April 22, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Sunday, March 12th, 2023, 8:30 pm

যে কারণে ক্ষুব্ধ নায়িকা নূতন

অনলাইন ডেস্ক :

ইলিয়াস কাঞ্চন ও নিপুণকে এক হাত নিলেন ‘মাস্টার মেকার’খ্যাত নির্মাতা মালেক আফসারি। এর পরপরই বিষয়টি নিয়ে ক্ষুব্ধ মত ব্যক্ত করেন নায়িকা নূতন। তারা উভয়েই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এর শুরুটা হয় গত ৯ মার্চ। এদিন ছিল অভিনেত্রী রোজী আফসারীর মৃত্যুবার্ষিকী। এই অভিনেত্রী দীর্ঘ ক্যারিয়ারে ৩৫০টিরও বেশি সিনেমায় অভিনয় করেছেন। তাছাড়া চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির জন্ম হয়েছে রোজী আফসারীর বাসায় বলে জানান তার স্বামী মালেক আফসারী। কিন্তু তার মৃত্যুবার্ষিকীতে শিল্পী সমিতি তাকে স্মরণ করেনি। এ জন্য ক্ষোভ প্রকাশ করে মালেক আফসারী ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন: ‘ইলিয়াস কাঞ্চন ও নিপুণ আক্তার আপনাদের এই শিল্পী সমিতির জন্ম হয় রোজীর বাসায়। ইতিহাস জানা না থাকলে নায়ক আলমগীর ভাইয়ের কাছে জেনে নিবেন। ৯ মার্চ তার মৃত্যুবার্ষিকী ছিল। সমিতির পক্ষ থেকে একটু দোয়া করে দিলে কি ক্ষতি হতো?’ এরপর একই বিষয়ে মুখ খোলেন জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা নূতন। শিল্পীদের সম্মান, ক্ষমতা ও নানা প্রসঙ্গে গতকাল শনিবার সকালে দীর্ঘ এক স্ট্যাটাস দিয়েছেন তিনি। শিল্পী সমিতির নির্বাচনে নির্মাতা মালেক আফসারী কাঞ্চন-নিপুণকে সমর্থন করেছিলেন স্মরণ করিয়ে দিয়ে নূতন লিখেছেন: ‘মালেক আফসারীকে আমি এই প্যানেলের পক্ষে কথা বলতে দেখেছি। যদিও সেটা তার ব্যক্তিগত ব্যাপার। ৃ কাঞ্চন না থাকলে আমি যতটুকু কথা বলেছি তাও বলতাম না। এখন মনে হচ্ছে ভুল করেছি। কাঞ্চন একজন গুণী সিনিয়র শিল্পী, আমার বন্ধু। সে সবসময় রাগী একরোখা, সততার একটা মনোভাব নিয়ে থাকে। এই গুণের পাশাপাশি তার আবেগী হওয়া উচিত। তা নাহলে তার এই একরোখা স্বভাব মূল্যহীন হয়ে যাবে। নির্বাচনে না এলে নিপুণ হারিয়ে যেত বলে মনে করেন নূতন আক্তার। সে প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, নিপুণ সে অনেক ছোট এবং চলচ্চিত্র ইতিহাস বা আমাদের আগের শিল্পীদের মর্ম তার না জানারই কথা। নির্বাচন কেন্দ্র করে আলোচনা না হলে আরো ৮-১০ জনের মতো হারিয়ে যাওয়া তালিকায় তার নাম থাকতো। তার প্রতি আমার রাগ নেই। আমার ছোট বোন, সম্মান করে। এখন তো মনে হয় দেখানো সম্মান। তার এই মহানেত্রী সুলভ আচরণে বা অধিক ক্ষমতায়ণে তার এসব নিয়ে ভাবার সময় নাই থাকতে পারে। আমি তাকে অনুরোধ করব ছোট বোন হিসেবে বড়দের সম্মান করা, মনে লালন করতে হবে। নেতৃত্ব গুণ নিয়ে সবাই জন্মায় না, তা লালন করতে হয়। কাঞ্চন সাহেবের রোজী আফসারীকে মনে রেখে একটা মিলাদ মাহাফিল করার দরকার ছিল। এই ভুলে যাওয়া বুঝে না বুঝে সম্মান ঘাটতির খেসারত দিতে গিয়ে আজ চলচ্চিত্র ধ্বংস। ইলিয়াস কাঞ্চনকে বন্ধু সম্মোধন করে তিনি লেখেন: বন্ধু এসব কথা আমি আমার স্বার্থে বলেছি। যেনো আমি, মারা গেলে কেহ আমার-আমাদের নাম নেয়। কেহ যেনো স্বিকার করে আমরাই চলচ্চিত্র। দয়া করে মুর্খতাসুলভ আচরণ করবেন না যে আপনি কি জায়েদের পক্ষে? আমি জায়েদ নিপুণ এদের জন্মাইতে দেখছি। আমি আমার সময়ের বন্ধু, আমার সহকর্মীদের পক্ষে। এইসব শিল্পী সমিতি ছোট খাটো কারো পক্ষে বিপক্ষে থাকার জন্য আমি নায়িকা হইনি বা জন্মাইনি।