December 5, 2021

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Monday, October 4th, 2021, 5:40 pm

প্যান্ডোরা পেপারস প্রকাশ : প্রভাবশালীদের অর্থনৈতিক কেলেঙ্কারির তথ্য ফাঁস

অনলাইন ডেস্ক :

পানামা পেপারসের মতো এবার বিশ্বজুড়ে অর্থনৈতিক কেলেঙ্কারির গোমর ফাঁস করল ‘প্যান্ডোরা পেপারস’। কর ফাঁকি দিয়ে বিদেশে অর্থ পাচার ও অর্থনৈতিক লেনদেনের গোপনীয়তার ওপর বিশদভাবে ‘প্যান্ডোরা পেপারস’ নামে এ প্রতিবেদন তৈরি করেছে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসিভিত্তিক আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের সংগঠন ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম অব ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিস্টস (আইসিআইজে)। স্থানীয় সময় গত রোববার প্রকাশিত প্রতিবেদনে উঠে এসেছে যুক্তরাজ্যের সাবেক প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার ও তার স্ত্রী চেরি ব্লেয়ার থেকে জর্ডানের বাদশাহ দ্বিতীয় আবদুল্লাহর দুর্নীতির চিত্র। এ ছাড়া আজারবাইজান ও ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট, বর্তমান এবং সাবেক ৩৫ রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধানের অর্থনৈতিক কেলেঙ্কারির তথ্য ফাঁস হয়েছে। গত রোববার আইসিআইজে এক টুইটবার্তায় জানায়, বিভিন্ন মাধ্যমে গোপনে সংগ্রহ করা এক কোটি ১৯ লাখ নথি পর্যালোচনা করে প্যান্ডোরা পেপারস তৈরি করা হেেয়েছ। ১১৭টি দেশের ছয় শতাধিক সাংবাদিক এ বিশাল কর্মযজ্ঞে যুক্ত রয়েছেন। বিশ্বের প্রায় সব দেশ ও অঞ্চলের অর্থনৈতিক কেলেঙ্কারির চিত্র উঠে এসেছে তাদের প্রতিবেদনে। প্যান্ডোরা পেপারস কেলেঙ্কারির সঙ্গে আরও যাদের নাম জড়িয়েছে, তাদের মধ্যে রয়েছেন- রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের বেশ কয়েকজন ঘনিষ্ঠ ও প্রভাবশালী ব্যক্তি। এর মধ্যে গেনাডি তিমচেঙ্কোর অন্যতম। এ ছাড়া পুতিনের খুবই ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত প্রভাবশালী নারী স্লেটলানা ক্রিভোনোগিখের নামও রয়েছে। তারা পুতিনের প্রভাবকে কাজে লাগিয়ে রাশিয়া থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করে বিদেশে পাচার করেছেন। আরব বিশ্বের দীর্ঘকাল ক্ষমতাসীন রাজা জর্ডানের বাদশাহ দ্বিতীয় আবদুল্লাহ নিজে দানশীল হিসেবে পরিচিত। সেই তিনিই নিজ দেশের সম্পদ বিদেশে পাচার করে ক্যালিফোর্নিয়া, ওয়াশিংটন, লন্ডনসহ বড় বড় শহরে বিলাসবহুল ভবন কিনেছেন বলে প্যান্ডোরা পেপারসে উঠে এসেছে। এদিকে পাকিস্তানের অর্থমন্ত্রী শওকত তারিনসহ দেশটির প্রায় ৭০০ ব্যক্তির নাম এসেছে প্যান্ডোরা পেপারসে। তাদের বেশিরভাগই অফশোর কোম্পানির মাধ্যমে বিদেশে প্রচুর সম্পদ গড়ে তুলেছেন। পাচারের অর্থে করমুক্ত কোম্পানি (ট্যাপ হ্যাভেন) পরিচালনার জন্য বিশ্বে বহুল আলোচিত ও সমালোচিত দেশ পানামা, সুইজারল্যান্ড ও বেশ কিছু দ্বীপ-দেশ। এর আগে ২০১৬ সালে প্রকাশিত পানামা পেপারসে দেখা গিয়েছিল দুর্নীতির বৈশ্বিক চিত্র। পানামা পেপারস প্রকাশের পর বিভিন্ন দেশের সরকারপ্রধানসহ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের অর্থ পাচারের চিত্র সামনে আসে। এর ধাক্কায় আয়ারল্যান্ড ও পাকিস্তানের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীরা ধরাশায়ী হন। আইসিআইজে গত রোববার টুইটবার্তায় ইঙ্গিত দিয়েছে, অর্থনৈতিক অস্বচ্ছতার জন্য এবারও বড় বড় মুখ বিপাকে পড়েছেন। এবার অন্যতম বড় মুখ চেক প্রজাতন্ত্রের প্রধানমন্ত্রী আনদ্রেজ বাসিস। ১৩ মিলিয়ন ডলার পাচার করে ফ্রান্সে বিলাসবহুল বাড়ি কেনার অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে। করমুক্ত কোম্পানি পরিচালনার সুযোগ থাকায় বিশ্বজুড়ে বিশেষ পরিচিতি রয়েছে পানামার। দেশটি এখনও ইউরোপীয় ইউনিয়নের ট্যাপ হ্যাভেন লিস্টে রয়েছে। ফলে প্যান্ডোরা পেপারসেও ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয়েছে দেশটির সরকারের। এরইমধ্যে আইসিআইজের কাছে তারা চিঠি লিখেছে। চিঠিতে তারা অনুরোধ করেছে, পানামা সম্পর্কে বিশ্বের মানুষের ভুল ধারণা তৈরি হয়, এমন কোনো কাজ যেন না করা হয়। তবে এ বিষয়ে কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি সংস্থাটি। বিভিন্ন দেশ থেকে পাচার হওয়া বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার দিয়ে গড়ে ওঠে অফশোর শেল কোম্পানি। নিজ দেশকে ফাঁকি দিয়ে বড় বড় ব্যবসায়ী, রাজনীতিক, সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধান, রাজপরিবারের সদস্য, বিনোদন ও ক্রীড়াজগতের তারকারা এসব কোম্পানিতে বিনিয়োগ করেন। পানামার মতো দেশে গড়ে তোলেন সম্পদের পাহাড়। আইসিআইজের বিশদ অনুসন্ধানে উঠে এসেছে সেই চিত্র।