June 30, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Tuesday, April 26th, 2022, 8:02 pm

বড় জয়ের দিনে শিরোপা আশা শেষ মাশরাফি-সাকিবদের

অনলাইন ডেস্ক :

সাব্বির রহমান-সাকিব আল হাসানের ব্যাটিং তান্ডবের পর ভারতের চেরাগ জানির বোলিং নৈপুন্যে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের (ডিপিএল) সুপার পর্বে বড় জয় পেলেও শিরোপা জয়ের আশা শেষ হয়ে গেছে লিজেন্ডস অব রুপগঞ্জের। কারণ দিনের অন্য ম্যাচে জয় পেয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষস্থান নিশ্চিত করেছে শেখ জামাল। মঙ্গলবার (২৬ এপ্রিল) লিজেন্ডস অব রুপগঞ্জ ১৯৬ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সকে। অন্য ম্যাচে শেখ জামাল ৪ উইকেটে হারায় আবাহনী লিমিটেডকে। এই জয় দিয়ে পয়েন্টে এগিয়ে থেকে শিরোপা জিতে নেয় শেখ জামাল। শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের সাথে ডিপিএল শিরোপা জয়ের দৌঁড়ে ছিলো লিজেন্ডস অব রুপগঞ্জ। তবে শেখ জামালের সাথে ৪ পয়েন্টে পিছিয়ে ছিলো মাশরাফি-সাকিবের লিজেন্ডস অব রুপগঞ্জ। কিন্তু সুপার লিগে শেষ দুই ম্যাচে বা একটিতে শেখ জামাল হারলেই, শিরোপা জয়ের সুযোগ হতো লিজেন্ডস অব রুপগঞ্জের। আর দুই ম্যাচের একটিতে জিতলেই শিরোপা জয় নিশ্চিত হতো শেখ জামালের। সেই লক্ষ্যে মঙ্গলবার (২৬ এপ্রিল) জয় তুলে নিয়ে শিরোপা নিশ্চিত করে শেখ জামাল। এতে শিরোপা জয়ের আশা শেষ হয় লিজেন্ডস অব রুপগঞ্জের। বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নামে লিজেন্ডস অব রুপগঞ্জ। দলকে ১৫ ওভারে ৭১ রানের সূচনা এনে দেন লিজেন্ডস অব রুপগঞ্জের দুই ওপেনার ইরফান শুক্কুর ও রকিবুল হাসান। ৮৩ রানের মধ্যে বিদায় নেন দুই ওপেনার। ইরফান ২৯ ও রাকিবুল ৪৭ রানে থামেন। তৃতীয় উইকেটে ১০৩ রানের জুটি গড়েন সাব্বির রহমান ও নাইম ইসলাম। নাইম ৬৮ বলে ৪২ রান করে থামলে, উইকেটে আসেন সাকিব আল হাসান। নিজের ইনিংসের শুরু থেকেই ব্যাট হাতে ঝড় তুলেন সাকিব। উইকেটের চারপাশে চার-ছক্কার ফুলঝুড়িতে ২১ বলে হাফ-সেঞ্চুরির তুলে নেন সাকিব। শেষ পর্যন্ত ২৬ বলে ৬টি চার ও ৩টি ছক্কায় ৫৯ রানে আউট হন সাকিব। সেঞ্চুরির সম্ভাবনা জাগিয়ে ৯০ রানে থামেন সাব্বির। ৮৩ বল খেলে ৬টি চার ও ৩টি ছক্কা মারেন সাব্বির। এতে ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ২৯৩ রানের সংগ্রহ পায় লিজেন্ডস অব রুপগঞ্জ। গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের খালেদ আহমেদ-রকিবুল, আতিক ও মাহবুব ২টি করে উইকেট নেন। জবাব দিতে নেমে লিজেন্ড অব রুপগঞ্জের বোলারদের তোপের মুখে পড়ে গাজী গ্রুপ। ভারতের জানির বোলিং তোপে ২৯ দশমিক ২ ওভারে ৯৭ রানে অলআউট হয় গাজী। জানি ১৫ রানে ৫ উইকেট নেন। ২টি করে উইকেট নেন আল-আমিন ও নাইম। গাজীর পক্ষে সর্বোচ্চ ৩২ রান করেন হুসনা হাবিব। ম্যাচ সেরা হন সাব্বির। ১৪ ম্যাচ শেষে ১২টি জয় ও ২টি হারে ২৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে থেকে শিরোপা জিতলো শেখ জামাল। ১৪ খেলায় ২০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দ্বিতীয়স্থানে থাকলো লিজেন্ডস অব রুপগঞ্জ। ১৪ ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তৃতীয়স্থানে প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব। সুপার লিগে আর মাত্র ১টি ম্যাচ বাকী।