June 15, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Thursday, April 4th, 2024, 9:25 pm

পরিবেশ-বান্ধব পয়োবর্জ্য নিষ্কাশন ব্যবস্থা চালু করতে যাচ্ছে ডিএনসিসি

ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক:

রাজধানীর বাসাবাড়িতে বিদ্যমান পয়োনিষ্কাশন ব্যবস্থায় বদল আনতে চায় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। রাজধানীবাসীর পয়োবর্জ্যের নিষ্কাশন নিরাপদ ও পরিবেশবান্ধব করার জন্য একটি পথনকশা (রোডম্যাপ) প্রস্তুত করেছে সংস্থাটি। পয়োবর্জ্য নিষ্কাশন উন্নতির জন্য ঢাকার করাইল বস্তি এবং গুলশান লেক এলাকায় হতে যাচ্ছে পরিবেশ-বান্ধব পয়োবর্জ্য শোধনাগার। ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) এবং ইউনিসেফ যৌথভাবে এই প্ল্যান্ট স্থাপন করবে। যেটির মূল উদ্দেশ্য বাসাবাড়িসহ যেখানে পয়োবর্জ্য উৎপন্ন (অনসাইট) হবে, সেখানেই সেপটিক ট্যাংকসহ পয়োবর্জ্য ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলা।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, পাইলট ভিত্তিতে দুটি প্ল্যান্ট স্থাপন করা হবে এবং পানি দূষণ রোধে পরীক্ষা-নিরীক্ষা সফল হলে ঢাকা উত্তরের সব এলাকায় মডেলটি প্রয়োগ করা হবে। ডিএনসিসির কর্মকর্তারা জানান, তারা করাইলে প্রকৃতিভিত্তিক সমাধান ব্যবহার করে একটি প্লান্ট স্থাপন করবেন এবং গুলশান লেকে অনসাইট মিনি স্যুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট স্থাপন করবেন যার জন্য কমপক্ষে ১ কোটি টাকা লাগবে।

ডিএনসিসি ইতিমধ্যে প্রয়োজনীয় জমি পেয়েছে, বিস্তারিত নকশা প্রস্তুত করেছে এবং প্ল্যান্ট স্থাপনের জন্য ঠিকাদার নিয়োগ করেছে। ঢাকা ওয়াটার সাপ্লাই অ্যান্ড স্যুয়ারেজ অথরিটির সূত্র জানায়, রাজধানীর ২০% এলাকায় তাদের পয়ঃনিষ্কাশন লাইন রয়েছে এবং মাত্র ৫% পয়ঃবর্জ্য পরিশোধন করতে পারে, যার মানে ৯৫% মানব বর্জ্য পানির উৎসে যাচ্ছে। কাদা পানিকে দূষিত করছে এবং জনস্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ঝুঁকি তৈরি করছে। আলাপকালে ডিএনসিসির বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী এসএম শফিকুর রহমান জানান, খুব শিগগিরই তারা পানি শোধনাগার নির্মাণের কাজ শুরু করবেন। তিনি বলেন, “প্রকৃতি-ভিত্তিক সমাধান (এনবিএস) সহ প্ল্যান্টটি করাইল বস্তির ৪০০টি পরিবারকে কভার করবে। আমরা বর্জ্য জল শোধন করতে কোনো ধরনের রাসায়নিক ব্যবহার করব না।

