ্গে আমদানির অনুপাতকে উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি করেছে, যা বিশ্ব বাজারের স্থিতিশীলতা বাড়িয়েছে।

উপরন্তু, সরকার ন্যূনতম আমদানি মূল্যের প্রয়োজনীয়তা দূর করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ইতোমধ্যে এটি ৫৫টি আইটেম থেকে সরিয়েছে এবং ২০২৬ সালের মধ্যে অবশিষ্ট ১৩০টি পণ্য থেকে পুরোপুরি বাদ দেওয়ার কৌশলগত পরিকল্পনা নিয়েছে। এই পদক্ষেপের লক্ষ্য আমদানি প্রক্রিয়া সহজতর করা এবং আরও প্রতিযোগিতামূলক বাজারের পরিবেশকে উৎসাহিত করা।

নথিতে শুল্ক হ্রাসের বিষয়ে সতর্ক দৃষ্টিভঙ্গির রূপরেখা দেওয়া হয়েছে, যাতে স্থানীয় শিল্পগুলো প্রতিকূলভাবে প্রভাবিত না হয় এবং রাজস্ব সংগ্রহ শক্তিশালী থাকে তা নিশ্চিত করে।

এনবিআরের কৌশলের মধ্যে রয়েছে দেশের রপ্তানি প্রতিযোগিতাকে এগিয়ে নেওয়ার সময় দেশীয় খাতের সুরক্ষাকে অগ্রাধিকার দিয়ে একটি সতর্ক ভারসাম্যমূলক আইন করা।

কাস্টমস শুল্কের এই ক্রমবর্ধমান সমন্বয় এবং ন্যূনতম আমদানি মূল্য বিলুপ্তি বিশ্ব বাণিজ্য ব্যবস্থায় আরও নিরবচ্ছিন্নভাবে সংহত করতে বাংলাদেশের প্রচেষ্টাকে তুলে ধরে, বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার প্রতিশ্রুতির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এবং উন্নয়নকে উন্নীত করে।

—–ইউএনবি