August 15, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Thursday, July 7th, 2022, 7:53 pm

বীরোচিত জয়ের পরও সেমিতে খেলা নিয়ে শঙ্কায় নাদাল

অনলাইন ডেস্ক :

চোটাঘাত ও প্রবল ব্যথাকে হারিয়ে, চোয়ালবদ্ধ প্রতিজ্ঞার টেইলর ফ্রিটজের প্রতিরোধ ভেঙে জয় তো ধরা দিল। এরপর? নায়ক নিজেও তা জানেন না। স্মরণীয় জয়ে উইম্বলডনের সেমি-ফাইনালে পা রাখলেও সামনের পথচলা নিয়ে অনিশ্চয়তায় রাফায়েল নাদাল। চোটের অবস্থা বুঝে খেলা নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানালেন ২২টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ের নায়ক। সুদীর্ঘ ক্যারিয়ারে অসংখ্য অসাধারণ ম্যাচ উপহার দেওয়া নাদাল বুধবার আরেকটি মনে রাখার মতো পারফরম্যান্স দেখান উইম্বলডনের সেন্টার কোর্টে। যেটি শুধু টেনিস স্কিলে নয়, নিজের শরীরের সঙ্গে লড়াইয়েও জয়। তার হার না মানা মানসিকতার জয়। চোটকে সঙ্গী করেই কোয়ার্টার-ফাইনালের লড়াইয়ে নেমেছিলেন তিনি। ম্যাচের মধ্যে চোট আরও গুরুতর হয়ে তাকে কাবু করার চেষ্টা করে বারবার। দ্বিতীয় সেটের মাঝপথে কোর্ট ছেড়ে গিয়ে মেডিকেল টাইম-আউট নিতে বাধ্য হন। অনেকবারই মনে হচ্ছিল, চোটের কাছে তাকে হার মানতে হবে। এমনকি তার বাবাও তাকে পরামর্শ দেন খেলা চালিয়ে না যেতে। কিন্তু ব্যথায় কুঁকড়ে গেলেও ৩৬ বছর বয়সী তারকা দমে যাননি, ভেঙে পড়েননি। ৪ ঘণ্টা ২০ মিনিটের মহারণে বারবার পিছিয়ে পড়েও ঘুরে দাঁড়িয়ে তিনি শেষ পর্যন্ত ফ্রিটজকে হারান ৩-৬, ৭-৫, ৩-৬, ৭-৫, ৭-৬ (১০-৪) গেমে। ম্যাচের পর নাদাল বলেন, শরীর বিদ্রোহ করলেও কোর্ট ছেড়ে যেতে মনের সাড়া পাননি তিনি। আমি ¯্রফে নিজেকে আরেকটু সুযোগ দিতে চাইছিলাম। ব্যথা তীব্র ছিল বটে, তবে টুর্নামেন্ট ছেড়ে যাওয়া সহজ কিছু নয়, উইম্বলডন ছেড়ে যাওয়া সহজ নয়। আমি জানি না (কীভাবে পারলাম)ৃ আমি ম্যাচ শেষ করতে চেয়েছি, লড়াই করে গেছি। লড়িয়ে এই মানসিকতা নিয়ে এবং এই অবস্থার মধ্যেও যেভাবে লড়াই চালিয়ে গেছি, তাতে আমি গর্বিত। গত মে-জুনে ফ্রেঞ্চ ওপেনেও ম্যাচের পর ম্যাচ ব্যথানাশক নিয়ে খেলে চ্যাম্পিয়ন হন নাদাল। ক্যারিয়ারে চোট-আঘাতের সঙ্গে কম লড়াই করতে হয়নি তাকে। এবারও সেরকম ধরে নিয়েই এই ম্যাচ তিনি খেলতে নেমেছিলেন। তবে ম্যাচের সময় অবস্থা সত্যিই বাজে হয়ে গিয়েছিল বলে জানালেন তিনি। ব্যথা সয়ে ও নানা সমস্যা নিয়ে খেলতে আমি অভ্যস্ত। তবে এবার যেরকম মনে হয়েছিল, বুঝতে পারছিলাম যে অ্যাবডোমেনে সবকিছু ঠিকঠাক নেই। দিন দুয়েক ধরেই এরকম মনে হচ্ছিল। আজকে অবস্থা সবচেয়ে খারাপ হয়ে যায়, ব্যথা ক্রমেই বাড়তে থাকে এবং অসহনীয় হয়ে ওঠে। এই অবস্থা থেকে সেরে ওঠার সময় খ্বু একটা নেই তার সামনে। শুক্রবারই সেমি-ফাইনাল অস্ট্রেলিয়ার নিক কিরগিওসের সঙ্গে। নাদাল কি নামতে পারবেন কোর্টে? তার কণ্ঠে ফুটে উঠল অনিশ্চয়তা। আমি জানি না। সত্যি বলতে, এখন কোনো পরিষ্কার উত্তর আমি দিতে পারব না। কারণ, আজকে নিশ্চিত করে কিছু বললাম, কাল দেখা গেল অন্য কিছু হয়ে গেল, তখন আমার কথা মিথ্যা হয়ে যাবে। বৃহস্পতিবার আরও কিছু স্ক্যান করে ও চোটের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করে সেমি-ফাইনালে খেলার সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানান নাদাল।