বরং প্রাকৃতিক উপায়ে বিভিন্ন পর্যায়ে পানি ফিল্টার করব। এনবিএস সিস্টেমে অনেক গাছপালা রয়েছে যা বিষাক্ত পদার্থ শোষণ করে।” ডিএনসিসি কর্মকর্তারা জানান, গুলশান সোসাইটি মসজিদের কাছে গুলশান লেকে একটি প্ল্যান্ট স্থাপন করা হবে। কর্মকর্তারা জানান, বন্যা বা জলাবদ্ধতা রোধে বৃষ্টির পানি ধরে রাখতে গুলশান ও বনানী মডেল টাউন প্রকল্পের আওতায় ১৯৯২ সালে বনানী ও গুলশান লেক খনন করা হয়। কিন্তু দ্রুত নগরায়নের কারণে, একটি একক পরিবারের জন্য বরাদ্দকৃত আবাসিক প্লটগুলিকে ২০টি পরিবারের অ্যাপার্টমেন্টের এলাকায় রূপান্তরিত করা হয়েছিল, যার ফলে ভূগর্ভস্থ জলের রিচার্জ হ্রাস, ভূপৃষ্ঠের জলের প্রবাহ বৃদ্ধি এবং বর্জ্য জলের উৎপাদন ২০ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে, যা হ্রদে জমা হয়। তারা আরও বলেন, প্রতিদিন টন টন অপরিশোধিত মানব স্লাজ এবং রান্নাঘরের পানি লেকে জমা হয়ে এর পানিকে দূষিত করছে।

ক্রমাগত দূষণ হ্রদটিকে মশার প্রজননক্ষেত্রে পরিণত করছে এবং মাছ ও অন্যান্য মশলার জন্য মৃত্যুশয্যায় পরিণত করছে। শফিকুর বলেন, ইউনিসেফ এবং বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন (বিএমজিএফ) গাছগুলির জন্য ডিএনসিসিকে প্রযুক্তিগত এবং আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে যা প্রতিদিন প্রায় ৩০,০০০ লিটার ঘরোয়া বর্জ্য জল পরিশোধন করতে পারে এবং প্ল্যান্টেশন বা বাগানে পুনরায় ব্যবহার করা যেতে পারে।

তিনি বলেন, “ঢাকা সেনানিবাস, নৌবাহিনী সদর দপ্তর এবং বনানী আবাসিক এলাকার কিছু অংশ জুড়ে একটি ড্রেনেজ নেটওয়ার্ক, যা বর্জ্য পানির প্রধান উৎস, গুলশান লেকের দিকে নিয়ে যায়। আমরা এই পয়েন্টে একটি প্ল্যান্ট তৈরি করব। এর জন্য প্রয়োজন অল্প একটু জমি। মে মাস থেকে পানি বিশুদ্ধকরণ কার্যক্রম শুরু করার লক্ষ্য রয়েছে। এটি সম্পূর্ণরূপে রাসায়নিক মুক্ত, পরিবেশ-বান্ধব, সহজ এবং কম রক্ষণাবেক্ষণ খরচ সহ সাশ্রয়ী প্রযুক্তি। যদি পাইলট প্রকল্পটি সফল হয় এবং স্থানীয় বাসিন্দারা এর থেকে উপকৃত হয় তবে ডিএনসিসি পুরো লেকের পানি বিশুদ্ধ করার অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে বড় এবং দীর্ঘমেয়াদী প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে, যা দূষণমুক্ত পরিবেশ প্রদান করে স্থানীয় জনগণকে উপকৃত করবে। এবং মাছের আবাসস্থল।

ঢাকায় বর্তমানে ৯৩৪ কিলোমিটার পয়োনালা রয়েছে। ৮০ শতাংশের বেশি এলাকায় পয়োবর্জ্য নিষ্কাশনের ব্যবস্থা নেই। বিদ্যমান পয়োনালাগুলোর বেশির ভাগ অকেজো। বিভিন্ন এলাকার পয়োবর্জ্য জমা করার ব্যবস্থা কাজ করে না। তবে ঢাকা ওয়াসা কর্তৃপক্ষ দাবি করে, ঢাকার ২০ ভাগ পয়োবর্জ্য শোধন করা হচ্ছে। বাস্তবে রাজধানীর ২ ভাগের কম পয়োবর্জ্য পরিশোধন হচ্ছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে মুজিবুর রহমানের গবেষণাপত্রে। অধিকাংশ পয়োবর্জ্য কোনো না কোনো পথে খাল ও নদীতে যাচ্ছে।