February 9, 2023

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Sunday, December 18th, 2022, 7:03 pm

বিশ্বের সবচেয়ে খর্বাকায় পুরুষ আফশিনের আদ্যোপান্ত

গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস ইরানি তরুণ আফশিন ইসমায়েল ঘাদেরজাদেহকে বিশ্বের সবচেয়ে খর্বাকায় জীবিত পুরুষ হিসেবে ঘোষণা করা করেছে।

দুবাইয়ের গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের অফিসে মা-বাবার সঙ্গে যান আফশিন। যেখানে ২৪ ঘণ্টায় তিনবার তার উচ্চতার পরিমাপ নেয়া হয়। গিনেস কর্তৃপক্ষ নতুন রেকর্ড যাচাই করে বৃহস্পতিবার (১৫ ডিসেম্বর) ইউটিউবে আফশিনের একটি ভিডিও প্রকাশ করে।

নিশ্চয়ই জানতে ইচ্ছা করছে বিশ্বের সবচেয়ে খর্বাকায় মানুষের উচ্চতা কত। আফশিনের উচ্চতা দুই ফুট এক দশমিক ছয় ইঞ্চি বা ৬৫ দশমিক ২৪ সেন্টিমিটার। যা পূর্বের রেকর্ডধারীর চেয়ে সাত সেন্টিমিটার কম। বিশ্বের সবচেয়ে খর্বাকায় মানুষের পূর্বের রেকর্ডটি কলম্বিয়ার ৩৬ বছর বয়সী এডওয়ার্ড নিনো হার্নান্দেজের দখলে ছিল, যার উচ্চতা ৭০ দশমিক ২১ সেমি।

আফশিনের পরনে ছিল মোটামুটি দুই থেকে তিন বছরের শিশুর জন্য বানানো স্যুট, সঙ্গে বো টাই। একটু মজা করে বলা যেতে পারে- বিশ্বের সবচেয়ে ছোট মানুষটি বিশ্বের সবচেয় উঁচু বিল্ডিং বুর্জ খলিফায় গিয়েছিলেন।

ইরানের আফশিন বড় কিছুর জন্য জীবনে এই প্রথম বাড়ি ছেড়ে দূরে কোথাও ভ্রমণ করেন। যা তার ও পরিবারের জন্য ইতিহাসও বটে।

বিশ্বজুড়েই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোতে নতুন রেকর্ড অর্জন করায় আফশিনকে অভিনন্দন জানানো হচ্ছে। কেউ তার সুস্থতা কামনা করছেন আবার কেউ বলছেন বিশ্বের সবচেয়ে লম্বা ও খাটো মানুষের পাশাপাশি দেখতে চান। কেউ ধারণা করছেন যে নিশ্চয়ই আফশিন উদার ও দয়ালু ব্যক্তিত্বের অধিকারী হবেন।

আফশিন সম্পর্কে আরও কিছু তথ্য

ইরানের পশ্চিম আজারবাইজান প্রদেশের বুকান অংশের একটি গ্রামে ২০০২ সালের ১৩ জুলাই জন্মগ্রহণ করেন আফশিন। জন্মের সময় তার ভর ছিল মাত্র ৭০০ গ্রাম। ২০ বছর পরে বর্তমানে তার ভর দাঁড়িয়েছে সাড়ে ছয় কেজিতে।

উত্তর ইরানে বেড়ে ওঠা খর্বাকায় বালকটির জন্য সহজ ছিল না। তার উচ্চতার কারণে স্কুলে যেতে পারছিল না, ফলে সাক্ষরতা অর্জনে লড়াই করতে হয়েছে আফশিনকে। ঘরেই টুকটাক শিখে এখন আফশিন নিজের নাম লিখতে পারে। আফশিনের বাবা ইসমায়েল ঘাদেরজাদেহ বলেন, ‘আমার ছেলের নিয়মিত চিকিৎসা ও শারীরিক দুর্বলতাই তার পড়ালেখার প্রধান অন্তরায়, অন্যথায় তার কোনো মানসিক সমস্যা নেই।’

তা সত্ত্বেও, আফশিন ফারসি উপভাষা ব্যবহার করে কুর্দি ও ফার্সি উভয় ভাষাতেই সাবলীল। এমনকি স্মার্টফোনে ব্যবহারেও পারদর্শী তিনি। তবে তা বহন করতে বেশ কষ্ট করতে হয় তাকে।

গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের ওয়েবসাইটে উল্লেখ করা হয়েছে-

‘সাধারণভাবে মুঠোফোনগুলো দীর্ঘ সময়ের জন্য ব্যবহারের ক্ষেত্রে ভারী, তবুও আমি তা ব্যবহার করতে পারি।’ আফশিন যে বাড়িতে থাকে সেখানে বিনয়ী পরিবেশ রয়েছে। তার পরিবার কঠোর পরিশ্রম করলেও আফশিনের জীবনযাত্রা, চিকিৎসা ও ওষুধের খরচ জোগাড় করতে তাদের অনেক সময় কঠিন হয়ে যায়।

আফশিন তার দিনের বেশিরভাগ সময় কার্টুন দেখে ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করে কাটান। তার একজন বন্ধুও আছে যে তাকে ইনস্টাগ্রামে তার অনুসারীদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে সাহায্য করেন।

—-ইউএনবি