June 15, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Thursday, May 2nd, 2024, 8:16 pm

বাংলাদেশে প্রবীণদের জন্য আরও বেশি বরাদ্দ দিতে জোর দিয়েছে এডিবি

এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) বলেছে, বয়স্ক ভাতা বাংলাদেশের দরিদ্রতম জনগোষ্ঠীর চাহিদা যথাযথভাবে পূরণ করছে না এবং তাদের জন্য আরও বরাদ্দ প্রয়োজন।

বৃহস্পতিবার (২ মে) জর্জিয়ায় অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানায় এডিবি।

এডিবির জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ আইকো কিক্কাওয়া ইউএনবির এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘আমরা খুব সম্প্রতি বাংলাদেশে একটি জরিপ করেছি। বাংলাদেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো বয়স্ক ভাতা দরিদ্রতম জনগোষ্ঠীর চাহিদা পূরণ করছে না। দরিদ্রভাতা প্রাপ্তদের সংখ্যা এখনও ৫০ শতাংশের নিচে।’

রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশ সঠিক পথেই রয়েছে বলে স্বীকার করে বৃহস্পতিবার এডিবির ৫৭তম বার্ষিক সভায় প্রকাশিত ‘এজিং ওয়েল ইন এশিয়া: এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট পলিসি রিপোর্ট’ শীর্ষক প্রতিবেদনের লেখক বলেন, বাংলাদেশ সরকার এই অবস্থার উন্নয়নে আরও কিছু করতে পারে। ‘আমি মনে করি, তারা ঠিক এটাই করছে।’

এডিবির এই অর্থনীতিবিদ বলেন, বাংলাদেশ সরকারকে দরিদ্রদের চিহ্নিত করতে আরও ভালো উপায় খুঁজে বের করতে হবে, যাতে তারা এই তহবিল বিতরণ করতে সক্ষম হয়।

তিনি বলেন, ‘আমরা এটাও চিহ্নিত করেছি, প্রবীণদের চাহিদা মেটানোর জন্য যে বরাদ্দ রয়েছে তা যথেষ্ট নয়। তাই এ বিষয়ে বরাদ্দ দিতে হবে।’

এই অর্থনীতিবিদ বলেন, বিভিন্ন সরকারের বিভিন্ন কর্মসূচি রয়েছে।

এডিবির প্রধান অর্থনীতিবিদ অ্যালবার্ট পার্ক বলেন, ‘বিভিন্ন পরিস্থিতি বোঝার জন্য এসব প্রশ্ন বিশ্লেষণ করতে আমাদের যথেষ্ট তথ্য প্রয়োজন।’

এডিবি বলেছে, উন্নয়নশীল এশিয়া তার সাফল্যের দ্রুত প্রতিফলন ঘটাচ্ছে, তবে এই অঞ্চল বয়স্ক নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রস্তুত নয়।

বয়স্ক এশীয়দের জন্য চ্যালেঞ্জগুলোর মধ্যে রয়েছে রোগাক্রান্ত হয়ে ক্রমবর্ধমান বোঝায় পরিণত হওয়া, উপযুক্ত কাজের অভাব, স্বাস্থ্য ও দীর্ঘমেয়াদি যত্নের মতো প্রয়োজনীয় পরিষেবাগুলো যথেষ্ট না পাওয়া, কম অবসরকালীন ভাতা সুবিধা এবং বিচ্ছিন্নতা ও একাকীত্বের হার বৃদ্ধি।

বার্ধক্যের ক্ষেত্রে লিঙ্গভিত্তিক সংখ্যার দিকে আরও বেশি মনোযোগ দেওয়া প্রয়োজন। নীতিগুলোর মাধ্যমে অবশ্যই বয়স্ক নারীদের ক্রমবর্ধমান দুর্বলতার সমাধান করতে হবে। একই সঙ্গে সব নারীর অপূর্ণ চাহিদাগুলো পূরণ করতে হবে।

এডিবি বলছে, সমন্বিত বার্ধক্য নীতিমালা নিজের স্বাস্থ্য, শিক্ষা, দক্ষতা, অবসরের জন্য আর্থিক প্রস্তুতি এবং পারিবারিক ও সামাজিক বন্ধনে আজীবন বিনিয়োগ উৎসাহিত করতে পারে, যা প্রবীণদের সুস্থ ও উৎপাদনশীল গোষ্ঠীকে উৎসাহিত করবে এবং অর্থনীতি ও সমাজে তাদের অবদান সবচেয়ে বেশি হবে।

এডিবির অর্থনীতিবিদরা বলেন, সিলভার ডিভিডেন্টকে কাজে লাগাতে এশিয়ার জন্য প্রাথমিক বিনিয়োগ গুরুত্বপূর্ণ।

