October 6, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Sunday, August 7th, 2022, 8:37 pm

তিস্তাপাড়ে ভাঙনে মানুষের মানবেতর জীবন

বর্ষায় ভয়াবহ বন্যার ধকল কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই ভাঙনের মুখে তিস্তাপাড়ের বাসিন্দারা। গেল সপ্তাহে বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পরপরই তীব্র ভাঙনের মুখে পড়ে কেউ কেউ রাস্তার পাশে কিংবা বাঁধের ওপর মানবেতর জীবন যাপন করছেন। ভাঙনের কবলে রয়েছে সদর উপজেলার খুনিয়াগাছ ইউনিয়ন পরিষদ, ভূমি অফিস, দুটি উচ্চ বিদ্যালয়সহ অনেক প্রতিষ্ঠান ও স্থাপনা।

স্থানীয়রা জানান, ভারতের সিকিম ও পশ্চিমবঙ্গের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে নীলফামারীর কালীগঞ্জ সীমান্ত হয়ে তিস্তা নদী বাংলাদেশে প্রবেশ করে। নদীটি লালমনিরহাট, নীলফামারী, রংপুর ও গাইবান্ধা ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী বন্দর হয়ে ব্রহ্মপুত্র নদের সঙ্গে মিশে। এর দৈর্ঘ্য প্রায় ৩১৫ কিলোমিটার হলেও বাংলাদেশ অংশে রয়েছে প্রায় ১২৫ কিলোমিটার।

অভিযোগ রয়েছে, ভারতের গজলডোবায় বাঁধ নির্মাণ করে দেশেটির সরকার একতরফা তিস্তার পানি নিয়ন্ত্রণ করায় শীতের আগেই বাংলাদেশ অংশে তিস্তা মরুভূমিতে পরিণত হয় এবং বর্ষা মৌসুমে ভয়াবহ বন্যার সৃষ্টি হয়। তবে বন্যায় সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় লালমনিরহাট।

জন্মলগ্ন থেকে তিস্তা নদী খনন না করায় পলি পড়ে নদীর তলদেশ ভরাট হয়ে গেছে। ফলে পানি প্রবাহের পথ না পেয়ে বর্ষাকালে উজানের ঢেউয়ে লালমনিরহাটসহ পাঁচ জেলায় ভয়াবহ বন্যার সৃষ্টি হয়। এ সময় নদী ভাঙনও কয়েক গুণ বেড়ে যায়। প্রতি বছরই নদী তার গতিপথ পরিবর্তন করে। ফলে লালমনিরহাটে বিস্তৃর্ণ জমি বালুময় চরাঞ্চলে পরিণত হচ্ছে।

গত এক সপ্তাহে সদরের খুনিয়াগাছ ইউনিয়নের খামারটারী ও পূর্ব কালমাটি গ্রামের প্রায় ১০ থেকে ১৫ টি বসতভিটা নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। ভাঙনের কবলে চোংগাডারা উচ্চ বিদ্যালয়, খুনিয়াগাছ ইউনিয়ন পরিষদ, ভূমি অফিস, খুনিয়াগাছ উচ্চ বিদ্যালয়সহ নানান প্রতিষ্ঠান ও স্থাপনা। এছাড়া নদীর পাড়ে নির্মাণাধীন চোংগাডারা উচ্চ বিদ্যালয়ের চার তলা বিশিষ্ট ভবনসহ শতাধিক বসত বাড়ি হুমকির মুখে রয়েছে।

পূর্ব কালমাটি গ্রামের মৃত খোরশেদের স্ত্রী মিনু বেওয়া তিন বার নদী ভাঙনের শিকার হয়ে অন্যের জমি ৩০ হাজার টাকায় বন্দক নিয়ে তিনটি ঘর করে দুই ছেলেকে নিয়ে বসবাস করছেন। সেই বসতভিটাও নদীর মুখে পড়েছে।

তিনি বলেন, এক সময় নিজের অনেক জমি ছিল। এখন দাঁড়িয়ে থাকার মত কোনো জমি নেই। নগদ টাকাও নেই তাই জমিও কিনতে পারছি না।

পাশের গ্রাম খামারটারীর আছিবি, সোনাবি, আকলিমা বলেন, রাতে ঘুমাতে পারি না। কখন যে ঘর বাড়ি নদীতে ভেঙে যায়। সেই আতঙ্কে ঘুম নেই।

আর্থিক সাহায্যের পরিবর্তে দ্রুত নদী খনন করে স্থায়ী সমাধানের দাবি করেন তারা।

শুধু খামারটারী আর পূর্ব কালমাটি নয়। ভাঙন আতঙ্কে রয়েছে তিস্তা নদীর বামতীর ঘেঁষা প্রতিটি গ্রামের মানুষ। এসব মানুষের দীর্ঘ দিনের দাবি তিস্তা নদী খনন করে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণের। যাতে অনাবাদি থাকা তিস্তার বুকের হাজার হাজার বিঘা জমি চাষাবাদের আওতায় আসে।

লালমনিরহাট পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মিজানুর রহমান বলেন, পাঁচ উপজেলা নদী বেষ্টিত হলেও এবারে তিস্তার ভাঙনটা সদর উপজেলায় কিছুটা বেশি। ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় ভাঙন রোধে জরুরি ভিত্তিতে কাজ চলমান রয়েছে। কিছু কিছু স্থানে রোধ করা সম্ভব হয়েছে। বাকিগুলোও কয়েকদিনের মধ্যে সম্পন্ন হবে।

—-ইউএনবি