June 19, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Sunday, October 15th, 2023, 8:16 pm

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৯তম ভিসি অধ্যাপক মাকসুদ কামাল

ফাইল ছবি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ২৯তম উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন অধ্যাপক ড. এএসএম মাকসুদ কামাল।

রবিবার (১৫ অক্টোবর) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, দুর্যোগ বিজ্ঞান ও জলবায়ু স্থিতিস্থাপক বিভাগের অধ্যাপক মাকসুদ কামালকে অস্থায়ীভাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) পরবর্তী উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন তাকে এই নিয়োগ দিয়েছেন বলে বিবৃতিতে বলা হয়েছে।

বর্তমান ভিসি মোহাম্মদ আখতারুজ্জামানের মেয়াদ শেষ হওয়ার পর ৪ নভেম্বর থেকে তিনি দায়িত্ব নেবেন।

প্রফেসর মাকসুদ কামাল ২০২০ সাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (একাডেমিক) হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

অধ্যাপক ড. মাকসুদ কামাল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় সকল স্তরে একাডেমিক ও প্রশাসনিক দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি দুর্যোগ বিজ্ঞান এবং ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান (২০১২-২০১৭) ছিলেন, যা এখন দুর্যোগ বিজ্ঞান ও জলবায়ু স্থিতিস্থাপক বিভাগ হিসেবে পরিচিত।

প্রো-ভাইস চ্যান্সেলরের ভূমিকা গ্রহণের আগে তিনি ২০১২ সাল থেকে আর্থ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সেস অনুষদের ডিন (চারবার নির্বাচিত) হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

ডিন থাকাকালীন তিনি আবহাওয়া অধিদপ্তর প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। তিনি দুই মেয়াদে (২০১৩-২০১৮) মাস্টার দা সুর্যসেন হলের প্রভোস্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

কামাল চার মেয়াদে (২০১৭-২০২০) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি এবং তিন মেয়াদে (২০১৪-২০১৬) সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

তিনি বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের সভাপতি ও মহাসচিব (২০১৫-২০১৬) হিসেবে তিন মেয়াদে (২০১৭-২০১৮, ২০১৮-২০১৯ ও ২০১৯-২০২০) দায়িত্ব পালন করেছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়াও তিনি বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট, সিন্ডিকেট ও একাডেমিক কাউন্সিলের সদস্য হিসেবে অবদান রেখে আসছেন।

ছাত্রজীবন থেকেই তিনি বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

অধ্যাপক মাকসুদ কামাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ভূতত্ত্ব বিভাগ থেকে ১৯৮৭ সালে স্নাতক ডিগ্রি নেন।

১৯৮৮ সালে তিনি একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এনভায়রনমেন্টাল জিওলজিতে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নেন। ১৯৮৮ সালে দশ বছর পর, তিনি ইউনিভার্সিটি অব টুয়েন্টি থেকে অ্যাপ্লায়েড জিওমরফোলজি অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং জিওলজিতে দ্বিতীয় স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নেন এবং ২০০৪ সালে তিনি জাপানের টোকিও ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি থেকে বিল্ট এনভায়রনমেন্টের উপর ডক্টরেট ডিগ্রি (ডক্টর অফ ইঞ্জিনিয়ারিং) নেন।

—-ইউএনবি