নতুন প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, উন্নয়নশীল এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে ৬০ বছর বা তার বেশি বয়সী মানুষের সংখ্যা ২০৫০ সালের মধ্যে প্রায় দ্বিগুণ হয়ে ১২০ কোটিতে দাঁড়াবে। যা মোট জনসংখ্যার প্রায় এক-চতুর্থাংশ। এটি অবসরকালীন ভাতা ও কল্যাণ কর্মসূচির পাশাপাশি স্বাস্থ্যসেবার প্রয়োজনীয়তা উল্লেখযোগ্যভাবে বাড়িয়ে তুলবে।

এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) আরও বলেছে, একই সময়ে, প্রবীণদের কাছ থেকে অতিরিক্ত উৎপাদনশীলতার আকারে একটি ‘সিলভার ডিভিডেন্ট’ অর্জনের সুযোগ রয়েছে অর্থনীতির। যা এই অঞ্চলে মোট দেশজ উৎপাদনকে গড়ে শূন্য দশমিক ৯ শতাংশ বাড়িয়ে তুলতে পারে।

এডিবির প্রধান অর্থনীতিবিদ অ্যালবার্ট পার্ক বলেন, ‘এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দ্রুত উন্নয়ন একটি সাফল্যের গল্প, তবে এটি বিশাল জনমিতিক পরিবর্তনকেও ইন্ধন দিচ্ছে এবং চাপ বাড়ছে।’

তিনি বলেন, ‘সরকারগুলোকে এখনই প্রস্তুতি নিতে হবে, যাতে তারা এই অঞ্চলের কোটি কোটি মানুষকে ভালোভাবে সহায়তা করতে পারে। স্বাস্থ্য, শিক্ষা, দক্ষতা ও অবসর গ্রহণের জন্য আর্থিক প্রস্তুতিতে আজীবন বিনিয়োগকে সমর্থন করা উচিত।’

তিনি আরও বলেন, ‘বয়স্ক ব্যক্তিদের সুস্থ ও উৎপাদনশীল জনগোষ্ঠীকে উৎসাহিত করতে এবং সমাজে তাদের অবদান সর্বাধিক করার জন্য পারিবারিক ও সামাজিক বন্ধনও গুরুত্বপূর্ণ।’

বহুপক্ষীয় এ উন্নয়ন ব্যাংকের মতে, উন্নয়নশীল এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল তার দ্রুত বর্ধনশীল বয়স্ক জনসংখ্যার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রস্তুত নয়। কারণ এই অঞ্চলে বয়স্ক মানুষের ক্রমবর্ধমান অংশ কম অবসরকালীন সুবিধা, স্বাস্থ্য সমস্যা, সামাজিক বিচ্ছিন্নতা এবং প্রয়োজনীয় পরিষেবাগুলোতে সীমিত সুযোগের মতো চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছে।

‘এজিং ওয়েল ইন এশিয়া: এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট পলিসি রিপোর্ট’ অনুসারে, দীর্ঘ আয়ু এই অঞ্চলের উন্নয়ন সাফল্যকে প্রতিফলিত করে, তবে প্রবীণদের কল্যাণে সহায়তা করার জন্য ব্যাপক নীতি সংস্কার জরুরি প্রয়োজন।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে ৬০ বছরের বেশি বয়সী ৪০ শতাংশ নারী যেকোনো ধরনের অবসরকালীন সুবিধা থেকে বঞ্চিত। কারণ তাদের অধিকাংশই অবৈতনিক ঘরোয়া কাজ করে।

ফলে এ অঞ্চলের অনেক বয়স্ক মানুষের বেঁচে থাকার তাগিদে অবসরের বয়সসীমা পেরিয়েও ভালোভাবে কাজ করা ছাড়া উপায় থাকে না। যারা এখনও ৬৫ বছর বা তার বেশি বয়সে কাজ করছেন তাদের মধ্যে ৯৪ শতাংশ অনানুষ্ঠানিক খাতে কাজ করে। যেখানে সাধারণত মৌলিক শ্রম সুরক্ষা বা অবসরকালীন সুবিধা দেয় না। এদিকে বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের চ্যালেঞ্জগুলোও বেড়ে যায়।

এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের প্রায় ৬০ শতাংশ বয়স্ক মানুষ নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষায় অংশ নেন না বা গ্রহণ করেন না। অন্যদিকে ৩১ শতাংশ অসুস্থতা, সামাজিক বিচ্ছিন্নতা ও অর্থনৈতিক নিরাপত্তাহীনতার কারণে হতাশার লক্ষণগুলো তুলে ধরে।

এই অঞ্চলে বয়স্ক পুরুষদের তুলনায় বয়স্ক নারীদের হতাশা থেকে শুরু করে ডায়াবেটিস এবং উচ্চ রক্তচাপে ভোগার আশঙ্কাও বেশি।

প্রতিবেদনে স্বাস্থ্যকর এবং অর্থনৈতিকভাবে সুরক্ষিত বার্ধক্যকে সমর্থন করার জন্য বিস্তৃত নীতিগত পদক্ষেপের সুপারিশ করা হয়েছে।

—-ইউএনবি