February 4, 2023

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Thursday, December 22nd, 2022, 8:22 pm

মারা গেছেন চিকেন টিক্কা মাসালার উদ্ভাবক

অনলাইন ডেস্ক :

৭০-এর দশক। স্কটল্যান্ডের গ্লাসগো শহরে ছোট রেস্তরাঁ চালাচ্ছেন আলি আহমেদ আসলাম। সেই সময়ে দোকানে চিকেনের পদ খেতে আসেন এক স্থানীয় মানুষ। খেয়ে বলেন, একটু শুকনো লাগছে। খাওয়া যাচ্ছে না। ব্যস, তখনই মাথার মধ্যে ঢোকে কী করে, এই শুকনো চিকেনকে নরম এবং রসালো করা যায়। সেই খাদ্যরসিক ক্রেতাই বলেন, একটু সস মিশিয়ে দেখুন। কী সস মেশানো যায়? আলি আহমেদ ঠিক করেন, মাংসটি রাঁধার সময়েই তাতে দই আর ক্রিম মেশাবেন। সেই থেকেই শুরু। সূচনা হল পৃথিবীর সবচেয়ে জনপ্রিয় পদগুলির একটি। চিকেন টিক্কা মসালা। তার উদ্ভাবক আলি আহমেদ আসলাম স্কটল্যান্ডে প্রয়াত হলেন। মৃত্যুকালে বয়স হয়েছিল ৭৭ বছর। প্রায় ৫০ বছর আগে নিতান্ত পরীক্ষামূলকভাবেই নিজের রেস্তরাঁয় চিকেন টিক্কা মসালার শুরু করে ফেলেন আলি আহমেদ। খাদ্যরসিক মহলে যিনি ‘মিস্টার আলি’ বলে পরিচিত। পাকিস্তানে জন্ম। কিন্তু খুব অল্প বয়সেই চলে যান স্কটল্যান্ড। আর খুলে ফেলেন নিজের সাধের রেস্তরাঁ শিশমহল। নানা সময়ে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে আবেগতাড়িত হয়ে পড়তেন সকলের প্রিয় মিস্টার আলি। বলতেন, এই রেস্তরাঁতেই এক সময়ে আবিষ্কার হয়েছিল চিকেন চিক্কা মসালার। এখন সারা পৃথিবীর মানুষ তা উপভোগ করেন। এশিয়ার মানুষের মতো ঝাল বা খুব বেশি মশলাদার খাবার ইউরোপের মানুষ খেতে পারেন না। তাদের সমস্যা হয়। সেই কারণেই চিকেন টিক্কা মসালা বানানোর সময়ে সে কথা মাথায় রাখতে হয়েছিল আলি আহমেদকে। সে কথা বার বার বলতেন তিনি। বিদেশিদের জিভের কথা মাথায় রেখেই বানানো এই চিকেন টিক্কা মসালা। আলি আসলামের সম্মানে শিশমহল ৪৮ ঘন্টার জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়। রেস্তোরাঁটির পক্ষ থেকে বলা হয়, আলি আসলাম সোমবার সকালে মারা গেছেন। তার মৃত্যুতে আমরা একেবারেই বিধ্বস্ত ও বেদনাহত। মঙ্গলবার গ্লাসগোর কেন্দ্রীয় মসজিদে আলি আসলামের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় সরকারি কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শত শত মানুষ তাকে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। অনেকে শিশমহল রেস্তোরাঁর স্মৃতি তুলে ধরে আলীকে একজন ‘নিপাট ভদ্রলোক’ হিসেবে বর্ণনা করে তার প্রশংসা করছেন। উল্লেখ্য, আলি আসলাম পাকিস্তানে জন্মগ্রহণ করলেও অল্প বয়সেই তিনি পরিবারের সঙ্গে গ্লাসগোয় পাড়ি জমান। পরে ১৯৬৪ সালে গ্লাসগোর পশ্চিমে তিনি শিশমহল রেস্তোরাঁ চালু করেন। আলি আসলাম পাঁচ সন্তানের জনক। যদিও তিনি কীভাবে মারা গিয়েছেন, সে সম্পর্কে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।