December 8, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Tuesday, February 1st, 2022, 8:37 pm

ঢাকার বায়ুদূষণ রোধে ৫ জেলার ডিসিকে হাইকোর্টের তলব

ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ঢাকার বায়ুদূষণ নিয়ন্ত্রণে আদালতের দেওয়া একাধিক নির্দেশনা বাস্তবায়নে পদক্ষেপ না থাকায় আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি ৫ জেলার জেলা প্রশাসকদের (ডিসি) ভার্চুয়ালি সংযুক্ত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। ঢাকা, মানিকগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ, নরসিংদী ও নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসককে আদালতে সংযুক্ত থাকার পাশাপাশি জেলাগুলোর অবৈধ ইটভাটার তালিকা দাখিলেরও নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। এক সম্পূরক আবেদনের শুনানি নিয়ে মঙ্গলবার (১লা ফেব্রুয়ারি) বিচারপতি মো. আশফাকুল ইসলাম এবং বিচারপতি মো. ইকবাল কবিরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন সিনিয়র অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ। পরিবেশ অধিদফতরের পক্ষে অ্যাডভোকেট আমাতুল করিম, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের পক্ষে অ্যাডভোকেট মো. শাহজাহান ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের পক্ষে সিনিয়র অ্যাডভোকেট সাইদ আহেমেদ এবং ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালকের পক্ষে অ্যাডভোকেট মো. মনিরুজ্জামান শুনানি করেন। শুনানিকালে মনজিল মোরসেদ আদালতকে বলেন, বায়ু দূষণ নিয়ে হাইকোর্টের কয়েকদফা নির্দেশনা বাস্তবায়িত না হওয়ায় দূষণ মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। মিডিয়ায় রিপোর্টে এসেছেÑ অবৈধ ইটভাটা প্রশাসনের সামনে পরিচালিত হচ্ছে। কিন্তু ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। এমনকি মোটা অঙ্কের অর্থের বিনিময় করে মালিকরা অবৈধভাবে সাভার, ধামরাইয়ে ইটভাটা চালাচ্ছেন। আদালতের নির্দেশনা প্রার্থনা করে তিনি বলেন, এই রিট মামলায় ৮ বার আদালত বিভিন্নভাবে নির্দেশনাগুলো দেওয়ার পরেও বিবাদীরা কার্যকর পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ হওয়ায় নাগরিকদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়ছে। এসময় আদালত বলেন, অনেকবার আদেশ দিলেও অবস্থার উন্নতি হচ্ছে না। এমতাবস্থায় আদালত বসে থাকতে পারে না। এরপর আদালত মামলার গুরুত্ব বিবেচনায় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি শুনানির জন্য দিন নির্ধারণ করেন। এর আগে ঢাকা শহর ও আশেপাশের এলাকায় বায়ু দূষণ বন্ধে মানবাধিকার ও পরিবেশবাদী সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ (এইচআরপিবি) জনস্বার্থে হাইকোর্টে রিট দায়ের করে। এরপর ঢাকার বায়ু দূষণ রোধে কয়েকদফা নির্দেশনা দেন হাইকোর্ট। ওই রিটের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট কয়েকটি নির্দেশনা দেন। সেগুলো হলোÑ বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন হওয়ার পরে তাদের মতামত বিবেচনায় নিয়ে বায়ু দূষণ বন্ধ করতে ঢাকা শহরে পরিবহন গাড়িতে, নির্মাণাধীন এলাকায় মাটি/বালি/বর্জ্য ঢেকে রাখা, সিটি করপোরেশন কর্তৃক রাস্তায় পানি ছিটানো, রাস্তা খোড়াখুড়ি কাজে টেন্ডারের শর্ত পালন নিশ্চিত করা, কালো ধোঁয়াবাহী যানবাহন জব্দ করা ও অবৈধ ইটভাটাগুলো বন্ধ করা। তবে সেসব নির্দেশনা বাস্তবায়ন না হওয়ায় গত ৩০ জানুয়ারি হাইকোর্টে একটি সম্পূরক আবেদন দাখিল করা হয়। ওই আবেদনের সঙ্গে ঢাকা শহরের বর্তমান দূষণের মাত্রা সর্বোচ্চ পর্যায়ের অবস্থান ও অবৈধ ইটভাটা পরিচালনা সম্পর্কে মিডিয়ার সংবাদ সংযুক্ত করে ৪ দফা নির্দেশনা চাওয়া হয়।