May 21, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Saturday, February 12th, 2022, 8:37 pm

ভারতে সাজাভোগ শেষে বিয়ানীবাজারের স্থলবন্দর দিয়ে ফিরলেন ২২ বাংলাদেশি

ভারতের বিভিন্ন ডিটেনশন সেন্টারে সাজাভোগের পর বিয়ানীবাজারের শেওলা স্থলবন্দর হয়ে দেশে ফিরেছেন ২২ বাংলাদেশি নাগরিক। শনিবার দুপুরে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) এবং সীমান্ত পুলিশ শেওলা ইমিগ্রেশন পুলিশ ও বিজিবির কাছে এসব বাংলাদেশি নাগরিকদের হস্তান্তর করে।

বিজিবি-৫২ ব্যাটালিয়ন সূত্রে জানা গেছে, বিভিন্ন সময়ে অবৈধভাবে প্রত্যাবর্তনকারীরা সীমান্ত অতিক্রম করে ভারতে প্রবেশ করেছিল। পরে সেখানকার আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে আটক হয়ে ঠাঁই হয় কারাগারে। পরবর্তীতে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের উদ্যোগ ও প্রচেষ্টায় এসব বাংলাদেশিরা নাগরিকরা দেশে ফেরার সুযোগ পেয়েছেন।

দেশে ফেরা নাগরিকরা হলেন- মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার কয়েছ উদ্দিন, কুড়িগ্রাম জেলার নাগেশ্বরী উপজেলার শহিদুল ইসলাম, রউমারী উপজেলার আশিক মিয়া, মো. সাইজুদ্দিন, দিনাজপুর জেলার খানশামা উপজেলার জয় চন্দ্র শর্মা, শেরপুর সদর উপজেলার সাব্বির মিয়া, চাঁদপুর জেলার মতলব উপজেলার লিটন গাজি, পটুয়াখালী জেলার গলাচিপা উপজেলার আলম হাওলাদার, নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া উপজেলার আব্দুল গণি, রাজশাহী জেলার তানোর উপজেলার মো. আছলম আলী, ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার আইনুল হক, টাংগাইল জেলার সখিপুর উপজেলার অমূল্য বর্মন, খুলনা জেলার আব্দুল হাকিম, মাদারীপুর জেলার সদর উপজেলার জুয়েল হাওলাদার, হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং উপজেলার শরিফুদ্দিন মিয়া, সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক উপজেলার নাসির আলী ও শাহিনুর, সিলেট জেলার কানাইঘাটের সেলিম আহমদ, গোলাপগঞ্জের রুহান আহমদ, সিলেট সদরের লিটন ভূমিজ, ঢাকা জেলার জামাল উদ্দিন, কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালি উপজেলার রাজু আহমদ ও নওগাঁ জেলার রানী নগর উপজেলার মো. ফিরোজ মিয়া।

বিয়ানীবাজার ব্যাটালিয়ন (৫২ বিজিবি) অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. শাহ আলম সিদ্দিকী বলেন, বাংলাদেশে প্রবেশের আগে শেওলা আইসিপিতে নিয়োজিত বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের তত্ত্বাবধানে প্রত্যাবর্তনকারীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়। করোনার কোনো উপসর্গ না পাওয়ায় তাদেরকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেয় স্বাস্থ্য বিভাগ। তিনি আর বলেন, এরকম আরও বাংলাদেশি নাগরিক অবৈধ উপায়ে অনুপ্রবেশের দায়ে ভারতের বিভিন্ন কারাগারে সাজা ভোগ করছেন। পর্যায়ক্রমে সকলকেই দেশে ফেরত নিয়ে আসার প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।

সূত্র জানায়, ভারতের আসাম রাজ্যের পাঁচটি ও মেঘালয় রাজ্যের দুটি জেল থেকে ইতোমধ্যে প্রায় ২৫০ বাংলাদেশিকে মুক্ত করে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়েছে। এই কার্যক্রমের মূল ব্যক্তি আসামের গৌহাটিস্থ বাংলাদেশের সহকারী হাইকমিশনার ড. শাহ মোহাম্মদ তানভীর মনসুর।

—-ইউএনবি