July 18, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Tuesday, January 30th, 2024, 10:00 pm

প্রতিবেশী দেশে দামে বড় পার্থক্য, অবাধে পাচার হচ্ছে ডিজেল

ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক:

পার্শ্ববর্তী দেশের সঙ্গে বাংলাদেশের ডিজেলের দামের বড় পার্থক্যের কারণে অবাধে পাচার হচ্ছে এই জ্বালানি তেল। বৈদেশিক মুদ্রায় কেনা জ্বালানি তেল টাকায় দেদার পাচার হয়ে যাচ্ছে অন্য দেশে। সীমান্ত এলাকায় বহু বছর ধরে চোরাচালান চললেও অতীতে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থার নজির খুবই কম। এতে সংশ্লিষ্টদের মধ্যে উদ্বেগ বাড়ছে। বাংলাদেশ এবং এর প্রতিবেশী দেশগুলির মধ্যে জ্বালানি তেলের বাজারে মূল্যের পার্থক্য এই পাচারের জন্য মূলত দায়ী।

বিশেষজ্ঞরা চোরাচালানকে নিরুৎসাহিত করতে প্রতিবেশী দেশগুলির সাথে সামঞ্জস্য রেখে মূল্য নির্ধারণের পরামর্শ দেন। বিশেষ করে ডিজেলের, যেখানে ভারত ও মায়ানমারের বিভিন্ন প্রদেশের তুলনায় বাংলাদেশে এটি কম দামে বিক্রি হয়। এই সমস্যাটি মোকাবেলা করার জন্য, স্টেকহোল্ডাররা আন্তর্জাতিক বাজারের সাথে স্বয়ংক্রিয় মূল্য সমন্বয় সহজ করার জন্য চালান-ভিত্তিক শুল্ক মূল্যায়নের সাথে বর্তমান শুল্ক-ভিত্তিক মূল্যের পরিবর্তে পেট্রোলিয়াম জ্বালানির জন্য একটি চালান-ভিত্তিক মূল্য নির্ধারণের ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছে। তারা উল্লেখ করেছে যে বর্তমান মূল্য নির্ধারণের সূত্রটি জ্বালানি তেলের শুল্ক মূল্যের উপর ভিত্তি করে শুল্ক নির্ধারণের উপর নির্ভর করে।

দুর্ভাগ্যবশত, বিদ্যমান সূত্রটি তেল চোরাচালান রোধ করতে ব্যর্থ হয় এবং প্রস্তাবিত স্বয়ংক্রিয় মূল্য নির্ধারণের প্রক্রিয়াটি অবাস্তব থেকে যায়। এটি প্রাথমিকভাবে শুল্ক মূল্যের উপর শুল্ক মূল্যায়নের মাধ্যমে মূল্য নির্ধারণের কারণে হয়েছে, চালান মূল্যের উপর শুল্ক প্রদানের পরিবর্তে ব্যারেল প্রতি ৪০ ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে। জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশ ইতিমধ্যেই ডলার সংকটে ভুগছে এবং ডিজেল চোরাচালান বন্ধ থাকলে পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে। বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) ডিজেলের দামে ভর্তুকি প্রদান করছে, তারা বলেছে যে ডলার সংকট প্রশমিত করতে এবং বিপিসির ভর্তুকি কমাতে, প্রতিবেশী দেশগুলির সাথে সামঞ্জস্য রেখে ডিজেলের দামের সমন্বয় একটি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ হতে পারে।  তা না হলে কোনোভাবেই চোরাচালান বন্ধ করা যাবে না বলে জানান তারা।

পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, ডলারের রিজার্ভ এবং জ্বালানি শক্তির মধ্যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। তেলের চাহিদা বাড়লে ডলারের ওপর চাপ পড়ে, যোগ করেন তিনি। অতীতেও বাংলাদেশ থেকে জ্বালানি তেল চোরাচালানের অভিযোগ ছিল উল্লেখ করে এই অর্থনীতিবিদ বলেন, প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে তাল মিলিয়ে দাম নির্ধারণ করা না হলে এ সমস্যা কখনোই শেষ হবে না। মনসুর বলেন, ডলার সংকট বিবেচনায় নিয়ে আন্তর্জাতিক বাজারের পাশাপাশি প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে জ্বালানির দাম নির্ধারণ করা জরুরি।

