August 9, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Monday, August 1st, 2022, 9:16 pm

দীর্ঘস্থায়ী বন্যায় কুলাউড়া পৌরসভায় রাস্তা ঘাটের ২৭ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি

এম. মছব্বির আলী, মৌলভীবাজার:

স্মরণকালের দীর্ঘস্থায়ী ভয়াবহ বন্যায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে কুলাউড়া পৌরসভার রাস্তা ঘাট ও ড্রেনের। পানির তোড়ে গুগালীছড়ার ৩টি স্থানে ভাঙ্গনের ফলে ফসলের অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে। দীর্ঘস্থায়ী এই বন্যায় কুলাউড়া পৌরসভার ১১ কি.মি. রাস্তার ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ২৭ কোটি টাকা বলে জানা গেছে।

সরেজমিনে কুলাউড়া পৌরসভার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, বিগত বন্যায় কুলাউড়া পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের ৩টি গ্রাম, ২নং ওয়ার্ডের ২টি গ্রাম, ৩নং ওয়ার্ডে অবস্থিত উপজেলা প্রশাসন এলাকা, সদর হাসপাতালসহ ৭টি এলাকা, ৪,৫,৬ ও ৮নং ওয়ার্ডের আংশিক এলাকা প্লাবিত হয় এবং এ বন্যা প্রায় ১ মাস দীর্ঘস্থায়ী হয়। বন্যায় ৬নং ওয়ার্ডের গুগালীছড়া খালের ৩টি স্থানে ভাঙ্গন দেখা দেয়।

ক্ষতিগ্রস্থ সড়কগুলো হচ্ছে পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের বিছরাকান্দি-সোনাপুর-বিহালা রাস্তা, সাদেকপুর গ্রামের রাস্তা, বিহালা মুহিবুর রহমান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রাস্তা, ২নং ওয়ার্ডের দেখিয়ারপুর রাস্তা, নার্সারী উত্তর পাশের্^র রাস্তা ও শিবির রোড, ৩নং ওয়ার্ডের নতুনপাড়া রাস্তা, হাসপাতাল সড়ক, উপজেলা পরিষদের রাস্তা, স্টেশন রোড, ৪নং ওয়ার্ডের মাগুরা রোড, দক্ষিণ মাগুরা রোড, ৫নং ওয়ার্ডের ভাঙ্গারী পট্টি রোড, উছলাপাড়া রাস্তা, খেলার মাঠের উত্তর পার্শে¦র রাস্তা, ৬নং ওয়ার্ডের ভোলানাথ রাস্তা, পূর্ব জয়পাশা রাস্তা, গুগালীছড়ার পশ্চিম পার্শ্বের্র রাস্তা, ৮নং ওয়ার্ডের চাতলগাঁও ঈদগাহ রোড, দক্ষিণ চাতলগাঁও রাস্তার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এসব এলাকা থেকে পানি নামায় বন্যার ভয়াবহতার চিহ্ন দৃশ্যমান হয়েছে। বন্যার পানির তোড়ে এগুলোর বিভিন্ন অংশের পীচ ও পাথর সরে গেছে, সৃষ্টি হয়েছে গর্ত অসংখ্য খানা খন্দের। এ অবস্থায় এলাকার লোকজন চরম সাথে দূর্ভোগ পোহাচ্ছেন।কুলাউড়া পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল কাইয়ূম চৌধুরী জানান, দীর্ঘস্থায়ী এই বন্যায় পৌর এলাকার শহর ও পাড়া মহল্লার বিভিন্ন রাস্তার প্রায় ১১.০০ কি.মি. ক্ষতি হয়েছে। তিনি আরো জানান, এই ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ২৭ কোটি টাকা।

পৌর মেয়র অধ্যক্ষ সিপার উদ্দিন আহমদ জানান, স্বল্প আয়ের পৌরসভার সংস্থাপন ব্যয়ভার মিটিয়ে বিদ্যমান ক্ষতিগ্রস্থ রাস্তাগুলো পুনরায় মেরামত করা পৌরসভার স্বক্ষমতার বাইরে। তিনি জানান, সরকারের উন্নয়ন সহায়তা তহবিলের প্রয়োজন।