January 25, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Sunday, January 9th, 2022, 8:30 pm

যে মন্ত্রিসভার অর্ধেক সদস্য নারী

অনলাইন ডেস্ক :

এখনও সংসারের মূল ভারটি কিন্তু গিয়ে পড়ে নারীদের ওপর। একবেলা রান্নাবান্না না হলেই দায়ভার তাদের। সেই জায়গায় নারীদের যথাযথ শিক্ষা, চাকরি-বাকরি, বাইরে চলাফেরা এখনও মেনে নেয় না অনেক সমাজ। যদিও অধিকাংশ দেশে সেই সময় আর রয়ে যায়নি। দেশগুলোতে এখন সর্বক্ষেত্রে নারীদের বিচরণ। শুধুই কি বিচরণ, নাকি সমানে সমান? নেদারল্যান্ডসের মন্ত্রিসভার কথাই ধরা যাক। এক মন্ত্রিসভায় প্রায় অর্ধেক নারী। ২৯ মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর মধ্যে নারী ১৪ জন। এর মধ্যে আবার ২০ মন্ত্রীর মধ্যে ১০ জন নারী, অর্থাৎ সমানে সমান। বরং কোনো কোনো ক্ষেত্রে তারা আরও এগিয়ে। তাদেরই জয়জয়কার। রাজনীতির পাশাপাশি শিক্ষা, অর্থনীতি, প্রশাসন, প্রতিরক্ষা এমনকি খেলাধুলায়ও জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে ভূমিকা নিচ্ছেন। নেদারল্যান্ডসে গত মার্চে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনের রেকর্ড ২৭১ দিন পর গত ডিসেম্বরে জোট সরকার গঠনে সম্মত হয় চার দল। সম্প্রতি মন্ত্রিসভা গড়ে সদস্যদের তালিকা প্রকাশ করে সরকার। তখনই রেকর্ডসংখ্যক নারী মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী নেওয়ার তথ্যটি সামনে আসে, যারা কিনা শপথ নিতে যাচ্ছেন আজ সোমবার আর এর মধ্য দিয়ে চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন মার্ক রুট্টে। তালিকা অনুযায়ী, তুর্কি বংশোদ্ভূত দিলান ইয়েসিলগোজ জেগেরিয়াস হতে যাচ্ছেন বিচার ও নিরাপত্তামন্ত্রী। ৪৩ বছর বয়সী এ নারী শৈশবে নেদারল্যান্ডসে চলে গিয়েছিলেন। মধ্য ডানপন্থি পিপলস পার্টি ফর ফ্রিডম অ্যান্ড ডেমোক্রেসি (ভিভিডি) থেকে মনোনয়ন পেয়েছিলেন। মার্ক রুট্টেও এ দলের নেতা। বর্তমান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কাজসা ওলোনগ্রেন হতে যাচ্ছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী। ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্রেটিক রাজনীতিক ওপকে হোয়েক্সট্রা হবেন নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি আগে অর্থমন্ত্রী ছিলেন। এবার অর্থমন্ত্রী হবেন সিগ্রিদ কাগ। তিনি আবার সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী। আরবিভাষী সাবেক এ কূটনীতিক ২০১৫-১৭ সাল পর্যন্ত লেবাননে জাতিসংঘের বিশেষ সমন্বয়ক ছিলেন। এর আগে সিরিয়ার রাসায়নিক অস্ত্র ধ্বংসের তত্ত্বাবধানে জাতিসংঘের একটি দলের নেতৃত্ব দেন। নেদারল্যান্ডসে অর্থমন্ত্রী নিয়োগটি খুবই গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হয়। কারণ, দেশটিকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) ‘মিতব্যয়ী চার’-এর সদস্য রাষ্ট্র হিসেবে দেখা হয়, যেখানে অস্ট্রিয়া, ডেনমার্ক ও সুইডেনও রয়েছে। বলা হয়, এই চার দেশের দেখানো পথে সদস্য অন্য সব দেশের সঙ্গে বাজেটে যায় ইইউ। সরকার দলগুলো এবার জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এবং আবাসন ও সামাজিক নীতি সংস্কারে বিলিয়ন বিলিয়ন বিনিয়োগ করতে সম্মত।