April 25, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Monday, February 26th, 2024, 9:21 pm

ঢাকার খাল ও নদী দূষিত করছে সরকারি বেসরকারি হাসপাতালের তরল বর্জ্য

নিজস্ব প্রতিবেদক:

রাজধানীর খাল ও নদীকে দূষিত করছে সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালের তরল বর্জ্য। পরিবেশ অধিদপ্তরের কোনো ছাড়পত্র ছাড়াই চলছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (ঢামেক)। স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানটিতে নেই কোনো তরল বর্জ্য শোধনাগার বা ইটিপি প্লান্ট। ফলে ঢামেকের তরল বর্জ্যে দূষিত হচ্ছে বুড়িগঙ্গা। শুধু ঢামেক নয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়সহ (বিএসএমএমইউ) ২২০টি সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালের তরল বর্জ্য রাজধানীর খাল ও নদ-নদীগুলোকে দূষিত করছে। দূষণকারী হাসপাতালের তালিকায় নাম রয়েছে শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট অ্যান্ড হসপিটাল, ২৫০ শয্যার টিবি হাসপাতাল, ইনফেকশাস ডিজিজেস হসপিটাল, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ক্যান্সার রিসার্চ অ্যান্ড হসপিটাল, কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল, কুয়েত বাংলাদেশ মৈত্রী সরকারি হাসপাতালের মতো প্রতিষ্ঠানগুলোর। পরিবেশ অধিদপ্তর নিয়মিত চিঠি দিলেও হাসপাতালগুলো তরল বর্জ্য নির্গমন কমাচ্ছে না। পরিবেশ অধিদপ্তর সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, পরিবেশ অধিদপ্তর ঢাকার খাল ও নদ-নদী দূষণকারীদের যে তালিকা তৈরি করে, তাতে প্রাথমিকভাবে দূষণের ২৮০টি উৎস চিহ্নিত করা হয়। সেখানে দেখা যায় শিল্পবর্জ্যরে পাশাপাশি রাজধানীর হাসপাতালের তরল বর্জ্যও দূষণের একটি বড় উৎস। প্রতিবেদনে উল্লিখিত ২৮০টি উৎসের মধ্যে ২২০টিই ছিল হাসপাতাল। রাজধানীর হাসপাতালগুলোর তরল বর্জ্যে দূষিত হচ্ছে বুড়িগঙ্গা নদী, তুরাগ নদ, বালু নদ, রামপুরা খাল, কল্যাণপুর খাল, বেগুনবাড়ি খাল, ভাটারা খাল, হাজারীবাগ খাল, রামচন্দ্রপুর খাল, বাড্ডা খাল, আদি বুড়িগঙ্গা ও রূপনগর খাল। দূষণকারী হাসপাতালের মধ্যে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, এসপিআরসি জেনারেল হাসপাতাল, ঢাকা মহানগর হাসপাতাল, ঢাকা মহানগর শিশু হাসপাতাল, ঢাকা ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতাল, তাকওয়া স্পেশালাইজড হাসপাতাল, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল, শাহাবুদ্দিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ঢাকা কমিউনিটি হাসপাতাল, মেডিলাইফ স্পেশালাইজড হাসপাতাল, কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল, ঢাকা শিশু হাসপাতাল, গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতাল ইত্যাদির নাম উল্লেখযোগ্য।

সূত্র জানায়, রাজধানীর সরকারি হাসপাতালগুলোয় ইটিপি নেই বললেই চলে। সরকারি হাসপাতালে ইটিপি বা ছাড়পত্র নেয়ার বিষয়ে কড়াকড়ি নেই। মূলত হাসপাতাল বিবেচনায় এ বিশেষ ছাড় দেয়া হয়। যদিও পরিবেশ অধিদপ্তরের মনিটরিং অ্যান্ড এনফোর্সমেন্টের পরিচালকের দাবি, হাসপাতালে ইটিপি স্থাপনের বিষয়টি গুরুত্ব দিয়েই দেখা হচ্ছে। অভিযান চালিয়ে কয়েকটি হাসপাতালকে জরিমানা করা হয়েছে। অধিদপ্তরের উদ্যোগের পর এখন অনেক হাসপাতালই ইটিপি স্থাপন করছে। এদিকে পরিবেশ অধিদপ্তর বলছে, বেসরকারি হাসপাতালে ইটিপি স্থাপনের বিষয়ে তারা জোরালোভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এর পরও ইটিপি আছে এমন বেসরকারি হাসপাতালের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য নয়।

মূলত অভিযোগের ভিত্তিতে পরিবেশ অধিদপ্তর অভিযান চালিয়ে থাকে। সরকারি হাসপাতালের বিষয়ে কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অন্যদিকে হাসপাতালগুলো গুরুত্বপূর্ণ সেবা দিচ্ছে এমন অজুহাতে নদী-খাল দূষণের মতো পরিবেশ বিপর্যয় ডেকে আনার বিষয়টি হালকা করে দেখার কোনো সুযোগ নেই বলে মত দিয়েছেন রিভার অ্যান্ড ডেল্টা রিসার্চ সেন্টারের (আরডিআরসি) চেয়ারম্যান মোহাম্মদ এজাজ। তিনি জানান, পরিবেশ অধিদপ্তর এ ক্ষেত্রে দুটি কাজ করবে। প্রথমে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও বেসরকারিভাবে যারা ইটিপি সার্ভিস দেয় তাদের নিয়ে একসঙ্গে বসবে। তাদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেবে। এরপর একটা নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দেবে। ওই সময়ের মধ্যে যদি ইটিপি স্থাপন না করে কিংবা ছাড়পত্র না নেয় তাহলে অভিযান চালিয়ে বিদ্যুৎ-পানি ও গ্যাস লাইন বিচ্ছিন্ন করে দেবে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) প্রধান নির্বাহী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান জানান, হাসপাতাল হলো মানুষের সুস্থ হওয়ার জায়গা। কিন্তু সে হাসপাতালই যদি রাজধানীর ধুঁকে ধুঁকে টিকে থাকা জলাশয়গুলো দূষিত করে তাহলে মানুষ যাবে কোথায়? এসব দূষণের কারণে আজ আমাদের খাওয়ার পানিও নষ্ট হয়েছে। এখন পানি আনতে হয় মেঘনা থেকে। হাসপাতালের ডিসচার্জ করা পানি খেয়ে মানুষ তো আবার হাসপাতালেই যাবে। এভাবে চলতে পারে না। স্বাধীনতার ৫৩ বছর পর ঢামেক বা সরকারি বড় হাসপাতালগুলোর তরল বর্জ্যে নদী দূষণের বিষয়টি মেনে নেয়া যায় না।

এ প্রসঙ্গে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আসাদুজ্জামান জানান, হাসপাতালের বর্জ্য চিকিৎসা বর্জ্যরে শর্তগুলো মেনে সুষ্ঠুভাবে ব্যবস্থাপনা করা হয়। কোনোভাবেই নদী বা খালে বর্জ্য ফেলা হয় না। আর ইটিপির প্রয়োজন শিল্প-কারখানায়। হাসপাতালে প্রয়োজন হয় বলে আমার জানা নেই। এ বিষয়ে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরির্তনমন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরী জানান, সরকার হাসপাতালের বর্জ্য ব্যবস্থাপনার নীতিমালা নিয়ে আরো ডিটেইল কাজ করছে। নীতিমালা করে দেয়া হবে। আর তা বাস্তবায়ন করবে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় ও সিটি করপোরেশন।