October 6, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Sunday, August 28th, 2022, 1:38 pm

নেপাল থেকে বিদ্যু কিনতে ভারতীয় কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি করবে বাংলাদেশ

বাংলাদেশ ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কিনতে ভারতীয় কোম্পানি জিএমআর কারনালি হাইড্রোপাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড এবং এনটিপিসি বিদ্যুৎ ভাইপার নিগাম (এনভিভিএন) এর সঙ্গে পাওয়ার পার্সেজ অ্যাগ্রিমেন্ট(পিপিএ) চুক্তি করবে।

কাঠমান্ডুভিত্তিক নিউজ পোর্টাল উর্জা খবর নেপালের বিদ্যুৎ, পানি ও সেচ মন্ত্রণালয়ের উদ্ধৃতি দিয়ে এক খবরে জানায়, গত বৃহস্পতিবার দুই দেশের মধ্যে একটি জয়েন্ট স্টিয়ারিং মিটিং হয়েছে যেখানে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে ভারতীয় কোম্পানির সঙ্গে পিপিএ সাক্ষর করার অঙ্গীকার করা হয়।

আশা করা হচ্ছে, সেপ্টেম্বরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিল্লি সফরের সময় এই চুক্তি সাক্ষর হবে।

পিপিএ চুক্তি বাংলাদেশ-নেপালের আন্তঃসীমান্ত শক্তি বাণিজ্য পরিচালনার একটি কৌশলগত পদক্ষেপ। বাংলাদেশ ধারাবাহিকভাবে নেপাল থেকে বিদ্যুৎ কেনার আগ্রহ দেখিয়ে আসছে।

দেশের অভ্যন্তরীণ শিল্প পর্যবেক্ষকরা বলেন, ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি দেশের বর্তমান উৎপাদন ক্ষমতা ২৫০০০ মেগাওয়াটের সঙ্গে যুক্ত হবে, যার ৪০ শতাংশ অব্যবহৃত রয়েছে। যখন জ্বালানি সংকটের কারণে দৈনিক রেশনিং করে ২০০০ মেগাওয়াট লোডশেডিং দিতে হচ্ছে।

তারা আরও বলছে, বাংলাদেশ নেপাল থেকে বিদ্যুৎ আমদানি করবে, পিপিএ চুক্তির আওতায় ভারতীয় কোম্পানি জিএমআর নেপালে বিদ্যুৎ উৎপাদন করবে এবং এনভিভিএন ভারতীয় এলাকার মধ্যদিয়ে দিয়ে বাংলাদেশে সরবরাহ করবে।

তারা বলেছে, ঢাকা ও দিল্লির দ্বিপক্ষীয় চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশ যদি নেপাল থেকে বিদ্যুৎ আমদানি করতে চায় তাহলে তা ভারতীয় এলাকা দিয়ে নিতে হবে। আর এটি ভারতীয় কোম্পানি থেকে ক্রয় করতে হবে।

দিল্লিভিত্তিক জিএমআর গ্রুপের ভর্তুকিভিত্তিক জিএমআর কারনিল হাইড্রোপাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড আর ভারত সরকারের রাষ্ট্রমালিকানাধীন এনটিপিসি লিমিটেড কর্তৃক ২০০২ সালে প্রতিষ্ঠিত

এনভিভিএন দেশটির একটি বিদ্যুৎ ব্যবসায়ী কোম্পানি।

এতে উল্লেখ করা হয় যে সরকারের ক্রয়সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটি ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে নেপাল থেকে ভারতীয় কোম্পানির ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানিতে বিদ্যুৎ বিভাগের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়।

ভারতীয় রেগুলেটরি কমিশনের শর্তাবলী মেনে ভারতীয় কোম্পানি এনভিভিএন –এর মাধ্যমে ওই বিদ্যুৎ আমদানি করা হবে।

প্রস্তাবনা অনুযায়ী, বাংলাদেশ ২৫ বছরের জন্য প্রতি কিলোওয়াট মার্কিন ৭.৭ ডলার মূল্য দিয়ে ভারতীয় জিএমআর এর উৎপাদন কেন্দ্র থেকে বিদ্যুৎ আমদানি করবে।

জ্বালানি বিভাগ সূত্র বলছে, এই আমদানি খরচ বাবদ সর্বমোট ৪০ হাজার কোটি ডলার এনভিভিএন –এর মাধ্যমে জিএমআরকে আমদানিকালীন সময়ে পরিশোধ করতে হবে।

২০১৮ সালের বিদ্যুৎ ও জ্বালানি দ্রুত সরবরাহ বৃদ্ধি আইন অনুযায়ী এনভিভিএন এর মাধ্যমে জিএমআর থেকে বিদ্যুৎ আমদানি চুক্তি সাক্ষর করবে বিপিডিবি।

নেপালের নিউজ পোর্টালটি প্রতিবেদনে জানায়, বৃহস্পতিবার জ্বালানি সহযোগিতার আওতায় দ্বিপক্ষীয় পাঁচ বিষয়ে সমঝোতায় পৌঁছায় দেশ দুটি।

আলোচনায় সম্ভাব্যতার কথা বলা হয়েছে যে বাংলাদেশ প্রাথমিক পর্যায়ে নেপাল থেকে ৪০-৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানির জন্য ভেড়ামারা পাওয়ার প্ল্যান্টে তার উচ্চ ভোল্টেজ সরাসরি বর্তমান কাঠামোর অপ্রয়োজনীয় ক্ষমতা ব্যবহার করতে পারে।

এই সম্ভাব্যতার জায়গায় দু’দেশের জ্বালানি কর্তৃপক্ষ নেপাল ইলেকট্রিসিটি অথরিটি ও বাংলাদেশ পাওয়ার ডেভেলপমেন্ট বোর্ড ভারতীয়

এনভিভিএন-কে ত্রিপক্ষীয় চুক্তি সাক্ষরের অনুরোধ করবে।

একইভাবে নেপাল ৬৮৩ এমডব্লিউ সানকোসি-৩ হাইড্রোপাওয়ার প্রজেক্টের পরিবেশ মূল্যায়নের প্রতিবেদন বাংলাদেশকে দিবে। এই বিষয়ে, বাংলাদেশ প্রকল্পের নির্মাণকাজ এগিয়ে নিতে একটি যৌথ দল গঠন ত্বরান্বিত করার জন্য শিগগিরই প্রতিবেদনে প্রয়োজনীয় মন্তব্য করতে সম্মত হয়েছে।

বৈঠক সূত্রে উর্জা জানায়, বৃহস্পতিবারের বৈঠকে দুই দেশের সম্মতিতে নেপাল, বাংলাদেশ ও ভারতের ভূমিতে একটি ডেডিকেটেড ট্রান্সমিশন লাইন নির্মাণে নবায়নযোগ্য জ্বালানি, সোলার হোম সিস্টেমসহ সহযোগিতার জন্য একটি চুক্তির খসড়া প্রস্তুত, প্রশিক্ষণ প্রদানে সহযোগিতা এবং দ্বিপক্ষীয় সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য একটি ভবিষ্যত নির্দেশিকা

তৈরি করতে ভারতের সঙ্গে একটি ত্রিপক্ষীয় চুক্তি করতে চায়।

—ইউএনবি