October 5, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Friday, September 23rd, 2022, 7:24 pm

“নতুন গালি শুনে দর্শকরা আনন্দ পাবে”

অনলাইন ডেস্ক :

গল্পের প্রয়োজনে চিত্রনাট্যকার নানা দৃশ্য, সংলাপ ব্যবহার করে থাকেন। কখনো কখনো অকথ্য গালিগালাজ ব্যবহার করতেও দেখা যায়। কোনো কোনো ক্ষেত্রে এসব শব্দের ব্যবহার জরুরি বলে অনেকে দাবি করেন; তবে তা নিয়ম মেনে। ইদানীং নাটকে গালিগালাজের ব্যবহার বেড়েছে। জরুরি নয় তারপরও এমনটা ঘটছে বলে নেটিজেনদের অনেকে বিষয়টি নিয়ে সমালোচনা করছেন। নাটক-সিনেমায় গালিগালাজের বিষয়টি নিয়ে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন অভিনেতা-নাট্যকার ফারুক আহমেদ। তাতে একটি গল্পের অবতারণ করেছেন। এ লেখার শুরুতে তিনি বলেন ‘আমার এক বন্ধু, টুকটাক লেখালেখি করে। দিনকয়েক আগে হঠাৎ গেলাম তার বাসায়। দেখি ড্রংয়িং রুমের এক কোণায় বসে সে কী যেন লেখালেখি করছে। আমি তাকে জিজ্ঞাসা করলাম, কী লিখছিস? সে বললো, বই। আমি আগ্রহ নিয়ে তাকে আবার জিজ্ঞাসা করলাম, কীসের বই? উপন্যাস? নাকি কবিতার? সে বললো, না উপন্যাসও না কবিতাও না। আমি অবাক হয়ে বন্ধুকে পুনরায় জিজ্ঞাসা করলাম, তাহলে কীসের বই? সে বললো, আমার বইয়ের নাম ‘আধুনিক গালি শিক্ষা’। তার বইয়ের নাম শুনে আমার মাথা চক্কর দিয়ে উঠলো।’ ‘আধুনিক গালি শিক্ষা’ বইয়ের বিষয়বস্তু বর্ণনা করে ফারুক আহমেদ বলেন, ‘আমি দ্রুত তার পাশের চেয়ারে বসে পড়লাম। তারপর বললাম, আধুনিক গালি শিক্ষা? মানে কি? সে বললো, মানে অতি সহজ। বর্তমান সময়ে নাটক-সিনেমার সংলাপে যে পরিমাণ গালি ব্যবহার হচ্ছে, আমার ধারণা তাতে একসময় গালির স্বল্পতা দেখা দিবে। ফলে বাধ্য হয়ে নাটক-সিনেমায় একই গালি বারবার ব্যবহার করতে হবে। আর একই গালি বারবার ব্যবহারের কারণে দর্শকরাও বিরক্ত হবে। তাই দর্শকদের কথা বিবেচনা করে আমি নতুন এবং মানসম্মত আধুনিক কিছু গালি লেখার চেষ্টা করছি।’ ‘তুই শুনে খুশি হবি যে, আমি বিলুপ্তপ্রায় গালিও পুনরুদ্ধারের চেষ্টা করছি। ইতোমধ্যে প্রায় দেড়শ গালি পুনরুদ্ধার করেছি। আমি মনে করি এই বইটি নাট্যকার ও অভিনেতাদের অনেক উপকারে আসবে। তারা অতি সাচ্ছন্দ্যের সাথে সংলাপে নতুন নতুন গালি ব্যবহার করতে পারবে। দর্শকরাও নাটক-সিনেমায় নতুন গালি শুনে আনন্দ পাবে। আমি আমার বন্ধুর গালি বিষয়ে দীর্ঘ বক্তৃতা শুনে হতবাক।’ বলেন ফারুক আহমেদ।