July 17, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Wednesday, January 17th, 2024, 8:35 pm

ভরা মৌসুমেও লালমনিরহাটে সবজির দাম আকাশচুম্বী

লালমনিরহাটে অস্বাভাবিক চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে সবজি। বাজারে এখন অধিকাংশ সবজির কেজি ৫০ টাকার উপরে। শীতের ভরা মৌসুমেও গত কয়েক সপ্তাহের ব্যবধানে কাঁচা বাজারগুলোতে প্রায় সব সবজির দাম বেড়েছে।

তবে লালমনিরহাটের সবজি ব্যবসায়ীরা একেক সময় একেক দোহাই দিয়ে রীতিমতো দাম বাড়িয়ে বিক্রি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। জেলার একাধিক বাজার ঘুরে দেখা গেছে, শীতকালীন অধিকাংশ সবজির কেজি ৫০ টাকার উপরে।

জেলার স্থানীয় বাজারে একটি লাউ বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়। এক কেজি বেগুনের দাম ৪০ টাকা, শিমের কেজি এখনও ৫০টাকা।

এছাড়া একটি ফুলকপি ৪০ টাকা, আর৫৫ টাকার কমে মিলছে না বাঁধাকপিও ।

চরম ভোগান্তিতে পড়া ভোক্তারা বলছেন, বছরের এই সময়ে সবজির দাম কম থাকার কথা, এবারের চিত্র ভিন্ন রকম।

গত রবিবার লালমনিরহাটের কালীগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী চাপারহাট বাজার, কাকিনাহাটসহ বিভিন্ন কাঁচাবাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রতি কেজি বেগুন ৪০-৫০ টাকা, টমেটো ৫০-৬০ টাকা, করলা ধরন ভেদে ৬০-৭০ টাকা, আলু ৫৫-৬০ টাকা ও পেঁয়াজ (দেশি) মান ভেদে ৮০-১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বাজারগুলোতে ফুলকপি পিসপ্রতি ৩৫-৪৫ টাকা, বাঁধাকপি ৪২-৪৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সপ্তাহ দুয়েকের ব্যবধানে এসব সবজির দাম কেজিতে অন্তত ১০-২০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে।

চাপারহাট কাঁচাবাজারের ব্যবসায়ী শাহিন আলম বলেন, গত বছরের তুলনায় এবার সবজির দাম দুই থেকে তিন গুণ বেশি।

তিনি আরও বলেন, গত বছর এই সময়ে ২০ টাকা কেজি দরে আলু বিক্রি হলেও এখন ৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করতে হচ্ছে। প্রতি কেজি পেঁয়াজ ৩০-৩৫ টাকায় বিক্রি হলেও এখন তা বিক্রি হচ্ছে ৯০ টাকায়।

কাকিনা বাজারের ব্যবসায়ী জাকির হোসেন বলেন, সবজির মৌসুমেও সবজির দাম বেশি। তবে ক্রয় যেমন বিক্রি তেমন।

তিনি আরও বলেন, আমাদের এলাকায় সবজি চাষ হওয়ার কারণে আমরা তাজা শাক-সবজি খেতে পারি। তবে এই সবজির মৌসুমে টমেটো, মুলা, লাউসহ অন্যান্য সবজির দাম থাকে একেবারেই কম। কিন্তু এবারের চিত্র ভিন্ন রকম।

দুহুলী বাজারে কাঁচামাল ব্যবসায়ী বেলজিয়াম বলেন, গত বছর এই সময়ে ১০০ টাকায় পাঁচ কেজি আলু, ৩০-৩৫ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ ও ১৫০ টাকা কেজি দরে ব্রয়লার মুরগি কিনেছিলাম। কিন্তু এই বছর দাম দ্বিগুণ বেড়েছে, তাই বেশি দামে বিক্রি করতে হয়।

লালমনিরহাট কৃষি বিভাগের সহকারী উপ-পরিচালক সিফাত জাহান জানান, জেলায় শীত মৌসুমে, শাক সবজি
র যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল তা অর্জিত হয়েছে, এ বছর যে পরিমাণ সবজি উৎপাদন হয়েছে, জেলার চাহিদা মিটিয়ে অন্য জেলাতেও যাচ্ছে।

—-ইউএনবি