June 16, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Tuesday, April 25th, 2023, 7:05 pm

বিশ্ব টিকাদান সপ্তাহ: টিকাদান নিশ্চিত করতে দেশগুলোকে পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার

ফাইল ছবি

মহামারিতে শতাধিক দেশে প্রয়োজনীয় টিকা দেওয়ার হার হ্রাস পেয়েছে

বিশ্ব টিকাদান সপ্তাহের উদ্বোধন উপলক্ষে জাতিসংঘের বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছে, কোভিড-১৯ মহামারি লাখ লাখ শিশুকে নিয়মিত টিকাদান থেকে বঞ্চিত করেছে। দেশগুলোকে এখনই পদক্ষেপ নিতে হবে, যাতে অন্তত ২০১৯ সালের পর্যায়ের প্রয়োজনীয় টিকাদান কার্যক্রম সম্পন্ন করা যায়।

‘দ্য বিগ ক্যাচ-আপ’-এর ব্যানারে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং অংশীদাররা দেশগুলোকে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসতে সহায়তা করবে, যাতে আরও বেশি শিশু এবং প্রাপ্তবয়স্করা প্রতিরোধযোগ্য রোগ থেকে সুরক্ষিত থাকে।

মহামারিটির কারণে শতাধিক দেশে প্রয়োজনীয় টিকাদানের হার হ্রাস পেয়েছে। যার ফলে হাম, ডিপথেরিয়া, পোলিও এবং হলুদ জ্বরের প্রাদুর্ভাব বেড়েছে।

জাতিসংঘের মতে, শুধুমাত্র ২০২১ সালেই আনুমানিক আড়াই কোটি শিশু টিকা থেকে বাদ পড়েছে।

টিকাদান হ্রাসের কারণগুলোর মধ্যে অতিরিক্ত চাপযুক্ত স্বাস্থ্য পরিষেবা, ক্লিনিক বন্ধ থাকা এবং সিরিঞ্জ ও শিশির মতো চিকিৎসা সরঞ্জাম সরবরাহের আমদানি ও রপ্তানিতে বাধাগুলো অন্তর্ভুক্ত।

একই সময়ে, সম্প্রদায় এবং পরিবারগুলো লকডাউনের মধ্যে ছিল, যা ভ্রমণ এবং স্বাস্থ্য পরিষেবাগুলোতে যাতায়াতকে সীমাবদ্ধ করেছিল। এছাড়া সরকারগুলোর জরুরি পরিস্থিতি মোকাবিলার কারণে আর্থিক এবং জনবল সীমিত ছিল।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা অন্যান্য অবদানকারী কারণগুলো যেমন দ্বন্দ্ব, জলবায়ু সংকট এবং ভ্যাকসিনের দ্বিধাকে নির্দেশ করেছে।

বিশ্ব টিকাদান সপ্তাহ রবিবার শুরু হয়। ডব্লিউএইচও জাতিসংঘের শিশু তহবিলের (ইউনিসেফ) সঙ্গে যোগ দিয়েছে; গাভি, ভ্যাকসিন অ্যালায়েন্স, বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন এবং অন্যান্য অনেক বিশ্ব ও আন্তর্জাতিক অংশীদার।

তারা স্বাস্থ্যসেবা কর্মশক্তিকে শক্তিশালীকরণ, স্বাস্থ্য পরিষেবা সরবরাহের উন্নতি, সম্প্রদায়ের মধ্যে আস্থা তৈরি, ভ্যাকসিনের চাহিদা তৈরি এবং টিকাদান পুর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে দূরত্ব ও বাধাগুলো দূরীকরণে দেশগুলোর সঙ্গে কাজ করছে।

চূড়ান্ত লক্ষ্য হলো আরও বেশি শিশু, প্রাপ্তবয়স্ক এবং তাদের সম্প্রদায়গুলোকে টিকা-প্রতিরোধযোগ্য রোগ থেকে সুরক্ষিত করা। তারা যাতে আরও সুখী, স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন করতে পারে তা নিশ্চিত করা।

২০টি দেশে বিশেষভাবে গুরুত্ব দেওয়া হবে, যেখানে ২০২১ সালে টিকা মিস করা শিশুদের তিন চতুর্থাংশের বাড়ি। এর মধ্যে রয়েছে আফগানিস্তান, গণতান্ত্রিক গণপ্রজাতন্ত্রী কোরিয়া, গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র কঙ্গো, ইথিওপিয়া, ভারত, পাকিস্তান, সোমালিয়া এবং মিয়ানমার।

প্রাথমিক প্রতিবেদন অনুসারে, ডব্লিউএইচও সপ্তাহটি ব্যবহার করছে বেশ কয়েকটি দেশে চলমান সফল টিকা প্রচারাভিযানের পাশাপাশি ভারতের মতো কিছু ‘উজ্জ্বল সহনশীল স্থানকে’ তুলে ধরতে। যেটি গত বছর অপরিহার্য টিকাদানে একটি শক্তিশালী পুনরুদ্ধার দেখেছিল। মহামারি চলাকালীন উগান্ডাও উচ্চ কভারেজ স্তর বজায় রেখেছিল।

ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালক ক্যাথরিন রাসেল, পরিষেবাগুলোকে শক্তিশালী করতে, আস্থা তৈরি করতে এবং জীবন বাঁচাতে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দেন।

তিনি বলেছিলেন, ‘রুটিন ভ্যাকসিনগুলো সাধারণত একটি শিশুর তাদের স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় প্রথম প্রবেশ করে এবং তাই যে শিশুরা তাদের প্রাথমিক ভ্যাকসিনগুলো মিস করে তারা দীর্ঘমেয়াদে স্বাস্থ্যসেবা থেকে বাদ পড়ার অতিরিক্ত ঝুঁকিতে থাকে।’

‘আমরা এই শিশুদের কাছে পৌঁছানোর এবং টিকা দেওয়ার জন্য যত বেশি অপেক্ষা করব, তারা তত বেশি দুর্বল হয়ে পড়বে এবং আরও মারাত্মক রোগের প্রাদুর্ভাবের ঝুঁকি তত বেশি হবে।’

—-ইউএনবি