June 18, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Friday, March 17th, 2023, 9:06 pm

মাক্রোঁর পেনশন সংস্কার নিয়ে প্রবল বিক্ষোভ

অনলাইন ডেস্ক :

প্রেসিডেন্ট মাক্রোঁর পেনশন সংস্কার নিয়ে উত্তাল ফ্রান্স। পর্লামেন্টে প্রবল প্রতিবাদ। প্যারিসের রাস্তায় বিক্ষোভ, গ্যাস, লাঠি, আগুন। প্রেসিডেন্ট মাক্রোঁ পেনশন পাওয়ার বয়স ৬২ থেকে বাড়িয়ে ৬৪ করতে বদ্ধপরিকর। মাক্রোঁর প্রস্তাব নিয়ে পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে ভোটাভুটি হওয়ার কথা ছিল। সেখানে বামপন্থি-সহ মাক্রোঁ-বিরোধীরা এর বিরুদ্ধে ভোট দিয়ে তা হারাবার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।এই পরিস্থিতিতে মাক্রোঁ একের পর এক বৈঠক করতে থাকেন। তারপর তিনি সিদ্ধান্ত নেন, সরকার বিশেষ সাংবিধানিক ক্ষমতা প্রয়োগ করবে। ভোটাভুটি ছাড়াই পার্লামেন্টে বিল পাস করানো হবে। প্রধানমন্ত্রী যখন পার্লামেন্টে এই ঘোষণা করছেন, তখন বামপন্থিরা স্লোগান দিতে থাকে, ‘সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে’। কিছু এমপি খুব জোরে জাতীয় সঙ্গীত গাইতে থাকেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, পেশনপ্রাপ্তদের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত করতে চায় না সরকার। তাই এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এরপরই ট্রেড ইউনিয়নগুলি বিক্ষোভ তীব্র করার সিদ্ধান্ত নেয়। হাজার হাজার বিক্ষোভকারী শহরের কেন্দ্রস্থলে পৌঁছান। বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন। এএফপি জানাচ্ছে, জনতা পার্লামেন্টের দিকে যাওয়ার চেষ্টা করে। বিক্ষোভভকারীদের মোকাবিলায় পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ব্যবহার করে, জলকামান চালায়, বিক্ষোভকারীদের লাঠিও মারা হয়। এএফপি জানাচ্ছে, পুলিশ আটজনকে গ্রেপ্তার করে। কিন্তু ফ্রান্স ইনফোকে পুলিশের সূত্র জানিয়েছে, ২১৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। হাজার ছয়েক মানুষ বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন। তারা রাস্তায় কাঠ ফেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথরও মারে। কিছুক্ষণের মধ্যেই ফ্রান্সের অন্য শহরেও বিক্ষোভ ছড়ায়। কেন এই সিদ্ধান্ত? রাজকোষে যাতে আরও অর্থ আসে তার ব্যবস্থা করার জন্য মাক্রোঁ পেনশন পাওয়ার বয়স আরও দুই বছর বাড়াতে চাইছেন। সরকারি সূত্রের দাবি, এই ব্যবস্থা না নিলে আর্থিক পরিস্থিতি সামলানো যাবে না। সরকার ঘাটতি সামলাতে পারবে না। কিন্তু বিক্ষোভকারীদের দাবি, এটা সরকারের নীতির ব্যর্থতা। সমীক্ষায় দেখা গেছে, প্রায় ৭০ শতাংশ মানুষ এই প্রস্তাবের বিরোধী। ইউনিয়নগুলি এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে একদিনের ধর্মঘটের ডাক দিচ্ছে। সরকার সিদ্ধান্ত বদল না করলে তারা ২৩ মার্চ ধর্মঘট পালন করবে। পার্লামেন্টে এখন মাক্রোঁর দলের সংখ্যাগরিষ্ঠতা নেই। বিল পাস করার জন্য তাদের রক্ষণশীলদের ভরসায় থাকতে হয়। রক্ষণশীলরা এই সিদ্ধান্ত নিয়ে দ্বিধাবিভক্ত। বামপন্থিরা বিরোধী। তাই বিল পাস করাতে গিয়ে বিপাকে পড়েছেন মাক্রোঁ। সেজন্যই তিনি বিশেষ ক্ষমতা প্রয়োগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।