December 2, 2021

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Tuesday, October 26th, 2021, 7:29 pm

বর্ণবাদ বিরোধী প্রতিবাদ করলেন ডি’কক

অনলাইন ডেস্ক :

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে মঙ্গলবার দক্ষিণ আফ্রিকা বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচের আগমুহূর্তে এক অবাক করা ঘটনার জন্ম হয়। এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে হুট করেই প্রোটিয়া বোর্ড জানায়, মঙ্গলবারের ম্যাচ থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছে উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান কুইন্টন ডি কক। টসের সময় অধিনায়ক টেম্বা বাভুমা জানান, ডি’ককের সরে দাঁড়ানোর কারণ ‘ব্যক্তিগত’। কিন্তু দুয়ে দুয়ে চার মিলিয়ে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বলছে, বর্ণবাদবিরোধী প্রতিবাদে রাজি না থাকায় ডি’কক এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। গত বছর ২৫ মে পুলিশ কর্তৃক যুক্তরাষ্ট্রের কৃষ্ণাঙ্গ বাস্কেটবল খেলোয়াড় জর্জ ফ্লয়েড হত্যাকান্ডের পর থেকে বিশ্বজুড়ে শুরু হয় ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আন্দোলন। তখন থেকেই ক্রিকেট-ফুটবল ম্যাচ শুরুর আগে দুই দলের খেলোয়াড়েরা হাঁটু গেড়ে বসে এই আন্দোলনের সঙ্গে একমত প্রকাশ করে আসছেন। কিন্তু অবিশ্বাস্য হলেও সত্য যে, বর্ণবাদ বিরোধী মহান নেতা নেলসন ম্যান্ডেলার দেশ দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটারদের অনেকেই এই প্রতিবাদের সঙ্গে একমত নন! এতদিন ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আন্দোলনে দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটাররা একেকজন একেকভাবে অংশ নিয়েছেন। কেউ হাঁটু গেড়ে একাত্মতা জানিয়েছেন, কেউ মুষ্ঠিবদ্ধ হাত তুলে ধরেছেন, কেউবা দাঁড়িয়ে একাত্মতা জানিয়েছিলেন। কিন্তু ডি’কক এই আন্দোলনে একবারও অংশ নেননি! বিশ্বকাপের মাঝেই মঙ্গলবার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে সব ক্রিকেটার এবং স্টাফদের হাঁটু গেড়ে বসে ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আন্দোলনে যোগ দেওয়া বাধ্যতামূলক করা হয়। এরপরেই জানা গেল, ডি’কক নিজেকে সরিয়ে নিয়েছেন! উইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচ শুরুর আগে দুই দলের খেলোয়াড়েরা হাঁটু গেড়ে বসে এই প্রতিবাদে সামিল হয়েছেন। ক্রিকেট দক্ষিণ আফ্রিকার সেই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ‘দলের সদস্যদের ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার আন্দোলনের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশের জন্য ভিন্ন রকম ভঙ্গিমার কারণে একটা অনাকাক্সিক্ষত ধারণা তৈরি হয়েছে। যাতে মনে হচ্ছে, এ আন্দোলনের প্রতি পর্যাপ্ত সমর্থন প্রকাশ করা হচ্ছে না। ক্রিকেটারদের এ ক্ষেত্রে অবস্থানসহ সব রকম ইস্যু পর্যালোচনার পর বোর্ডের মনে হয়েছে বর্ণবাদের বিপক্ষে ক্রিকেটারদের একাত্মতা প্রকাশে ঐক্যবদ্ধ হওয়া উচিত, বিশেষ করে দক্ষিণ আফ্রিকার ইতিহাস বিবেচনায়। বিশ্বকাপে একাধিক দল একটা ধারাবাহিক অবস্থান নিয়েছে। বোর্ড মনে করে, দক্ষিণ আফ্রিকার খেলোয়াড়দেরও এটা করা উচিত।’