এই বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ আরও বলেছেন, যে বিশ্ব বাজারের সাথে সামঞ্জস্য রেখে মূল্য ব্যবস্থা নির্ধারণ করা হলে এটি সর্বোত্তম অনুশীলন হবে। এটি চালু হলে, আন্তর্জাতিক মূল্য নির্ধারণ অভ্যন্তরীণ বাজারে কার্যকর হবে এবং চোরাচালানের ঝুঁকি উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পাবে, তিনি যোগ করেন। বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের তথ্য অনুসারে, সরকার জ্বালানি তেল আমদানিতে বছরে প্রায় ৫ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করে, যেখানে মোট আমদানিকৃত জ্বালানি তেলের ৭০% এর বেশি ডিজেল। এই রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সংস্থাটি দেশের দৈনিক চাহিদা মেটাতে প্রায় ১৫,০০০ টন ডিজেল সরবরাহ করে এবং পুরোটাই আমদানি করা হয়। ফলস্বরূপ, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের উপর ক্রমাগত চাপ বাড়ছে। বাংলাদেশে বর্তমানে প্রতি লিটার ডিজেল বিক্রি হচ্ছে ১০৯ টাকায়।

এদিকে, ২৮ জানুয়ারির সর্বশেষ তথ্য অনুসারে, পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন অংশে ডিজেল প্রতি লিটারে ৯২.৭৬ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, যা প্রায় ১২৩.৩৭ টাকার সমান। বাংলাদেশ থেকে কলকাতায় প্রতি লিটার ডিজেলের দাম প্রায় ১৪.৩৭ টাকা বেশি। দক্ষিণ ত্রিপুরায়, দেশের সীমান্তবর্তী আরেকটি ভারতীয় শহর, ডিজেল প্রতি লিটার ৮৯.২৭ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, যা প্রায় ১১৮.৭২ টাকা। এভাবে ত্রিপুরায়ও ডিজেলের দাম বাংলাদেশের চেয়ে লিটার প্রতি প্রায় ৯.৭২ টাকা বেশি। আগরতলায় ডিজেলের দাম প্রতি লিটার ৮৮.৪৪ টাকা, যা ১১৭.৬২ টাকার সমান। সে অনুযায়ী আগরতলায় ডিজেলের দাম বাংলাদেশের তুলনায় প্রায় ৮.৬২ টাকা বেশি মিয়ানমারে বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রতি লিটার ডিজেলের দাম ১৩০ টাকা, যা বাংলাদেশের তুলনায় অন্তত ২১ টাকা বেশি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিপিসির একজন কর্মকর্তা বলেন, “বছরের বিভিন্ন সময়ে ডিজেলের চাহিদা গড় চাহিদার তুলনায় কম থাকলেও কোনো যুক্তিসঙ্গত কারণ ছাড়াই চাহিদা বেড়ে যায়, যা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের মনে নানা প্রশ্নের জন্ম দেয়। তিনি আরও বলেছিলেন যে বিপিসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ডিজেলের বর্তমান চাহিদা সম্পর্কে উদ্বিগ্ন, এই সমস্যাটি সমাধানের জন্য কর্পোরেশনে একটি বৈঠকে নেতৃত্ব দেয়। বৈঠকে ধারাবাহিকভাবে বাজার মনিটরিং এবং সীমান্ত এলাকার প্রয়োজনীয়তা মূল্যায়নের সিদ্ধান্ত হয়। বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের চেয়ারম্যান এবিএম আজাদ ডিজেল পাচার নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে উল্লেখ করেন, বাংলাদেশের তুলনায় প্রতিবেশী দেশগুলোতে ডিজেলের দাম বেশি। তিনি বলেন, তিন দিকে সীমান্ত থাকায় দামের পার্থক্য চোরাচালান রোধে চ্যালেঞ্জ তৈরি করে। আমরা সীমান্তবর্তী জেলাগুলোর প্রশাসক, স্বরাষ্ট্র ও জ্বালানি মন্ত্রণালয়কে ডিজেল পাচার রোধে উদ্যোগ নিতে বলেছি।

কিভাবে ডিজেল পাচার হয়
বেনাপোল কাস্টম হাউস সূত্রে জানা গেছে, এ স্থলবন্দর দিয়ে প্রতিদিন গড়ে ৪৫০ থেকে ৫০০ ট্রাক ও লরি অন্যান্য দেশ থেকে পণ্যবাহী বাংলাদেশে প্রবেশ করে। মালামাল খালাস করার সময় তারা খালি ট্যাংক ও পরিবহন তেল নিয়ে বাংলাদেশে আসে। এই ট্রাক এবং লরিগুলির ট্যাঙ্ক প্রতিটি ৪০০ লিটার পর্যন্ত তেল ধারণ করতে পারে। অধিকাংশ ট্রাক-লরি ট্যাঙ্ক ভর্তি করে পণ্য খালাস করে ফেরার পথে তেল নিয়ে যায়। সূত্র জানায়, এই স্থলবন্দর দিয়ে বিপুল পরিমাণ ডিজেল পাচার হচ্ছে। বেনাপোল ছাড়াও আরও অন্তত ১২টি স্থলবন্দর চালু রয়েছে, এসব বন্দর দিয়ে হাজারের বেশি বিদেশি ট্রাক দেশে প্রবেশ করছে। দেশের তেলও একইভাবে এসব বন্দরে পৌঁছাচ্ছে।