June 13, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Thursday, March 28th, 2024, 9:04 pm

দেশের অভ্যন্তরীণ জলপথে অপরাধমূলক কর্মকান্ড বাড়ছে, বেশী হচ্ছে সিলেট অঞ্চলে

ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক:

দেশের অভ্যন্তরীণ নৌপথ অপরাধমূলক কর্মকান্ডের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে। নৌযান মালিক এবং কর্মচারীদের ডাকাতি ও চাঁদাবাজির সম্মুখীন হতে হচ্ছে। বাংলাদেশ বাল্কহেড বোট মালিক সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ তোফাজ্জল হোসেন বাদল বলেন, সিলেট থেকে ঢাকায় এক ট্রিপে প্রতিটি বাল্কহেডকে ৩০ হাজার টাকা চাঁদা দিতে হয়। একটি বাল্কহেড সিলেট থেকে ঢাকায় গড়ে প্রতি ট্রিপে ১.৫ লাখ থেকে ২ লাখ টাকা পায়। এর মধ্যে ১৫টি স্পটে চাঁদাবাজদের মোট ৩০ হাজার টাকা দিতে হয়।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ), পৌরসভা, উপজেলা পরিষদ, থানা এবং অন্যান্যের নামে চাঁদাবাজি আদায় করা হচ্ছে। দেশে ১০,০০০ বাল্কহেড রয়েছে বলে জানান তোফাজ্জল। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপথ (যাত্রী পরিবহণ) সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি বদিউজ্জামান বাদল বলেন, চাঁদপুরের বেলতলী, ৬০-নাল, মনোহরপুর ও আকলাসপুরে চাঁদাবাজরা লঞ্চ থেকে চাঁদা আদায় করে।

চারটি স্থানে বিআইডব্লিউটিএ টোলের নামে প্রতি যাত্রীর কাছ থেকে ৪০ টাকা চাঁদা আদায় করা হয় বলে তিনি দাবি করেন। সংগঠনের সভাপতি মাহবুব উদ্দিন বলেন, জুয়াড়িরা লঞ্চে জুয়া খেলে, বিশেষ করে মুন্সিগঞ্জ ও নারায়ণগঞ্জে। প্রতিবাদ করলে কর্মচারীদের ভয়াবহ পরিণতির হুমকি দেয়। এছাড়া সদরঘাটে লঞ্চ থেকে চাঁদাবাজি হয় বলেও জানান তিনি। নৌ-শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গির আলম বলেন, প্রায় দুই মাস আগে নরসিংদীতে একটি জাহাজ ছিনতাই হলেও কোনো মামলা হয়নি।

তিনি বলেন, আগের অপরাধের মাত্র ১০ দিন পর ডাকাতরা ওই এলাকায় আরেকটি জাহাজ লুট করে। জাহাজটি নারায়ণগঞ্জে নিয়ে যাওয়ার সময় আমরা (শ্রমিক) তিন ডাকাতকে ধরেছিলাম। তাদের বিরুদ্ধে আড়াইহাজার থানায় ডাকাতির মামলা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিন ডাকাত আরও সাতজন জড়িত বলে পুলিশকে জানায়। তবে পুলিশ এখনও বাকিদের গ্রেপ্তার করতে পারেনি। জাহাঙ্গির আরো বলেন, চাঁদাবাজির দিক থেকে সিলেট অঞ্চল খুবই বিপজ্জনক যার মধ্যে সবচেয়ে বেশি চাঁদাবাজি হয় সুনামগঞ্জের ছাতক ও জামালগঞ্জে। তিনি বলেন, “উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারা চাঁদাবাজদের সাথে জড়িত।

বাংলাদেশ শিপিং ওয়ার্কার্স ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক সবুজ সিকদার বলেন, চাঁদাবাজি হয় বাল্কহেড থেকে। তিনি বলেন, আমি বিষয়টি পুলিশকে জানিয়েছি, কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। তিনি আরও বলেন, রাতে ফেরিগুলোতে ডোপিং গ্যাং সক্রিয় থাকে। চাঁদপুর নদী থানার পুলিশ সুপার ছিনতাই ও চাঁদাবাজির সত্যতা স্বীকার করে বলেন, তারা প্রায়ই অপরাধীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালায়।

২০ মার্চ তারা পিয়াস ও অন্য তিন ডাকাতকে গ্রেপ্তার করে, তিনি উল্লেখ করেন যে ঈদের আগে মূলত ডাকাতি বেড়ে যায়। ডাকাত নেতারা এখন জামিনে আছে। ঈদের আগে তারা সক্রিয় হয়ে উঠতে পারে, তিনি বলেন। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে গত বুধবার বিভিন্ন নৌ যান সমিতির নেতারা নৌ পুলিশ প্রধানের কাছে তাদের দুর্দশার কথা তুলে ধরে প্রতিকার চেয়েছেন। নৌ পুলিশের প্রধান আব্দুল আলিম মাহমুদ রাজধানীতে ইউনিটের সদর দপ্তরে তার সঙ্গে দেখা করে সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দেন। নৌ-পুলিশের প্রধান আব্দুল আলিম মাহমুদ ও অতিরিক্ত মহাপরিদর্শকও বলছেন, পুলিশ ইউনিটের সদস্যরা অপরাধীদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত জবাব দেবে। আমরা ডাকাত, চাঁদাবাজ এবং জুয়াড়িদের বিরুদ্ধে জিরো-টলারেন্স নীতি বজায় রাখি।