November 27, 2021

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Monday, August 23rd, 2021, 8:01 pm

পূজারার রেকর্ড ভাঙলেন ফাওয়াদ

নিজস্ব প্রতিবেদক :

জাতীয় দলে অভিষেকের মাত্র কয়েক ম্যাচ পরই দল থেকে বাদ পড়েন। এরপর টানা ১১ বছর আর সুযোগ মেলেনি। এত দীর্ঘ সময় দলের বাহিরে থাকলে একজন ক্রিকেটারের ক্যারিয়ার এমনিতেই শেষ হয়ে যায়। কিন্তু ফাওয়াদ আলম ব্যতিক্রম। পাকিস্তানি এই ব্যাটসম্যান জাতীয় দলের বাহিরে থাকলেও কখনো ধৈর্য্য হারা হননি। দীর্ঘ ১১ বছর পর দলে ফিরেছেন এবং দুর্দান্তভাবেই। এবার ভেঙে ফেললেন ভারতের চেতেশ্বর পূজারার রেকর্ড। জ্যামাইকার কিংস্টনে স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে চলমান টেস্ট সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ ম্যাচে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ফাওয়াদ আলমের অপরাজিত ১২৪ রানের ওপর ভর করে ৩০২ রান সংগ্রহ করেছে সফরকারী পাকিস্তান। ২১৩ বল মোকাবিলায় করা তার এই ইনিংসটি ক্যারিয়ারের পঞ্চম সেঞ্চুরি। এর মধ্য দিয়ে তিনি এশিয়ান ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সবচেয়ে কম ইনিংস খেলে সর্বোচ্চ পাঁচটি সেঞ্চুরির মালিক বনে গেলেন। ২০০৯ সালে অভিষেক ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে ১৬ রান করেন ফাওয়াদ আলম। দ্বিতীয় ইনিংসেই ১৬৮ রানের দুর্দান্ত সেঞ্চুরি হাঁকান। পরের দুই ম্যাচে তার রান যথাক্রমে ১৬, ১৬, ২৯ ও ৫। কিন্তু এরপরই দল থেকে বাদ পড়েন। দীর্ঘ ১১ বছর পর ২০২০ সালে ফিরেন। কিন্তু প্রত্যাবর্তনের ইনিংসে ০ রানে আউট হয়ে শুরুতেই হতাশ করেন এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। পরের তিন ইনিংসেও খুব একটা সুবিধা করতে পারেননি। রান করে যথাক্রমে ২১, অপরাজিত ০ ও ৯। তবে দল তার ওপর ভরসা হারাননি। সেটিরই যেন প্রতিদান দিচ্ছেন এবার। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ক্যারিয়ারের ষষ্ঠ টেস্টে ১০২ রানের ইনিংস খেলেন ফাওয়াদ। পরের দুই সিরিজে দক্ষিণ আফ্রিকা ও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেও পেয়ে যান সেঞ্চুরি। করেন যথাক্রমে ১০৯ ও ১৪০ রান। এবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে অপরাজিত ১২৪ রান করার মধ্য দিয়ে টানা ৪টি টেস্ট সিরিজে সেঞ্চুরি হাঁকালেন তিনি। ইনিংস বিবেচনায় এশিয়ান ক্রিকেটারদের মধ্যে দ্রুততম টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম পাঁচ সেঞ্চুরি হাঁকানোর তালিকায় এতদিন শীর্ষে ছিলেন চেতেশ্বর পূজারা। ভারতীয় এই ব্যাটনম্যান ২৪ ইনিংসে প্রথম পাঁচটি সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিলেন। ফাওয়াদ আলম সেটি মাত্র ২২ ইনিংসেই করলেন। তালিকায় থাকা অন্যরা হলেন- ভারতীয় কিংবদন্তি সৌরভ গাঙ্গুলী ও সুনীল গাভাস্কার। তারা ২৫ ইনিংসে এই কীর্তি গড়েছিলেন।