May 18, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Tuesday, April 18th, 2023, 7:56 pm

মার্কিন বাজারে দরপতন পোশাক খাতের প্রবৃদ্ধির গতি কমাতে ব্যর্থ

ফাইল ছবি

চলতি অর্থবছরের প্রথম নয় মাসে, অর্থাৎ জুলাই-২০২২ থেকে মার্চ-২০২৩ -এ বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানি প্রায় ১২ শতাংশ বেড়েছে। যে কারও মানদণ্ড অনুসারে একটি চিত্তাকর্ষক অর্জন। এটি আরও বেশি চিত্তাকর্ষক যখন আপনি বিবেচনা করেন যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পোশাক রপ্তানির বৃহত্তম একক বাজার, যেখানে পাঁচ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে।

বিজিএমইএ পরিচালক মহিউদ্দিন রুবেলের মতে, সামগ্রিকভাবে ইউরোপীয় ইউনিয়নে রপ্তানি শিল্পের গতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলছে। ২০২২-২৩ অর্থবছরের জুলাই-মার্চের মধ্যে ইউরোপীয় ইউনিয়নে পোশাক রপ্তানিও ২০২১-২২ অর্থবছর জুলাই-মার্চে রেকর্ড করা ১৫ দশমিক ৭৫ বিলিয়ন ডলারের তুলনায় প্রায় ১২ শতাংশ (১১.৮ শতাংশ আরও সুনির্দিষ্টভাবে) বেড়ে ১৭ দশমিক ৬১ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে।

পোশাক রপ্তানির সামগ্রিক বৃদ্ধি একটি চিত্তাকর্ষক ১২ দশমিক দুই শতাংশ হয়েছে, যা ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে ৩১ দশমিক ৪৩ বিলিয়ন ডলার থেকে২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে ৩৫ দশমিক ২৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার হয়েছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে শিল্পের রপ্তানি প্রকৃতপক্ষে পাঁচ শতাংশ কমে যাওয়া সত্ত্বেও এটি অত্যন্ত চিত্তাকর্ষক বৃদ্ধির পরিসংখ্যান অর্জিত হয়েছে – চলতি অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে ছয় দশমিক ২৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার হয়। যা গত বছর রেকর্ড করা হয়েছিল ছয় দশমকি ছয় বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

যুক্তরাজ্য ও কানাডায় বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানি যথাক্রমে ১৪ দশমিক ০৪ শতাংশ ও ১৭ দশমিক ৬৮ শতাংশ বৃদ্ধির সঙ্গে তিনি দশমিক ৮৪ বিলিয়ন ডলার এবং এক দশমিক ০৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে পৌঁছেছে।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রধান বাজারগুলোর মধ্যে জার্মানিতে পোশাক রপ্তানি বছরে চার দশমিক ১৬ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে যেখানে ফ্রান্স এবং স্পেনে রপ্তানি যথাক্রমে ২৫ দশমিক ২৩ শতাংশ এবং ১৮ দশমিক ৮২ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। অন্যদিকে, পোল্যান্ডে রপ্তানি ১৪ দশমিক ৮৫ শতাংশ কমেছে।

সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য প্রবৃদ্ধি অপ্রচলিত খাতে রিপোর্ট করা হয়েছে। অপ্রচলিত বাজারে পোশাক রপ্তানি ৩৪ দশমিক ৭৪ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে ২০২২-২৩ অর্থবছরের জুলাই-মার্চ সময়ের মধ্যে ছয় দশমিক ৪৪ বিলিয়ন হয়েছে যা একই সময়ের মধ্যে চার দশমিক ৭৮ বিলিয়ন ছিল।

বিজিএমইএ পরিচালক মহিউদ্দিন রুবেলের বলেন, ‘বিজিএমইএ নতুন বাজার অনুসন্ধানের সুবিধার্থে কাজ করছে, পাশাপাশি ব্যবসাকে সহজ ও সহজ করার জন্য নীতি সংস্কারের কাজ করছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে, এবং নতুন সুযোগগুলো অন্বেষণ করার জন্য বিশ্বব্যাপী গ্রাহকদের (বিদ্যমান এবং নতুন) সামনে নতুন পণ্য এবং নতুন বাজারে আমাদের শক্তিগুলোকে প্রচার এবং হাইলাইট করার সময় এসেছে। এটি দীর্ঘমেয়াদে আমাদের প্রবৃদ্ধি ধরে রাখতে সাহায্য করবে।’

—-ইউএনবি