November 28, 2021

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Saturday, September 11th, 2021, 1:35 pm

ভয়াবহ ৯/১১ হামলার ২০ বছর আজ

ফাইল ছবি

অনলাইন ডেস্ক :

নাইন-ইলেভেনের ভয়াবহ হামলার ২০ বছর আজ। ২০০১ সালের এইদিনে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে টুইন টাওয়ারে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে।
বিশ্বের সবচেয়ে সুরক্ষিত দেশটিতে সেদিন একই সঙ্গে আরও কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাতেও হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। এসব ঘটনায় অন্তত ৩ হাজার মানুষ নিহত হয়। পাল্টে যায় নিরাপত্তা ব্যবস্থার ধারণা। এরপরই যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে বিশ্বব্যাপী শুরু হয় সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক সিটির লোয়ার ম্যানহাটনের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার ভবন। ৪০ কোটি ডলারের বেশি অর্থ ব্যয়ে নির্মিত ওই কমপ্লেক্সটিতে প্রতিদিন কাজে যেতেন ৫০ হাজারের বেশি মানুষ। লাখের বেশি মানুষের দৈনিক চলাচলের পথও ছিল ভবনটির সামনে দিয়ে। ২০ বছর আগে ২০০১ সালের এই দিনটিও ছিল ভবনটিতে কর্মরত মানুষ আর পথচারীদের জন্য অন্যান্য দিনের মতোই। তবে সকালের শুরুতেই শতাব্দীর ভয়াবহতম হামলার শিকারে পরিণত হন তারা।

সেদিন আল-কায়েদার ১৯ জন সন্ত্রাসী ছিনতাই করে যাত্রীবাহী চারটি বিমান। ১৭ মিনিটের ব্যবধানে টুইন টাওয়ার নামে ১১০ তলার এই ভবনে আঘাত হানে দুটি বিমান। আকাশ ছোঁয়া ভবন দুটি ধসে পড়ে মাত্র দুই ঘন্টার ব্যবধানে। তৃতীয় বিমানটি আঘাত হানে দেশটির প্রতিরক্ষা সদর দপ্তর পেন্টাগনে। ওয়াশিংটনের ক্যাপিটল হিলে হামলার পরিকল্পনা থাকলেও যাত্রীরা রুখে দাঁড়ানোয় চতুর্থ বিমানটি আছড়ে পড়ে পেনসিলভেনিয়ার একটি মাঠে।

দুই ঘন্টার ব্যবধানে চারটি বিমানের প্রায় আড়াইশো যাত্রীসহ এসব হামলায় প্রাণ হারান অন্তত ৩ হাজার মানুষ। বাংলাদেশিসহ অন্তত ৭৭টি দেশের নাগরিকও ছিলেন হতাহতদের মধ্যে। এছাড়া, মারা যান পুলিশসহ জরুরি সেবায় নিয়োজিত ৪শর বেশি মানুষ। আহত হন ৫০ হাজারের বেশি।

অনেক আগে থেকেই সতর্কতা পেলেও নিজেদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে আত্মবিশ্বাসী মার্কিনিরা হতভম্ব হয়ে যায় এই হামলায়। ওসামা বিন লাদেনের নেতৃত্বে জঙ্গি সংগঠন আল-কায়েদা আফগানিস্তান থেকে এই হামলার পরিকল্পনা করেছিল। আর বিমান ছিনতাইকারীরা পাইলটের প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন খোদ যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লাইং স্কুল থেকে। হামলার পরই আল কায়েদাকে নিশ্চিহ্ন করতে আফগানিস্তানে সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধ শুরু করেন তখনকার প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশ।

১১ই সেপ্টেম্বরের ওই হামলার পর নিহতদের সম্মানে নির্মিত হয় গ্রাউন্ড জিরো মেমোরিয়াল। ২০ বছর পেরিয়ে গেলেও ভয়াবহতম এই সন্ত্রাসী হামলার ক্ষত এখনও শুকোয়নি দেশটিতে।