August 13, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Saturday, June 25th, 2022, 7:35 pm

যুক্তরাষ্ট্রে গর্ভপাতের সাংবিধানিক অধিকারের অবসান

অনলাইন ডেস্ক :

‘রো বনাম ওয়েড’ রায় বাতিল হওয়ার প্রেক্ষিতে গর্ভপাতের সাংবিধানিক অধিকারের অবসান ঘটালো মার্কিন সুপ্রিম কোর্ট। শুক্রবার এই আলোচিত রায় ঘোষণার পর ইতোমধ্যে দেশটির আলাবামা, টেক্সাস ও ওয়েস্ট ভার্জিনিয়াসহ বেশ কয়েকটি রাজ্যের অনেকগুলো গর্ভপাত ক্লিনিক বন্ধ করা হয়েছে।

মার্কিন সুপ্রিম কোর্ট এক রায়ে বলেছে, ‘গর্ভপাত করা মার্কিন নারীদের সাংবিধানিক অধিকার নয়।’

এই রায়ের ফলে এখন দেশটিতে কয়েক কোটি প্রজননক্ষম নারী গর্ভপাতের সাংবিধানিক অধিকার হারাবেন। এতে গর্ভপাতবিরোধী অঙ্গরাজ্যগুলো চাইলে তা নিষিদ্ধ করতে পারবে।

ওয়েস্ট ভার্জিনিয়ার একমাত্র গর্ভপাত ক্লিনিকের নির্বাহী পরিচালক কেটি কুইনোনেজ বলেন, ‘রায় শোনার পর বহু রোগী কান্নায় ভেঙে পড়েন,এমনকি তারা কথা পর্যন্ত বলতে পারছিল না।’

তিনি আরও জানান, তার কর্মীরা কয়েক ডজন রোগীর অ্যাপয়েন্টমেন্ট বাতিল করেছেন।

কেটি কুইনোনেজ বলেন, ‘কিছু রোগী হতবাক হয়ে গিয়েছে। কী করতে বা বলতে হবে, তা তারা বুঝতে পারছেন না।’

যুক্তরাষ্ট্রের ৯টি রাজ্যে অবিলম্বে গর্ভপাত বন্ধ করা হয়েছে।

সুপ্রিম কোর্ট রো রায় বাতিল করার পর মার্কিনিদের মধ্যে ক্রোধ, আনন্দ, ভয় ও বিভ্রান্তির মতো মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা যায়।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গর্ভপাত অধিকার সমর্থকরা এটিকে ইতিহাসের একটি অন্ধকার দিন বলে অভিহিত করেছে। অন্যদিকে,গর্ভপাত বিরোধীরা এই রায়কে স্বাগত জানিয়েছে।

ইউএস হাউসের সংখ্যাগরিষ্ঠ হুইপ ও সাউথ ক্যারোলিনার ডেমোক্র্যাটিক প্রতিনিধি জিম ক্লাইবার্ন বলেছেন, ‘এই দেশ রক্ষণশীলতার দিকে ঝুঁকছে, নাগরিকদের মানবাধিকার কেড়ে নেয়া হচ্ছে।’

ইতোমধ্যে দেশটির বিভিন্ন শহরে বিক্ষোভ চলছে এই রায়ের বিরোধিতায়।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এই রায়কে ‘একটি দুঃখজনক ত্রুটি’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। বাইডেন রায়ের সমালোচনা করে অঙ্গরাজ্যগুলোকে গর্ভপাতের অনুমোদন দিয়ে আইন করার আহ্বান জানিয়েছেন।

গর্ভপাতবিরোধীরা একে বিপুলভাবে স্বাগত জানিয়েছে। অন্যদিকে পছন্দের স্বাধীনতার পক্ষের আন্দোলনকর্মীরা এ রায়ের নিন্দা করেছেন।

রায়ের পর গ্যারেট বেস নামক একজন গর্ভপাতবিরোধী বলেন ‘গর্ভবতী মা ও শিশুদের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে আমরা তৃণমূলে থাকা আমেরিকানদের সঙ্গে কাজ করব। দীর্ঘ সময় অপেক্ষার ফল এই রায় ঘোষিত হলো, আমি এ সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাই।’

অন্যদিকে ব্যক্তিস্বাধীনতার সমর্থকরা আদালতের এই সিদ্ধান্তটিকে ‘অবৈধ’ এমনকি ‘ফ্যাসিবাদ’ এর একটি রূপ বলে নিন্দা করেছেন।

১৯৭৩ সালের ঐতিহাসিক রো বনাম ওয়েড মামলায় সাত-দুই ভোটের মাধ্যমে সুপ্রিম কোর্ট এক ঐতিহাসিক রায় দিয়েছিল। রায়ে বলা হয়,একজন মহিলার গর্ভপাতের অধিকার মার্কিন সংবিধান দ্বারা সুরক্ষিত। ওই রায় যুক্তরাষ্ট্রের নারীদের গর্ভাবস্থার প্রথম তিন মাসে গর্ভপাতের নিরঙ্কুশ অধিকার দিয়েছে। তবে দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে কিছু বিধিনিষেধ আরোপ এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকে গর্ভপাত নিষিদ্ধ করেছে।

কিন্তু তার পর থেকে গত কয়েক দশকে বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে গর্ভপাতবিরোধী রায় দেয়ার ঘটনা বেড়েছে।

সুপ্রিম কোর্ট ডবস বনাম জ্যাকসন নারী স্বাস্থ্য সংস্থা মামলা বিবেচনা করতে গিয়ে নতুন রায়টি দিয়েছে। ওই মামলায় ১৫ সপ্তাহ পরে গর্ভপাতের ওপর মিসিসিপি অঙ্গরাজ্যের নিষেধাজ্ঞাকে চ্যালেঞ্জ করা হয়েছিল।

রক্ষণশীল বিচারকদের সংখ্যাগরিষ্ঠ শীর্ষ আদালত অঙ্গরাজ্যের পক্ষে রায় দিয়েছে। এতে কার্যত গর্ভপাতের সাংবিধানিক অধিকার বাতিল হয়ে গেল।